২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

পশুরহাটে ব্যাপক নিরাপত্তার ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে ॥ র‌্যাব মহাপরিচালক

স্টাফ রিপোর্টার ॥ ঈদ-উল-আযহা উপলক্ষে ঢাকাসহ সারাদেশের ব্যাংক ও গুরুত্বপূর্ণ পশুরহাটে বিশেষ নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন র‌্যাবের মহাপরিচালক বেনজীর আহমেদ। তিনি জানান, সাদা পোশাকেও র‌্যাব সদস্যরা নিরাপত্তায় কাজ করছেন। এ ছাড়া র‌্যাবের বম্ব ডিসপোজাল ইউনিট ও ডগ স্কোয়াড আকস্মিক বিভিন্ন বাস, ট্রেন, লঞ্চ স্টেশনসহ বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালাচ্ছে। এদিকে মহাসড়কে গরুবাহী ট্রাকে পুলিশ চাঁদাবাজি করলে তা বরদাশ্ত করবে না বলে হুঁশিয়ারি দিয়েছেন পুলিশের ভারপ্রাপ্ত মহাপরিদর্শক (আইজি) মোখলেসুর রহমান।

রবিবার রাজধানীর কমলাপুরে যাত্রীদের সার্বিক নিরাপত্তা ব্যবস্থা পরিদর্শন শেষে এক সংবাদ সম্মেলনে র‌্যাবের ডিজি বেনজীর আহমেদ জানান, আসন্ন ঈদে ঢাকাসহ সারাদেশে পশু পরিবহন, গার্মেন্টস শিল্প, বিপণি বিতান, বাস ও রেলস্টেশন, লঞ্চ টার্মিনাল, ফেরিঘাট, ব্যাংক ও গুরুত্বপূর্ণ পশুরহাটে বিশেষ নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। হাটে কোরবানির পশু নির্বিঘেœ কেনাবেচার জন্য সাদা পোশাকের গোয়েন্দা নজরদারি বৃদ্ধি করা হয়েছে। মহানগরীর বড় বড় হাটে র‌্যাবের অস্থায়ী ক্যাম্প স্থাপন করা হয়েছে। তিনি জানান, কোরবানির পর চামড়া কেনাবেচা নিয়ে যাতে পাড়া-মহল্লায় কোন ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনা না ঘটে সে জন্য সেখানেও র‌্যাব সদস্যদের টহল ও গোয়েন্দা নজরদারি থাকবে। র‌্যাবের ডিজি জানান, চাঁদাবাজ, ছিনতাইকারী ও টিকেট কালোবাজারিদের গ্রেফতারের জন্য র‌্যাবের সোর্স এবং গোয়েন্দারা সতর্ক রয়েছে। শহরের প্রবেশ-বহির্গমনসহ গুরুত্বপূর্ণ স্থানে চেকপয়েন্ট স্থাপন করে তল্লাশি করা হবে। র‌্যাবের মহাপরিচালক জানান, দেশবাসী যেন নির্ভয়ে গরুর হাটে কোরবানির পশু কেনাবেচা করতে পারেন সে জন্য র‌্যাব সাদা পোশাকে গোয়েন্দা নজরদারি বাড়ানোর পাশাপাশি ইউনিফর্মে নিরাপত্তা প্রদানের মাধ্যমে চাঁদাবাজি, ছিনতাইকারী ও টিকেট কালোবাজারিদের আটকের ব্যবস্থা জোরদার করেছে। এ ছাড়াও কোরবানির পশু অতিদ্রুত গন্তব্যে পাঠানোর সহায়তাসহ কাঁচা চামড়া পাচার রোধে বহির্গমন মহাসড়কগুলোতে চেকপোস্ট স্থাপন করা হবে। নদী পথে নৌ-টহলের ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। এ ছাড়া ঈদের দিন ও পরবর্তী এক সপ্তাহ ঢাকাসহ বিভিন্ন ওয়ার্ডভিত্তিক তথ্য সংগ্রহের মাধ্যমে জোর করে যারা চামড়া কিনবেন তাদের চিহ্নিত করে আইনী ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। গুরুত্বপূর্ণ স্থানে র‌্যাবের মোটরসাইকেল টহল টিম থাকবে। এ ছাড়া যে কোন অনাকাক্সিক্ষত ঘটনা মোকাবেলা করতে র‌্যাবের প্রতিটি ব্যাটালিয়নের বিশেষ স্ট্রাইকিং রিজার্ভ ফোর্স সর্বক্ষণিক প্রস্তুত রয়েছে। তিনি জানান, ১৬ থেকে ৩০ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত জাতীয় ঈদগাহসহ সারাদেশে র‌্যাবের সাদা পোশাক ও ইউনিফর্মধারী নিরাপত্তা দল সক্রিয় থাকবে। জাতীয় ঈদগাহ ময়দান এলাকার নিরাপত্তা জোরদারের জন্য সিসিটিভি ক্যামেরা স্থাপন করা হবে। সকল কার্যক্রম সদর দফতর থেকে মনিটরিং করা হবে।

গরুবাহী ট্রাকে পুলিশ চাঁদাবাজি করলে তা বরদাশ্ত করা হবে না ॥ পুলিশের ভারপ্রাপ্ত আইজি মোখলেসুর রহমান মহাসড়কে গরুবাহী ট্রাকে পুলিশ চাঁদাবাজি করলে তা বরদাশ্ত করবে না বলে হুঁশিয়ারি দিয়েছেন। রবিবার পুলিশ সদর দফতরে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ হুঁশিয়ারি দেন। পবিত্র ঈদ-উল-আযহার প্রস্তুতি ও আইনশৃঙ্খলা ব্যবস্থা নিয়ে সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন কর হয়। ভারপ্রাপ্ত আইজি মোখলেসুর রহমান জানান, দু-একজন পুলিশ সদস্যের জন্য সমগ্র পুলিশ বাহিনীকে কলঙ্কিত করা যাবে না। যদি কোন পুলিশ সদস্যের ওপর চাঁদা নেয়ার নির্দিষ্ট অভিযোগ থাকে তাহলে সাময়িক বরখাস্ত, বিভাগীয় ব্যবস্থার পাশাপাশি নিয়মিত আইনে ব্যবস্থা নেয়া হবে। তিনি জানান, পুলিশের এ ধরনের কর্মকা- নজরদারি করতে ইন্টেলিজেন্স এবং ফিল্ড কমান্ডাররা নিয়োজিত রয়েছেন। তারা এ সব বিষয় পর্যবেক্ষণ করছেন। সংবাদ সম্মেলনের অন্যান্যের মধ্যে পুলিশের সহকারী মহাপরিদর্শক (এমপিআর) নজরুল ইসলাম উপস্থিত ছিলেন।