২২ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

আজ চার জেলার ১৩৪ গ্রামে ঈদ

জনকণ্ঠ ডেস্ক ॥ সৌদি আরবের সঙ্গে মিল রেখে দেশের চার জেলার ১৩৪ গ্রামে আজ বৃহস্পতিবার পবিত্র ঈদ-উল-আযহা পালিত হচ্ছে। এর মধ্যে মাদারীপুরে ৫০, চাঁদপুরে ৪০, শরীয়তপুরে ৩৫ এবং মুন্সীগঞ্জে ৯টি গ্রামে যথাযথ ধর্মীয় উদ্দীপনায় পবিত্র ঈদ-উল-আযহা উদযাপিত হবে। এদিন ধর্মপ্রাণ মুসল্লিরা ঈদের নামাজ পড়বে এবং যথারীতি পশু কোরবানি করবে। খবর নিজস্ব সংবাদদাতা ও স্টাফ রিপোর্টারের।

মাদারীপুর ॥ সৌদি আরবসহ মধ্য প্রাচ্যের সঙ্গে মিল রেখে মাদারীপুরের চার উপজেলার ৫০ গ্রামের হযরত সুরেশ্বরী (রাঃ) অনুসারীরা আজ ঈদ-উল আযহা উদযাপন করছেন। ঈদের নামাজ শেষে পশু কোরবানির মধ্য দিয়ে ঈদ-উল-আযহার মূল আনুষ্ঠানিকতা শুরু হবে। সদর উপজেলার পাঁচখোলা, জাজিরা, মহিষেরচর, জাফরাবাদ, চরকালিকাপুর, তাল্লুক, বাহেরচরকাতলা, চরগোবিন্দপুর, আউলিয়াপুর, ছিলারচর, কুনিয়া, মস্তফাপুর, কালকিনির সাহেবরামপুর, আন্ডারচর, আলীনগর, বাঁশগাড়ী, খাসেরহাট, আউলিয়াপুর, রামারপোল, ছবিপুর, ছিলিমপুর, ক্রোকিরচর, সিডিখান, কয়ারিয়া, রমজানপুর, বাটামারা, রাজারচর, শিবচরের কেরানীবাট, পাচ্চর, স্বর্ণকারপট্টি এবং রাজৈরের আমগ্রাম, বাজিতপুর।

সুরেশ্বর দায়রা শরীফের প্রতিষ্ঠাতা হযরত জান শরীফ শাহ্ সুরেশ্বরী (রাঃ) এর অনুসারীরা ১৪৪ বছর ধরে এই রীতি অনুসরণ করে আসছেন।

চাঁদপুর ॥ আজ চাঁদপুরের ৪০ গ্রামে পবিত্র ঈদ-উল আযহা উদযাপিত হবে। প্রায় এক শতাব্দী ধরে ওইসব গ্রামে মুসলমানরা সৌদি আরবের সঙ্গে মিল রেখে ধর্মীয় অনুষ্ঠানগুলো পালন করে আসছেন। ওই মুসল্লিরা ইসলামের চার মাযহাবের মধ্যে হানাফি মাযহাবের অনুসারী বলে জানা গেছে।

হাজীগঞ্জ উপজেলার বড়কুল পশ্চিম ইউনিয়নের সাদ্রা হামিদিয়া সিনিয়র মাদ্রাসার অধ্যক্ষ মাওলানা আবু বকর জানান, একই মাদ্রাসার অধ্যক্ষ মরহুম মাওলানা আবু ইছহাক ইংরেজী ১৯২৮ সাল থেকে সৌদি আরবের সঙ্গে মিল রেখে ইসলামের সব ধর্মীয় রীতিনীতি প্রচলন শুরু করেন।

জেলার হাজীগঞ্জ, ফরিদগঞ্জ, মতলব দক্ষিণ ও কচুয়া উপজেলার ৪০টি গ্রামে প্রায় ৮৬ বছর ধরে এভাবে রোজা, ঈদ-উল ফিতর ও ঈদ-উল আযহা উদযাপিত হয়ে আসছে। যেসব গ্রামে ঈদ উদযাপন হবে: হাজীগঞ্জ উপজেলার সাদ্রা, সমেশপুর, অলিপুর, বলাখাল, মনিহার, বেলঁেচা, জাঁকনি, প্রতাপপুর, গোবিন্দপুর, দক্ষিণ বলাখাল। ফরিদগঞ্জ উপজেলার-সেনাগাঁও, বাশারা উভারামপুর, উটতলী, মুন্সিরহাট, মূলপাড়া, বদরপুর, পাইকপাড়া, সুরঙ্গচাইল, বালিথুবা, কাইতাড়া, নুরপুর, শাচনমেঘ, ষোল্লা, হাঁসা ও চরদুখিয়া। মতলব দক্ষিণ উপজেলার দশআনী, মোহনপুর, পাঁচআনী ও কচুয়া উপজেলার উজানি গ্রাম।

শরীয়তপুর ॥ জেলার নড়িয়া উপজেলার সুরেশ্বরী পীরের ভক্তরা আজ পবিত্র ঈদ-উল-আযহা উদযাপন করছেন। জেলার ৩৫টি গ্রামের প্রায় ৩২ হাজার লোক যথাযোগ্য মর্যাদায় ঈদের উৎসবে অংশ গ্রহণ করবেন। সকাল ১০টায় সুরেশ্বরী পীরের মাজার সংলগ্ন মাঠে ঈদের প্রথম জামাত অনুষ্ঠিত হবে। এতে ইমামতি করবেন মাওলানা শাহ সূফী সৈয়দ বেলাল নূরী ও মোনাজাত পরিচালনা করবেন গদিনশীন পীর ও মোতোওয়াল্লী হযরত মাওলানা শাহ সূফী সৈয়দ কামাল নূরী সুরেশ্বরী। চান্দ্র মাসের হিসেবে সৌদি আরবের সঙ্গে মিল রেখে প্রায় দেড়শ’ বছর ধরে এসব গ্রামে একদিন আগেই ঈদ উৎসব উদযাপিত হয়ে আসছে।

মুন্সীগঞ্জ ॥ মুন্সীগঞ্জের নয়টি গ্রামে সৌদি আরবের সঙ্গে মিল রেখে আজ ঈদ-উল-আযহা উদযাপিত হচ্ছে। গ্রামগুলো হচ্ছে- সদর উপজেলার আনন্দপুর, শিলই, নায়েবকান্দি, আধারা, মিজিকান্দি, কালিরচর, বাংলাবাজার, বাঘাইকান্দির ও কংসপুরা একাংশ।

শিলই ঈদগাঁয়ে প্রধান ঈদ জামাত অনুষ্ঠিত হবে। একইভাবে অন্য গ্রামের অনুসারীরাও অনুরূপ ঈদ জামাত আদায় করে।