১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

ঈদের ছুটিতে সতর্ক থাকার পরামর্শ পুলিশ প্রশাসনের

শংকর কুমার দে ॥ সাবধান! ঈদের ছুটির আনন্দে মেতে থাকার সঙ্গে সতর্ক ও সাবধান করে দিয়েছেন পুলিশ প্রশাসন। সতর্ক ও সাবধান না হলে রাজধানী ঢাকাসহ আশপাশের এলকায় ফাঁকা থাকায় সুযোগ নিতে পারে ঈদ মৌসুমের অপরাধী চক্র। এ সময়টায় চুরি-গণচুরি, ছিনতাই-গণছিনতাই, প্রতারক, প্রতারণা, অজ্ঞানপার্টি, মলমপার্টির খপ্পরে পড়ার আশঙ্কা থাকে বেশি। যারা ঈদের ছুটিতে গ্রামের বাড়িতে যাবেন তাদের বাড়িতে বা ফ্ল্যাটে চুরি কিংবা গণচুরি হতে পারে। ঈদের ছুটিতে গ্রামের বাড়িতে আসা ও যাওয়ার পথে নির্জনস্থানে ছিনতাই বা গণছিনতাইয়ের খপ্পরে পড়তে পারেন। অপরিচিত ব্যক্তি প্রলোভনের টোপ দিয়ে নেশা বা বিষাক্ত জাতীয় কিছু খাইয়ে অজ্ঞান করে কেড়ে নিতে পারে সর্বস্ব। যারা ঈদের ছুটির ফাঁকা রাজধানীতে থাকবেন তারা ঈদের আনন্দে ঘুরা-ফেরা করার সময়ে নির্জন স্থানে গণছিনতাইয়ের শিকারে পড়তে পারেন। এ জন্য আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর পক্ষ থেকে প্রয়োজনীয় দিকনির্দেশনা দিয়ে সতর্ক ও সাবধান করে দিয়েছেন। পুলিশ সদর দফতর ও ডিএমপি সূত্রে এ খবর জানা গেছে।

পুলিশ সদর দফতরের একজন কর্মকর্তা বলেন, প্রতিবছরই ঈদের ছুটিতে রাজধানীতে নির্জন স্থানে গণছিনতাই হওয়ার রেকর্ড আছে পুলিশ ও গোয়েন্দা সংস্থার খাতায়। প্রতি ঈদের ছুটিতেই রাজধানী ফাঁকা করে নাড়ির টানে গ্রামের বাড়িতে চলে যায় অনেকেই। রাজধানী ফাঁকা হয়ে যাওয়ার সুযোগে আবাসিক এলাকায় ও ফ্ল্যাটে গণচুরি হয়। গণচুরি ও গণডাকাতি হয় মার্কেটে বা বিপণি বিতানে। সংঘবদ্ধ অপরাধী চক্র ঈদের ছুটির ফাঁদে ফেলে এই ধরনের অপরাধ সংঘটিত করার সুযোগ নেয়। বাড়ির ও ফ্ল্যাটের তালা ভেঙে বা জানালার গ্রীল কেটে ঘরে ঢুকে সর্বস্ব নিয়ে চলে যায় অপরাধী চক্র। মার্কেটে বা বিপণি বিতানের দারোয়ান বা সিকিউরিটি গার্ডদের হাত করে বা প্রলোভন দিয়ে কিছু খাইয়ে অজ্ঞান করে হাত-পা বেঁধে মার্কেটের দোকানে গণচুরি বা গণডাকাতি করে আসছে দুর্বৃত্ত চক্র।

ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) একজন কর্মকর্তা জানান, প্রতি ঈদের ছুটিতে রাজধানীতে গণছিনতাই, গণচুরি বা গণডাকাতির মতো অপরাধ সংঘটিত হওয়ার বিষয়টি অনেকেই অবগত থাকলেও সতর্ক বা সাবধান হওয়ার ব্যাপারে দায়িত্বশীলতার পরিচয় দিতে অবহেলা করেন অনেকেই। এই সুযোগে দুর্বৃত্ত চক্র সর্বস্ব লুটে নিয়ে যায়। ঈদের ছুটি শেষে গ্রামের বাড়ি থেকে ফিরে এসে সর্বস্ব লুটে নেয়ার ঘটনা দেখে মাথায় হাত পড়ে। ঘটনা ঘটে যাওয়ার পর ঘটনার বিবরণ আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে জানানো হলেও বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই লুণ্ঠিত মালামাল উদ্ধার হয় না। থানা পুলিশের তখন আর খুব একটা বেশি কিছু করা হয় না বলে অতীতে অভিযোগ করেছেন ভুক্তভোগীরা। এজন্য ঢাকা মহানগর পুলিশের পক্ষ থেকে রাজধানীবাসী যারা ঈদের ছুটিতে গ্রামের বাড়িতে চলে যাবেন তাদের আগাম সতর্ক ও সাবধান করে দিয়েছেন।

পুলিশ সদর দফতর ও ডিএমপি প্রশাসনের পক্ষ দেয়া পরামর্শ হয়েছে, যারা ঈদের ছুটিতে ঢাকার বাইরে যাবেন কিংবা ঈদের ছুটি শেষে রাজধানীতে ফিরে আসবেন, তারা সময় নিয়ে ভ্রমণ পরিকল্পনা করতে পারেন, যাতে শেষ মুহূর্তের ট্রেন, বাস, লঞ্চ ও ফেরিঘাটের মারাত্মক ভিড় এড়িয়ে নির্বিঘেœ প্রিয়জনের সঙ্গে ঈদের আনন্দ উপভোগ করা যায়। রেল, বাস ও লঞ্চ টার্মিনালে, যাত্রাপথে এবং চলার পথে পাশের যাত্রী, অপরিচিত কোন ব্যক্তি, হকার কিংবা ফেরিওয়ালার নিকট থেকে খাদ্য সামগ্রী, চা-সিগারেট, পান-বিড়ি, কলা-রুটি, চকলেট, শরবত, জুস, কোমল পানীয় বা অন্য কোন খাবার গ্রহণ মারত্মক ঝুঁকিপূর্ণ অভিহিত করে তা গ্রহণ থেকে সতর্ক ও সাবধান থাকার জন্য পুলিশ কর্তৃপক্ষ পরামর্শ দিয়েছেন।