২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

ডিসেম্বরেই আঞ্চলিক ক্রিকেট সংস্থার কাজ শুরু

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ ক্রিকেটের ভবিষ্যত আরও উজ্জ্বল করতে হলে আঞ্চলিক ক্রিকেট সংস্থার কোন বিকল্প নেই। আর সেটিই আগামী ডিসেম্বর থেকে চালু হতে যাচ্ছে। আঞ্চলিক ক্রিকেট সংস্থার কাজ শুরু হতে যাচ্ছে। এমনটিই জানিয়েছেন বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) সহ-সভাপতি মাহবুবুল আনাম। বিওএ মিলনায়তনে বাংলাদেশ স্পোর্টস জার্নালিস্টস এ্যাসোসিয়েশন (বিএসজেএ) আয়োজিত ‘তৃণমূলে আমাদের ক্রিকেট’ শীর্ষক সেমিনারে মাহবুবুল আনাম বলেছেন, ‘আঞ্চলিক ক্রিকেট সংস্থার গঠনতন্ত্র অনুমোদন হয়ে গেছে। ‘পাইলট প্রজেক্ট’ হিসেবে আগামী ডিসেম্বরে দু-একটি আঞ্চলিক সংস্থা কাজ শুরু করবে।’

বিসিবি সহ-সভাপতি আরও বলেন, ‘ক্রিকেটের বিকেন্দ্রীকরণ না করলে আমাদের কোন ভবিষ্যত নেই। আঞ্চলিক ক্রিকেট সংস্থাকে কার্যকর অবস্থায় দেখে যেতে না পারলে সংগঠক হিসেবে নিজেকে ব্যর্থ মনে করব। কেউ শুরু থেকেই শেখে না। বিসিবিরই দায়িত্ব তাদের গড়ে তোলা।’

টেস্ট খেলুড়ে দেশ বাংলাদেশ। অথচ একমাত্র বাংলাদেশেরই ক্রিকেটের নির্দিষ্ট বর্ষপঞ্জি নেই। এমনটি ‘লজ্জার, অসফলতার’ এমনটিই বলেছেন মাহবুবুল আনাম। বলেছেন, ‘বাংলাদেশে ৬৪ জেলায় স্টেডিয়াম আছে। ৯৪ ইনডোর বা জিমনেসিয়াম আছে। সেখানে বিয়ের অনুষ্ঠান ও গরু রাখা হয়। বিসিবি এসবের দায়িত্ব নিতে পারে। কিন্তু এনএসসি কর্তৃত্ব ছাড়তে চায় না।’ কুমিল্লা জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাবেক ক্রিকেট সম্পাদক বদরুল হুদা জেনু বলেছেন, ‘আমাদের মাঠ আছে, উইকেট আছে। কিন্তু সেগুলোর রক্ষণাবেক্ষণের ব্যবস্থা নেই।’

জাতীয় দলের সাবেক অধিনায়ক খালেদ মাসুদের অভিযোগ, ‘রাজশাহীতে পর্যাপ্ত মাঠ এবং সুযোগ-সুবিধা থাকলেও নেই সুষ্ঠু ব্যবস্থাপনা। ১০ হাজার টাকা বেতনের কোচের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিলেও তদবির করতে মন্ত্রীর ফোন আসে। বিসিবি থেকে পর্যাপ্ত অর্থ বরাদ্দের পরও বিভাগীয় পর্যায়ের দলগুলো কোচ-ট্রেনারদের ঠিকভাবে বেতন দেয় না।’ সেমিনারে আরও বক্তব্য রেখেছেন বিসিবির ন্যাশনাল গেম ডেভেলপমেন্ট ম্যানেজার নাজমুল আবেদীন, সাবেক বোর্ড পরিচালক ও চট্টগ্রাম বিভাগীয় ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক সিরাজউদ্দিন মোহাম্মদ আলমগীর, জাতীয় দলের সাবেক অধিনায়ক খালেদ মাসুদ পাইলট, বিসিবির বয়সভিত্তিক ক্রিকেটের নির্বাচক সাজ্জাদ আহমেদ, বরিশালের বেসিক ক্রিকেট কোচিং একাডেমির কোচ সুজন মাহমুদ, ঢাকার ক্রিকেট সংগঠক সৈয়দ আলী আসাফ ও ক্রীড়া সাংবাদিক উৎপল শুভ্র, মোস্তফা মামুন।