২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

সোশ্যাল মিডিয়ায় ব্যক্তিগত গোপনীয়তা রক্ষা নিয়ে প্রশ্ন

শেরিন ওয়ে সবুজ পোশাক ও গোলাপি ব্রকস স্যান্ডেল পরা তার ৪ বছরের মেয়ের ছবি ইনস্ট্যাগ্রামে পোস্ট করার সময় দু’বার ভেবে দেখেননি। ব্রকস কোম্পানি ইনস্ট্যাগ্রাম থেকে স্নাপশটটি তুলে এর ওয়েবসাইটে ব্যবহারকারীদের তোলা ছবিগুলোর এক গ্যালারিতে লক্ষ্যণীয়ভাবে উপস্থাপন করে। কোম্পানি অনুমতির জন্য ইতোপূর্বে এমএস ওয়েকে অনুরোধ জানায়নি। একজন রিপোর্টার ইনস্ট্যাগ্রামে মহিলার সঙ্গে যোগাযোগ করার আগ পর্যন্ত মহিলা ব্রকস ছবিটি ব্যবহার করেছিল বলে জানতেন না এমএস ওয়েব ব্রকসকে একটি হ্যাশটাস দিয়ে চিহ্নিত করেছিলেন। নিউইয়র্কের পার্ল রিভারের এম এস ওয়ে (৩৭) টেলিফোনে এক সাক্ষাতকারে বলেন, কেউ আমার সঙ্গে যোগাযোগ করেনি। আমি কিছুটা বিস্ময় বোধ করি। অনেক পরে ব্রকস মহিলার অনুমতি চান। ইনস্ট্যাগ্রাম এবং পিন্টারেস্ট ও টুইটারের শর্ত অন্যান্য সোস্যাল সাইট দীর্ঘদিন ধরেই সেলফি ও ক্যান্ডিড শটের উৎস হয়ে রয়েছে। খুচরা ব্যবসায়ী ও অন্যান্য কোম্পানি সেগুলোকে ভোক্তাদের অভিজ্ঞতার জন্য টেনে বের করে থাকে। এ কথাটি ফেসবুকের লাইক থেকে ব্যান্ডগুলোর জন্য দেয়া হ্যাশট্যাস যে কোন কিছুই বুঝতে পারে।

কিন্তু ব্যবহারকারীদের পোস্ট করা উপকরণ প্রচার করার রীতি জোরদার হওয়ায় ব্র্যান্ডগুলোর সোস্যাল মিডিয়া তৎপরতাকে কাজে লাগানোর চেষ্টা এবং ব্যক্তিগত গোপনীয়তা কিছুটা রক্ষা করা হবে লোকজনের প্রত্যাহার (যখন তারা ইনস্ট্যাগ্রামের মতো পাবলিক প্ল্যাটফর্মে ব্যক্তিগত ছবি পোস্ট করে তখনও) মধ্যকার পার্থক্য আরও বেশি অস্পষ্ট হয়ে পড়েছে।

পিকোরার চীফ এক্সিকিউটিভ ও কো ফাউন্ডার শারদ বর্মা বলেন, এটি এক নতুন ক্ষেত্র এবং আমরা নিশ্চিত করতে চাই যে, আমাদের গ্রাহকরা আইএ ডট দিচ্ছেন এবং টি’ এর মাথা কাটছেন। পিকোরা ইনস্ট্যাগ্রামের মতো সাইটগুলো থেকে পাওয়া ব্যবহারকারীদের পোস্ট করা উপকরণ সংরক্ষণ করতে ব্র্যান্ডগুলোকে সহায়তা করে থাকে। তিনি বলেন, ছবিগুলো কিভাবে ব্যবহার করা হচ্ছে, তা নিয়ে ব্যান্ডগুলোর খুবই সততা ও স্বচ্ছতার পরিচয় দেয়া উচিত। ইন্টারন্যাশনাল নিউইয়র্ক টাইমস