২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

নানা জটিলতায় জাতীয় শাটলাররা

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ বিদেশী কোচের অধীনে টানা ৯ মাস অনুশীলন, ভাল মানের কোর্ট, নিয়মিত দেশী ও আন্তর্জাতিক টুর্নামেন্টে খেলোয়াড়দের অংশগ্রহণ- এসবের সমন্বয়েই ২০১০ এসএ গেমসে ব্যাডমিন্টনে স্বাগতিক বাংলাদেশ জিতেছিল তাম্রপদক। এবারে দরজায় কড়া নাড়ছে দক্ষিণ এশিয়ার অলিম্পিকের পরবর্তী আসর। কিন্তু কোর্টের বেহাল দশা, আলো স্বল্পতা ও ইনজুরির কারণে ঠিকমতো অনুশীলন করতে না পারায় নানা অভিযোগ দেশের শাটলারদের। তবে কঠিন হবে জেনেও আগের ফল ধরে রাখতে চান তারা।

আগামী জানুয়ারিতে দক্ষিণ এশিয়ান গেমসের পরবর্তী আসর বসছে ভারতে। অথচ অসুস্থতা ও ইনজুরির কারণে এখনও অনেক শাটলারই নিয়মিত অনুশীলন ক্যাম্পে যোগ দিতে পারছেন না। আলো স্বল্পতা আর মাত্র ২টি কোর্ট থাকায় ঠিকমতো অনুশীলন করতে পারছেন না ফিট খেলোয়াড়রাও। তার ওপর কোর্টের বেহাল দশার কারণে ইনজুরির ঝুঁকি নিয়েই প্রস্তুতি চালিয়ে যেতে হচ্ছে রইস-সাইফদের। তাই একরাশ আক্ষেপ দেশের এই শাটলারদের কণ্ঠে। তবে মালয়েশিয়ান কোচের অধীনে ৩ মাসের স্বল্প সময়কে কাজে লাগাতে চায় তারা। জাতীয় ক্রীড়া পরিষদ ও অলিম্পিক এ্যাসোসিয়েশন বারবার আশার বাণী শোনালেও সমস্যা সমাধানে কার্যত কোন পদক্ষেপ নেয়নিÑ এমনটাই দাবি ব্যাডমন্টিন ফেডারেশনের। তবুও আগের আসরের ফল ধরে রাখার প্রত্যাশা দেশের ব্যাডমিন্টন সংশ্লিষ্টদের। এ বছর ডিসেম্বরে ঢাকায় অনুষ্ঠিত হবে বাংলাদেশ ওপেন ব্যাডমিন্টন টুর্নামেন্ট। এতে মালয়েশিয়া, ইন্দোনেশিয়া ও ভারতের মতো এশিয়ার বড় বড় দলগুলো অংশ নেবে। তাই এসএ গেমসের আগে এ টুর্নামেন্টে নিজেদের যাচাই করে নেয়ার বড় সুযোগ হিসেবে দেখছেন শাটলাররা।