১১ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

টানা চার জয়ে শীর্ষেই বার্সিলোনা

টানা চার জয়ে শীর্ষেই বার্সিলোনা
  • স্প্যানিশ লা লিগা, পেনাল্টি মিসে হ্যাটট্রিক বঞ্চিত মেসি, তবু আর্জেন্টাইন অধিনায়কের ;###;প্রশংসায় পঞ্চমুখ কোচ লুইস এনরিকে, বার্সিলোনা ৪-১ লেভান্তে

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ আরও একবার পেনাল্টি মিসের হতাশায় পুড়েছেন লিওনেল মেসি। যে কারণে স্প্যানিশ লা লিগায় হ্যাটট্রিক বঞ্চিত হয়েছেন আর্জেন্টাইন অধিনায়ক। এরপরও অবশ্য বার্সিলোনার জয়ের জন্য বেগ পেতে হয়নি। মেসির জোড়া গোল, নেইমার ও মার্ক বাট্টার গোলে রবিবার রাতে স্বাগতিক বার্সা ৪-১ গোলে পরাজিত করে অতিথি লেভান্তেকে।

এটি লীগে কাতালানদের টানা চার জয়। পূর্ণ ১২ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষস্থানও অটুট রেখেছে লুইস এনরিকের দল। সমান ম্যাচে ১০ পয়েন্ট নিয়ে দ্বিতীয় স্থানে রিয়াল মাদ্রিদ। পরশুর অন্য ম্যাচে সেল্টা ডি ভিগো ২-১ গোলে সেভিয়াকে, স্পোর্র্টিং গিজন ৩-২ গোলে ডিপোর্টিভো লা করুনাকে, ভিয়ারিয়াল ৩-১ গোলে এ্যাথলেটিক বিলবাওকে ও রায়ো ভায়োকানো ১-০ গোলে পরাজিত করে লাস পালমাসকে।

ন্যুক্যাম্পে ম্যাচের শুরু থেকেই অতিথি লেভান্তের উপর চড়াও হয়ে খেলতে থাকে স্বাগতিক বার্সা। তবে প্রথমার্ধে হতাশ হতে হয় মেসি, নেইমার, রাকিটিচদের। কোন গোল পায়নি বর্তমান চ্যাম্পিয়নরা। তাই তো অনেকের মনের কোণেই বার্সার প্রথম পয়েন্ট খোয়ানোর শঙ্কা সৃষ্টি হয়েছিল! তবে বিরতির পর স্বরূপে ফেরে কাতালানরা। মাত্র ২০ মিনিটের ব্যবধানে তিন গোল করে জয় নিশ্চিত করে তারা। এই ম্যাচ খেলেননি উরুগুইয়ান তারকা লুইস সুয়ারেজ। শুধু তাই নয়, ম্যাচটি খেলেননি বার্সার অধিনায়ক আন্দ্রেস ইনিয়েস্তাও। এরপরও ঘরের মাঠে ম্যাচের শুরু থেকেই আক্রমণাত্মক খেলতে থাকে আসরের বর্তমান চ্যাম্পিয়নরা। পঞ্চম মিনিটে সহজ একটি সুযোগ নষ্ট করেন নেইমার। পরের মিনিটেই মেসির দুর্দান্ত ক্রসে এগিয়ে যাওয়ার সহজ সুযোগ পায় লুইস এনরিকের দল। গোলমুখে বলে পা ছোঁয়াতে পারলেই হতো, কিন্তু সেটা পারেননি তরুণ মুনির আল হাদ্দাদি। প্রথমার্ধের পুরো সময়ই এ রকম একের পর এক আক্রমণ শাণিয়েও গোল পায়নি বার্সা। মেসি ও নেইমার একাধিক সুযোগ নষ্ট করেন। বিরতির পর শুরু থেকেই লেভান্তের রক্ষণে চাপ বাড়াতে থাকে বার্সিলোনা। এবার ফল পেতে বিলম্ব হয়নি। প্রথমার্ধের হতাশা কাটিয়ে ৫০ মিনিটেই এগিয়ে যায় এনরিকের দল। মেসির ক্রস বুক দিয়ে নামিয়ে আলতো টোকায় বল জালে জড়ান ডিফেন্ডার বাট্টা। ছয় মিনিট পর আবারও লেভান্তের জালে বল। এবারের গোলদাতা নেইমার। ডি বক্সের মধ্যে থেকে ব্রাজিলের অধিনায়কের নেয়া শট গোলরক্ষক রুখে দিলেও বিপদমুক্ত করতে পারেননি। ফিরতি বল পেয়ে ফের শট নেন তিনি। যা প্রতিপক্ষের একজনের গায়ে লেগে জালে প্রবেশ করে। ৬১ মিনিটে ৩-০ গোলে এগিয়ে যায় বার্সা। বামপ্রান্ত দিয়ে দ্রুত গতিতে ঢুকে পড়া নেইমারকে ডিফেন্ডার টুহিলো ফেলে দিলে পেনাল্টি পায় স্বাগতিকরা। স্পট কিক থেকে গোল করেন চারবারের ফিফা সেরা তারকা মেসি।

৬৬ মিনিটে বার্সিলোনার গোলরক্ষক মার্ক-আন্দ্রে টের স্টেগানের ভুলে ব্যবধান কমায় লেভান্তে। স্প্যানিশ মিডফিল্ডার কামারাসার ক্রস ফিস্ট করতে এগিয়ে আসা স্টেগান ব্যর্থ হলে ফাঁকায় বল পেয়ে যান স্প্যানিশ স্ট্রাইকার ভিক্টর ক্যাস্টানো। ৩-১ গোলে এগিয়ে থাকার পরও আক্রমণের ধার কমায়নি বার্সা। ৭৬ মিনিটে আরও এগিয়ে যেতে পারত দলটি। কিন্তু পেনাল্টি থেকে গোল করতে ব্যর্থ হন মেসি। মরক্কোর ডিফেন্ডার জোউ মেসিকে টেনে ধরে ফেলে দিলে পেনাল্টি পায় বার্সা। কিন্তু মেসির বাঁ পায়ের শট বারপোস্ট উঁচিয়ে বাইরে চলে যায়। পেনাল্টিতে শেষ ১২ বারের প্রচেষ্টায় মেসির এটা ষষ্ঠ মিস। আর ক্যারিয়ারে ১৫ বারের মতো গোল করতে ব্যর্থ হলেন তিনি। লা লিগার গত ১০ মৌসুমে মেসির চেয়ে বেশি পেনাল্টি মিস আর কেউ করেনি। তার সমান ৬ বার পেনাল্টি থেকে গোল করতে ব্যর্থ হওয়া আরেক খেলোয়াড় হলেন ভালেন্সিয়ার স্প্যানিশ স্ট্রাইকার আলভারো নেগ্রেডো। ম্যাচের শেষ মিনিটে অবশ্য পেনাল্টি মিসের হতাশা কিছুটা হলেও দূর করেন মেসি। দুই জনকে কাটিয়ে লেভান্তের গোলরক্ষককে ফাঁকি দিয়ে বল জালে পাঠান তিনি। তবে এই গোলে হতাশাও আছে ক্ষুদে এই জাদুকরের। কেননা পেনাল্টি মিস না করলে মৌসুমে প্রথম হ্যাটট্রিক পেয়ে যেতেন তিনি।