২২ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

দুর্বার বেলিন্ডা বেনচিচ

দুর্বার বেলিন্ডা বেনচিচ

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ প্যান প্যাসিফিক ওপেনের কোয়ার্টার ফাইনালে উঠেছেন ক্যারোলিন ওজনিয়াকি, এ্যাঞ্জেলিক কারবার, বেলিন্ডা বেনচিচ এবং গার্বিন মুগুরুজা। দারুণ জয়েই টুর্নামেন্টের শেষ আটের টিকেট নিশ্চিত করেন তারা। গত মাসে রজার্স কাপের সেমিফাইনালে সেরেনা উইলিয়ামসকে হারিয়ে চমকে দিয়েছিলেন টেনিস বিশ্বকেই। তবে ১৮ বছর বয়সী সুইজারল্যান্ডের এই টেনিস তারকা সেখানেই থেমে থাকেননি। পারফর্মেন্সের ধারাবাহিকতা ঠিকই ধরে রেখেছেন তিনি। বুধবার অস্ট্রেলিয়ার সামান্থা স্টোসারকে হারিয়ে প্যান প্যাসিফিক কোয়ার্টার ফাইনালের টিকেট নিশ্চিত করলেন তিনি। দ্বিতীয় পর্বের কঠিন লড়াইয়ে টুর্নামেন্টের অষ্টম বাছাই বেনচিচ ৬-৭ (৫/৭), ৬-৩ এবং ৬-৪ গেমে হারান ইউএস ওপেনের সাবেক চ্যাম্পিয়ন সামান্থা স্টোসারকে। দারুণ এই জয়ের পর উচ্ছ্বসিত বেনচিচ। তার লক্ষ্য এখন টুর্নামেন্টের শিরোপা জিতেই বছর শেষ করা। শেষ আটে বেলিন্ডা বেনচিচের প্রতিপক্ষ এখন স্পেনের উদীয়মান টেনিস তারকা গার্বিন মুগুরুজা। দ্বিতীয় পর্বে চেক প্রজাতন্ত্রের গার্বিন মুগুরুজাকে হারিয়ে শেষ আটে জায়গা করে নেন তিনি।

চলতি মৌসুমটা দারুণ কাটে সেরেনা উইলিয়ামসের। বছরের শেষ মেজর টুর্নামেন্ট ইউএস ওপেনের আগে প্রস্তুতিমূলক টুর্নামেন্ট রজার্স কাপেও তাই ফেবারিট হিসেবে কোর্টে নামেন তিনি। সেমিফাইনালেই তার মুখোমুখি হন অখ্যাত বেলিন্ডা বেনচিচ। কিন্তু শেষ চারের লড়াইয়ে সেরেনা উইলিয়ামসকে হারিয়ে বিস্ময় সৃষ্টি করেন সুইজারল্যান্ডের এই তরুণ তারকা। ২০০৪ সালে ১৭ বছর বয়সী খেলোয়াড় হিসেবে সেরেনাকে হারিয়ে নিজের আগমনী বার্তা দিয়েছিলেন মারিয়া শারাপোভা। আর রুশ সুন্দরী শারাপোভার পর বেলিন্ডা বেনচিচই সবচেয়ে কম বয়সী খেলোয়াড় হিসেবে আমেরিকান টেনিসের জীবন্ত কিংবদন্তি সেরেনাকে হারের স্বাদ উপহার দেন। শুধু তাই নয় রজার্স কাপের ফাইনালে রোমানিয়ার সিমোনা হ্যালেপকেও হারিয়ে দেন বেনচিচ। রজার্স কাপে মাত্র এক সপ্তাহের বিনিময়ে টেনিসের সেরা সেরা কয়েকজন তারকাদের হারিয়ে টেনিসের নতুন বিস্ময় হিসেবে জায়গা করে নেন এই সুইস তারকা।

এবার প্যান প্যাসিফিক ওপেনেও তার তারুণ্যের প্রমাণ রাখলেন। অস্ট্রেলিয়ার সামান্থা স্টোসারকে হারিয়ে। তবে জয়টা যে সহজে আসেনি সেটা ম্যাচ পরবর্তী সংবাদ সম্মেলনেই জানিয়ে দিয়েছেন বেনচিচ। এ বিষয়ে তিনি বলেন, ‘অবশ্যই এটা কঠিন একটি ম্যাচের জয়। সাম (সামান্থা) আজ দুর্দান্তভাবে সার্ভ করছিলেন। তাই আমি যখন ফিরতি শর্ট খেলি তখন খুব সমস্যায় পরে যাই। তাছাড়া তৃতীয় সেটটাও দারুণ কষ্টসাধ্য ছিল। প্রথমে আমি ৪-০ গোলে এগিয়ে গিয়েছিলাম। তারপর ৪-৩ হয়। তাই বুঝতেই পারছেন যে এটা খুব কঠিন লড়াইয়েরই ফলাফল। তবে ম্যাচের শেষ পর্যন্তই আমি শান্ত থেকে নিজের স্বাভাবিক খেলাটা খেলেছি। আর এই জয়ে আমি খুবই আনন্দিত।’ সেমিতে উঠার লড়াইয়ে বেনচিচের প্রতিপক্ষ এখন আরেক উদীয়মান তারকা গার্বিন মুগুরুজা। টুর্নামেন্টের তৃতীয় বাছাই মুগুরুজা দ্বিতীয় পর্বে ৬-৩ এবং ৬-৪ গেমে হারিয়েছেন চেক প্রজাতন্ত্রের বারবোরা ট্রিকোভাকে। প্রতিপক্ষের বিপক্ষে জয়ের জন্য মুগুরজাকে লড়াই করতে হয়েছে এক ঘণ্টা ৪৫ মিনিট। তবে টুর্নামেন্টের প্রথম ম্যাচ তাই প্রতিপক্ষ এবং পরিস্থিতির সঙ্গে মানিয়ে নিতে কিছুটা হলেও কঠিন। ম্যাচ শেষে তাই জানালেন স্প্যানিশ তারকা। এ বিষয়ে তার অভিমত, ‘কোন টুর্নামেন্টে যখন আপনি প্রথম ম্যাচ খেলবেন তা সবসময়ই কঠিন। তাই এই ম্যাচটি যেভাবে নিয়ন্ত্রণ করেছি এবং পুরো ম্যাচে যেভাবে খেলেছি তাতে আমি খুবই আনন্দিত।’ অন্যদিকে টেনিস র‌্যাঙ্কিংয়ের নাম্বার ওয়ান তারকা ক্যারোলিন ওজনিয়াকি ৬-২ এবং ৬-২ গেমে সহজেই হারিয়েছেন ক্রোয়েশিয়ার এ্যানা কোনজুকে। জার্মানির পঞ্চম বাছাই এ্যাঞ্জেলিক কারবার ৫-৭, ৬-১ এবং ৬-০ গেমে হারিয়েছেন আমেরিকার মেডিসন ব্রেঞ্জেলকে।