২১ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

চট্টগ্রামে শিল্প ও আবাসিক এলাকায় গ্যাসের সঙ্কট

  • জরুরী পদক্ষেপ গ্রহণের অনুরোধ চেম্বারের

স্টাফ রিপোর্টার, চট্টগ্রাম অফিস ॥ তীব্র গ্যাস সঙ্কটে ধুঁকছে চট্টগ্রাম নগরীর শিল্প কারখানা ও আবাসিক এলাকা। গত একমাস গ্যাস লাইনে সরবরাহ ও চাপ অত্যন্ত কম। ফলে বিপুলসংখ্যক ক্ষুদ্র, মাঝারি ও বৃহৎ শিল্প কারখানা উৎপাদন বিপর্যয়ের সম্মুখীন হচ্ছে। এমতাবস্থায় সঙ্কট নিরসনে জরুরী পদক্ষেপ গ্রহণ করতে জ্বালানি উপদেষ্টার প্রতি অনুরোধ জানিয়েছে চিটাগাং চেম্বার অব কমার্স এ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি। মঙ্গলবার এক পত্রের মাধ্যমে এ অনুরোধ জানানো হয়।

চিটাগাং চেম্বার সভাপতি মাহবুবুল আলম তার পত্রে বলেন, রফতানিমুখী আরএমজি, নীট এবং অন্যান্য শিল্প কারখানা গ্যাস সঙ্কটের কারণে পণ্য উৎপাদন ও রফতানি করতে ব্যর্থ হচ্ছে।

এছাড়া নির্ধারিত সময়ে শিপমেন্ট করতে না পারায় কার্যাদেশ হারানো, ব্যাংক ঋণের সুদ, শ্রমিক-কর্মচারীদের বেতন-ভাতার দায়ভারে মারাত্মক আর্থিক ক্ষতির সম্মুখীন হচ্ছেন ব্যবসায়ীগণ। অনুরূপভাবে গৃহস্থালি খাত, হাসপাতাল/ক্লিনিক ও সিএনজি স্টেশনে গ্যাসের সরবরাহ অপ্রতুল বিধায় নগরবাসীসহ বিনিয়োগকারীবৃন্দ মারাত্মক দুর্ভোগ আর ভোগান্তির শিকার হচ্ছেন। রান্নার চূলায় চাপ কমে যাওয়ায় গ্যাস সঙ্কট জনজীবনেও প্রভাব ফেলেছে। চেম্বার সভাপতি আরও জানান, চট্টগ্রামে প্রায় ৫শ’ থেকে সাড়ে ৫শ’ মিলিয়ন ঘনফুট চাহিদার বিপরীতে বর্তমানে সর্বোচ্চ ২২৮ মিলিয়ন ঘনফুট গ্যাস সরবরাহ দেয়া হচ্ছে। এতে গ্যাসের চাপ অত্যন্ত ক্ষীণ হওয়ায় দুর্ভোগ ও ভোগান্তি বেড়েছে। তিনি ঈদ-উল-আযহাকে সামনে রেখে জাতীয় গ্রীড থেকে অন্য অঞ্চলে সরবরাহ কিছুটা কমিয়ে বাণিজ্যিকভাবে গুরুত্বপূর্ণ বন্দরনগরী চট্টগ্রামে গ্যাস সরবরাহ স্বাভাবিক রাখাসহ গ্যাসের চাপ বৃদ্ধি করতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণে প্রয়োজনীয় নির্দেশনা প্রদান করতে জ্বালানি উপদেষ্টার জরুরী হস্তক্ষেপ কামনা করেন।