২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

বৃষ্টিতেও কঠোর অনুশীলনে মামুনুলরা

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ হেমন্তর আকাশে কালো মেঘ। গতকাল রবিবারও তাকে ক্যাম্পে ঢুকতে দেয়া হয়নি। জাতীয় দলের এই তরুণ ফরোয়ার্ডকে ছাড়াই চলছে অনুশীলন। বিধি লঙ্ঘন করে খেপ খেলার খেসারত গুনতে হচ্ছে হেমন্ত ভিনসেন্টকে। ইতোমধ্যে তাকে কারণ দর্শানো নোটিস দিয়েছে বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশন (বাফুফে)। একদিকে জাতীয় দলের সদ্য রিক্রুট ইতালিয়ান কোচ ফ্যাবিও লোপেজের কঠোরতা। অন্যদিকে বাফুফেকে সদুত্তর, দুই মিলিয়ে বলা যায় মহাবিপদে এখন এই প্রতিভাবান ফুটবলার। শেখ জামাল ধানম-ি মাঠে গতকাল ম্যাচ খেলার কথা ছিল জাতীয় দলের ফুটবলারদের। কিন্তু সেটা বাতিল করা হয়েছে ভারি বর্ষণের কারণে। তাই বলে থেমে ছিল না লোপেজের কার্যক্রম। বাফুফে সংলগ্ন কৃত্রিম ঘাসের মাঠে ম্যাচ প্রাকটিস করিয়েছেন তিনি। এভাবে ম্যাচ প্রাকটিসের মধ্যেই চলবে অনুশীলন। যার মাধ্যমে কোচ তার বাছাই তালিকা সংক্ষিপ্ত করবেন। ৪১ থেকে নামিয়ে আনবেন ২৭ জনে। এরপরই বিকেএসপিতে আবাসিক ক্যাম্প। অনুশীলন চলবে ঈদের আগেরদিন বৃহস্পতিবার পর্যন্ত ম্যাচ অনুশীলনের মাধ্যমে পরীক্ষা নেবেন লোপেজ। ফিটনেস, মেধা যাচাইয়ের মাধ্যমে বিশ্বকাপ বাছাইয়ের পরবর্তী ম্যাচগুলোর জন্য দল চূড়ান্ত করা হবে। উল্লেখ্য, লোপেজ আনুষ্ঠানিক দায়িত্ব গ্রহণের আগে বাংলাদেশ জাতীয় দলের দুটি ম্যাচ নিজে দেখেছেন। অস্ট্রেলিয়া ও জর্দানের বিপক্ষে ম্যাচ দুটি দেখে তিনি অনেক দুর্বলতা খুঁজে পেয়েছেন বাংলাদেশ দলে এবং খেলোয়াড়দের মধ্যে। আর এ কারণে জাতীয় দলে বড় ধরনের পরিবর্তনের ইঙ্গিত দিয়েছেন লোপেজ। ফলে নিজের মতো করে দল সাজানোর লক্ষ্যে অনুশীলন চালিয়ে যাচ্ছেন। অঝোড় বৃষ্টির মধ্যেও গতকাল অনুশীলন করিয়েছেন তিনি। বাফুফে সূত্রে জানা গেছে ২৭ সেপ্টেম্বর থেকে বাছাইকৃত ফুটবলারদের নিয়ে আবাসিক ক্যাম্প শুরু হবে বিকেএসপিতে।

হেমন্ত ভিনসেন্টের ভাগ্য নির্ধারণে অপেক্ষা করা হচ্ছে বাফুফের সহ-সভাপতি তাবিথ আউয়ালের জন্য। তিনি বর্তমানে ব্যক্তিগত কাজে দেশের বাইরে রয়েছেন। তিনি আসার পর লুকিয়ে কেন খেপ খেলতে গিয়েছিলেন হেমন্ত তা লিখিত আকারে জানাতে হবে হেমন্তকে। এরপর বাফুফে কি সিদ্ধান্ত নেয় সেটার ওপর নির্ভর করছে এই ফুটবলারের ভাগ্য। তবে বাফুফে ক্ষমা করে দিলেও কোচ লোপেজ তা আদৌ গ্রহণ করেন কি না তাও দেখার বিষয়। কারণ এরই মধ্যে পেরিয়ে যাবে প্রায় সপ্তাহ, যে সময়টায় পুরোপুরি ক্যাম্প তথা অনুশীলনের বাইরে থাকতে হচ্ছে হেমন্তকে। মূলত এখানেই জটিলতা। অনুশীলনের বাইরে থাকা খেলোয়াড়কে কোচ গ্রহণ না করার সম্ভাবনাই বেশি। আর যদি বাফুফে বড় ধরনের কোন শাস্তি বা নিষেধাজ্ঞা দিয়ে দেয় তাহলে তো আর কথাই নেই। হেমন্তর ক্যারিয়রের বারোটা বেজে যেতে বাধ্য।