১৬ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

পুরস্কারে ভূষিত ম্যাককুলাম

পুরস্কারে ভূষিত ম্যাককুলাম
  • এবার সিএমজে ‘স্পিরিট অব ক্রিকেট’ সম্মাননা পেলেন কিউই অধিনায়ক

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ গত কয়েক মৌসুম নিউজিল্যান্ড দলকে অসাধারণ নেতৃত্ব দেয়ার পাশাপাশি মাঠ ও মাঠের বাইরে নিজেকে অনুকরণীয় চরিত্র হিসেবে ফুটিয়ে তোলার পুরস্কার পেলেন ব্রেন্ডন ম্যাককুলাম। সিএমজেÑএর ‘স্পিরিট অব ক্রিকেট’ এ্যাওয়ার্ডে ভূষিত হলেন ৩৩ বছর বয়সী কিউই অধিনায়ক। মূলত বছরের শুরুতে নিউজিল্যান্ডকে প্রথমবারের মতো বিশ্বকাপের ফাইনালে তুলে নেয়ার পর ইংল্যান্ড সফরে অসাধারণ নেতৃত্বের জন্য তাকে এই সম্মাননা জানানো হয়। নেতৃত্বের মান ও নিজের দলটিকে নিয়ে খেলার মধ্যে স্বচ্ছতার সংস্কৃতি প্রদর্শনের জন্য এই পুরস্কার পেলেন ম্যাককুলাম।

ইংল্যান্ডের ঐতিহ্যবাহী মেরিলিবন ক্রিকেট ক্লাব (এমসিসি) ও ব্রিটিশ ব্রডকাস্টিং কর্পোরেশনের (বিবিসি) যৌথ উদ্যোগে এমসিসির সাবেক সভাপতি ও বিবিসির ধারাভাষ্যকার ক্রিস্টেফার মার্টিন জেনকিনসের স্মরণে এই পুরস্কার প্রবর্তন করা হয়। দু-বছর আগে মৃত্যুবরণ করেন মহান এই ক্রীড়াব্যক্তিত্ব। নিউজিল্যন্ড দল নিয়ে ও ব্যক্তিগত পর্যায়ে অসাধারণ এক মৌসুম কাটান ম্যাককুলাম। অস্ট্রেলিয়ার সঙ্গে যৌথভাবে আয়োজিত ২০১৫ বিশ্বকাপে নিউজিল্যান্ডকে ফাইনালে তুলে নেন। যা দেশটির ইতিহাসে সেরা সাফল্য। যদিও ফাইনালে প্রতিবেশী অস্ট্রেলিয়ার সঙ্গে পেরে ওঠেননি। তবে আগ্রাসী ক্রিকেটের পসরা সাজিয়ে বিশ্ববাসীকে অপার আনন্দে ভাসায় কিউইরা। ব্ল্যাক-ক্যাপসদের নৈপুণ্য দাগ কাটে ক্রীড়াপ্রেমীদের মনে। তার আগে পাকিস্তান, শ্রীলঙ্কা এবং বিশ্বকাপের পর ইংল্যান্ডে দারুণ সময় কাটে কিউদের। ইংল্যান্ড সফরে টেস্ট সিরিজে স্বাগতিকদের ১-১এ রুখে দেয়ার পর হাড্ডাহাড্ডি লড়াই করে ওয়ানডেতে হারে ৩-২ ব্যবধানে। গত এপ্রিলে নিউজিল্যান্ড ক্রিকেট বোর্ড (এনজেডসি) ম্যাককুলামকে বর্ষসেরা ক্রিকেটার নির্বাচিত করে।

সদ্যসমাপ্ত ইংল্যান্ড ও অস্ট্রেলিয়ার মধ্যকার সিরিজের দ্বিতীয় ওয়ানডেতে বেন স্টোকসের বিতর্কিত আউটের বিষয়টি সঠিকভাবে পরিচালনা করতে ব্যর্থ হওয়ায় অস্ট্রেলিয়া অধিনায়ক স্টিভেন স্মিথকে ‘অপরিণত’ বলে সমালোচনা করে দৃষ্টি কাড়েন ম্যাককুলাম। মোট চার ক্যাটগরিতে সিএমজেÑএর এই পুরস্কার দেয়া হয়। অসাধারণ খোলোয়াড়ি মনোভাবের মাধ্যমে স্বচ্ছতা এবং আম্পায়র ও প্রতিপক্ষ খেলোয়াড়দের প্রতি সম্মান প্রদর্শনের মধ্য দিয়ে কোন একটি মৌসুম বা সুনির্দিষ্ট কোন টুর্নামেন্টে ভদ্রলোকের খেলা ক্রিকেটের মানকে এগিয়ে নেয়ার ক্ষেত্রে ভূমিকা রাখার জন্য বালক, বালিকা, স্কুল এবং পেশাদার খেলোয়াড়কে এই পুরস্কার দেয়া হয়। এর আগে পেশাদার ক্যাটগরিতে পুরস্কারটি পেয়েছিলেন লুক রাইট ও ওয়েন মাডসেন। বিবিসির টেস্ট ম্যাচ বিশেষজ্ঞ জোনাথন এগনিউ এবং এমসিসির সভাপতি ডেভিড মরর্গানের সমন্বয়ে গঠিত জুরি বোর্ড বাছাইয়ের কাজটি সম্পন্ন করেন।

নির্বাচিত সংবাদ