২২ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

মুমিনুলরা এগিয়ে ৫৯ রানে

  • ভারত ‘এ’ দলের বিরুদ্ধে তিন দিনের ম্যাচ

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ প্রথমদিনে ৫ রানে পিছিয়ে ছিল বাংলাদেশ ‘এ’ দল। দ্বিতীয় দিনে মহিশুরে কর্ণাটকের বিপক্ষে ৫৯ রানে এগিয়ে গেছে মুমিনুলরা। তিনদিনের ম্যাচের প্রথম দিনে প্রথম ইনিংসে ১৫৮ রানে অলআউট হয়ে যায় বাংলাদেশ ‘এ’ দল। প্রথম ইনিংসে কর্ণাটক শিশির ভাবানের ৮৮ রানে ১০ উইকেট হারিয়ে ২৮৭ রান করে। বাংলাদেশ ‘এ’ দল থেকে ১২৯ রানে এগিয়ে যায়। দ্বিতীয় দিন শেষ হওয়ার আগে এনামুল হক বিজয়ের ৮৯ রানে ৩ উইকেটে ১৮৮ রান করে বাংলাদেশ ‘এ’ দল। এগিয়েও যায়। আজ ম্যাচের তৃতীয় ও শেষদিনে ৩৭ রান করা লিটন কুমার দাস ও ২৪ রান করা সৌম্য সরকার ব্যাট হাতে নামবেন। ম্যাচটি ড্র’র পথেই এগিয়ে যাচ্ছে।

আশা ছিল, ভারত সফরে গিয়ে সব ম্যাচ জেতার। সেই আশা প্রকাশও করেছিলেন অধিনায়ক মুমিনুল হক। অথচ শুরুতেই ধাক্কা খেয়েছে মুমিনুল হকের বাংলাদেশ ‘এ’ দল। ভারত ‘এ’ দলের বিপক্ষে তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজ হেরেছে বাংলাদেশ ‘এ’ দল। সেই ধাক্কা কর্ণাটকের বিপক্ষে প্রথম ইনিংসেও সামাল দিতে পারেননি মুমিনুল, নাসিররা। অবশেষে দ্বিতীয় ইনিংসে গিয়ে ঘুরে দাঁড়িয়েছেন।

ভারত ‘এ’ দলের বিপক্ষে ২৭ সেপ্টেম্বর থেকে তিনদিনের ম্যাচ খেলতে নামার আগে প্রথমদিনেই বেহাল দশায় পড়ে গিয়েছিল বাংলাদেশ ‘এ’ দল। ১৫৮ রানেই প্রথম ইনিংস গুটিয়ে যায়। রঞ্জি ট্রফির চ্যাম্পিয়ন দল কর্ণাটক ৪৯ ওভারে ৬ উইকেটে ১৬৩ রান করে প্রথমদিনে ৫ রানে এগিয়ে ছিল। ব্যাটিং নিয়ে সমস্যা তিনদিনের ম্যাচের প্রথম ইনিংসে রয়ে গিয়েছিল। প্রথম ইনিংসে ১৫৮ রানেই অলআউট হয়ে গেছে মুমিনুলরা। শুভগত হোম (৫৫) ও লিটন কুমার দাস (৫০) অর্ধশতক করতে পেরেছেন। অন্যদের মধ্যে শুধু সাকলায়েন সজিব (১৫*) দুই অংকের ঘরে পৌঁছাতে পেরেছেন! ওপেনার এনামুল হক বিজয় (৫), রনি তালুকদার (০), মুমিনুল হক (১), সৌম্য সরকার (০), নাসির হোসেন (৮), কামরুল ইসলাম রাব্বি (৮), জুবায়ের হোসেন (৪), আল আমিন (৫) ব্যর্থ হয়েছেন। কী বেহাল দশা। এক পেসার প্রাসীদ কৃষ্ণাই (৫/৪৯) ডুবিয়ে দিয়েছেন। বাংলাদেশ ‘এ’ দল প্রথম ইনিংসে ৩৮.৪ ওভার খেলতে পেরেছিল।

কর্ণাটকও বিপদের মধ্যে পড়েছিল। বাংলাদেশ ‘এ’ দলকে ধসিয়ে দেন এক পেসার। আর কর্ণাটক দলকে বিপদের মধ্যে রাখেন বাংলাদেশ ‘এ’ দলের দুই স্পিনার-শুভগত হোম (৩/২৯) ও সাকলায়েন সজিব (৩/৪৮)। তবে প্রথমদিনে স্বাগতিক দলকে অলআউট করা যায়নি। প্রথমদিন শেষে স্বাগতিকরাই এগিয়ে রয়েছে। তবে এরইমধ্যে ৬ উইকেট শিকার করে নেয়া গেছে। বাংলাদেশ ‘এ’ দলের ৭৬ রানে ৬ উইকেটের পতন ঘটেছে। সেখানে ১০০ রানে গিয়ে কর্ণাটকের ৬ উইকেট পড়েছে। শিশির ভাবানে ৫৫ রান করে ব্যাট করছিলেন। দ্বিতীয় দিনে গিয়ে ২৮৭ রানের বেশি করতে পারেনি স্বাগতিক দল।