২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

রিন নিবেদিত একগুচ্ছ ঈদের নাটক

সংস্কৃতি ডেস্ক ॥ এবারের ঈদের অনুষ্ঠানমালায় মাছরাঙা চ্যানেলে প্রচার হবে রিন নিবেদিত একগুচ্ছ নাটক। নাটকগুলা ‘ডলার ও ডায়মন্ড’, ‘জইতরি’, ‘ড্রেস কোড লুঙ্গি’, ‘ব্র্রাদার্স’, ‘আর্ট জসিম’ এবং ‘ডেথ অফ এ ম্যান’। নাটকগুলো ঈদের প্রথম দিন থেকে ষষ্ঠদিন পর্যন্ত প্রচার হবে বলে জানা গেছে।

ঈদের প্রথম দিন ‘ডলার ও ডায়মন্ড’ : অনিমেষ আইচের রচনা ও পরিচালনায় রিন নিবেদিত নাটক ‘ডলার ও ডায়মন্ড’ প্রচার হবে ঈদের দিন রাত ৯টায় মাছরাঙা টিভিতে। নাটকে অভিনয় করেছেন, মীর রাব্বি ও ভাবনা। নাটকে দেখা যাবে, সোহেল একটা লন্ড্র্রিতে কাজ করে। সে বিভিন্ন বাড়ি থেকে শাড়ি কাপড় সংগ্রহ করে লন্ড্রির নির্দিষ্ট ঠিকানায় পৌছে দেয়। এরকম একদিন এমদাদ সাহেবের বাড়ি থেকে একটি কাপড় সংগ্রহ করে। রাত বেশি হয়ে যাওয়ায় সেদিন আর কাপড়গুলো দেয়া হয় না। বাড়ি নিয়ে যায় কাপড়গুলো। এমদাদ সাহেবের কাপড়ের ভেতর আবিস্কার করে বেশ কিছু ডায়মন্ড। সে সিদ্ধান্ত নেয় এই ডায়মন্ড ফেরত দেবেনা। কিন্তু তার পেছনে লাগে আইন প্রয়োগকারী সংস্থার লোক। শুরু হয় ইঁদুর বিড়াল খেলা।

ঈদের দ্বিতীয় দিন ‘জইতরি’ : হুমায়ূন আহমেদের গল্প অবলম্বনে মেহের আফরোজ শাওন পরিচালনা করেছেন রিন নিবেদিত নাটক ‘জইতরি’। অভিনয় করেছেন রিয়াজ, প্রাণ রায় এবং স্পর্শিয়া। রিয়াজের সঙ্গে জইতরি নামে এক মেয়ের দেখা হয়। একপর্যায়ে রিয়াজ জইতরির বাবার কাছে বিয়ের প্রস্তাব দেয়। কিন্তু জইতরির বাবা জানায় তার মেয়েকে না দেখেই কেন সে বিয়ে করতে চাইছে। রিয়াজ দাবি করে সে তার মেয়েকে চেনে। তাকে আর নতুন করে দেখার দরকার নেই। কিন্তু বিয়ের রাতে রিয়াজ আবিস্কার করে জইতরি নামে যে মেয়ের সঙ্গে তার দেখা হয়েছে সে মেয়ের সঙ্গে রিয়াজের বিয়ে হয় নি। তাহলে জইতরি নামে কার সঙ্গে তার দেখা হয়েছিল? ঘটতে থাকে নানা ঘটনা

ঈদের তৃতীয় দিন ‘ড্রেস কোড লুঙ্গি’ : মারুফ মিঠুর পরিচালনায়, ড্রেস কোড লুঙ্গির প্রাধান দুটি চরিত্রে অভিনয় করছেন মীর সাব্বির ও টয়া। নাটকটি রচনা করেছেন মারুফ রেহমান। ‘ড্রেস কোড লুঙ্গি’ নাটকটি প্রচার হবে ঈদের তৃতীয় দিন রাত ৯টায় মাছরাঙা টিভিতে। ইংল্যান্ড থেকে বন্ধুর বাসায় বেড়াতে এসে সোলেমান এক অদ্ভুত বিপদে পরে। বিপদের শুরুটা হয় পরনের কাপড় নিয়ে। পথে তার কাপড়ের ব্যাগ বদলে গেছে। এখন যে ব্যাগটা আছে এই ব্যাগের কোন জামাই তার গায়ে লাগে না। ব্যাগ ঘেটে সোলেমান একটা লুঙ্গি পায়। লুঙ্গির যেহেতু কোন সাইজ লাগে না, তাই সে গায়ের সুট খুলে লুঙ্গিটাই পরে ফেলে। সোলেমানকে বাসায় রেখে বেড়িয়ে যায় তার বন্ধু। ওদিকে বাসার সবাই ঘুম থেকে উঠে লুঙ্গি পরা সোলেমানকে দেখে ভাবে এ বুঝি তাদের নতুন কাজের লোক, যার কিনা আজই জয়েন করার কথা। শুধু মাত্র ড্রেস বদলে যাওয়ার কারনে মানুষটাও বদলে যাবার এই ঘটনায় সোলেমান বেশ মজা পেয়ে যায়। বিশেষ করে বন্ধুর ছোট বোন তমার চাঞ্চল্য সোলেমানকে চাকরের অভিনয় চালিয়ে যেতে উৎসাহিত করে। সকালের নাস্তা হিসেবে ইতালিয়ান পাস্তা, রাতে স্টেক বানানোর সঙ্গে সঙ্গে চলতে মজার সব ঘটনা। এমনকি তমাদের বাসা দখল করতে আসা আত্মিয়কেও অদ্ভুত উপায়ে প্রতিহত করে লুঙ্গি ম্যান সোলেমান। অবশেষে তমা জানতে তাদের এই লুঙ্গি ম্যান আসলে ইউরোপের এক ইউনিভার্সিটির টিচার।

ঈদের চতুর্থ দিন ‘ব্র্রাদার্স’ : রিন নিবেদিত স্বল্প বিরতির নাটক ‘ব্রাদার্স’। নাটকটি রচনা, চিত্রনাট্য ও পরিচালনা করেছেন মাবরুর রশিদ বান্নাহ্ । অভিনয় করেছেন, নাদিয়া, জোভান, শাওন। রনি ও জনি দুই ভাই। এক সঙ্গে বেড়ে ওঠা, একই সঙ্গে লেখা পড়া। ক্যাম্পাসে একই মেয়ের প্রেমে পরা। অবশেষে এক ভাই পা বাড়ায় অন্ধকার জগতে। যার কারনে অন্য ভাইকে দিতে হয় চরম মুল্য। রিন নিবেদিত ব্রাদার্স নাটকটি ঈদের চতুর্থ দিন মাছরাঙা টিভিতে প্রচার হবে।

ঈদের পঞ্চম দিন ‘আর্ট জসিম’ : রিন নিবেদিত ‘আর্ট জসিম’ নাটকটি রচনা, চিত্রনাট্য ও পরিচালনা করছেন ইমরাউল রাফাত । নাটকের মূল চরিত্রে অভিনয় করেছেন সাজু খাদেম ও ইভানা। জসিম ক্লাস ৫ পাস, একজন রিকশা পেইন্টার হিসেবে গ্যারেজে কাজ করে । পেইন্টার হিসেবে জসিমের ভাল নাম ডাক আছে। বিবাহিত জসিমের স্ত্রী জসিমের তুলনায় সুন্দরী। সুযোগ পেলেই জসিম রং তুলিতে ক্যানভাস করতে বসে যায়। ক্যানভাস ও রংয়ের পিছনে জসিম তার উপার্যিত টাকার বেশির ভাগই খরচ করে ফেলে। স্ত্রী এ নিয়ে প্রতিদিনই প্রায় জসিমের সঙ্গে ঝগড়া করে। বাসা ভাড়া, খাবার থেকে শুরু করে ঘরের যাবতীয় কোন বিষয়ে জসিমের তেমন কোন নজর না থাকায় জসীমের স্ত্রী দোকান থেকে বাকিতে বাজার থেকে শুরু করে বাসা ভাড়া পর্যন্ত কোন মতে ম্যানেজ করে চলে। কোন একটা এন জি ও থেকে সার্ভে করতে এসে এন জি ও কর্মিরা জসিমের ক্যানভাস দেখে মুগ্ধ হয়। জসিমের স্ত্রীর কাছ থেকে জানতে পারে এই ক্যানভাসগুলো জসিমের করা।

এন জি ও কর্মীরা আর্ট ডিলার নিয়ে আসে এবং জসিমকে আট লাখ টাকা অফার করে ক্যানভাসগুলো কিনে নেয়ার জন্য । জসিমের স্ত্রী টাকার পরিমাণ শুনে খুশিতে আত্মহারা। কিন্ত জসিম ক্যানভাস গুলো দিতে রাজি হয় না।

নির্বাচিত সংবাদ