২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

পে স্কেল ইস্যুতে নতুন আন্দোলনে শিক্ষকরা

স্টাফ রিপোর্টার ॥ ঈদের ছুটি শেষে এবার পে স্কেল ইস্যুতে নতুন করে আন্দোলনে নামছেন পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়, সরকারি কলেজ, মাধ্যমিক ও প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকরা। আন্দোলন ও আলোচনা দুটোই এক সঙ্গে চালানোর কৌশল নিয়েছেন পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকরা।

আগামী ৭ অক্টোবর থেকে কর্মবিরতি, শিক্ষা অফিদফতরে অবস্থানসহ বৃহত্তর কর্মসূচি নিয়ে মাঠে নামছেন সরকারি কলেজের শিক্ষকরা। বিসিএস শিক্ষা ক্যাডারের সদস্যদের সংগঠন বিসিএস সাধারন শিক্ষা সমিতির ডাকে শিক্ষকরা পে স্কেলে মর্যাদা রক্ষায় লাগাতার কর্মসূচির প্রস্তুতিও নিচ্ছেন।

এদিকে আগামী বুধবারের মধ্যে দাবি না মানলে ৬ অক্টোবর থেকে লাগাতার কর্মবিরতির ডাক দিয়েছেন সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকরা। একই সঙ্গে তারা হুমকি দিয়েছেন, বেতন বৈষম্য না কমালে আসন্য প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষার কোন দায়িত্বই পালন করবেন না।

জানা গেছে, অন্যান্য স্তরের শিক্ষক আন্দোলন নিয়ে ভেবেচিন্তে আলোচনার মাধ্যমে এগোতে চায় শিক্ষা মন্ত্রনালয়সহ সরকার। তবে পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের বিষয়টিতে দ্রুত সমাধানের উদ্যোগ নেয়া হচ্ছে। যত দ্রুত সম্ভব এ বিষয়ে সমাধান চান সরকারের সংশ্লিষ্টরা।

রবিবার সচিবালয়ে শিক্ষা মন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ বেতন বৈষম্য দূরীকরণে গঠিত মন্ত্রিসভা কমিটির ওপর আস্থা রাখার জন্য পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন। সাংবাদিকদের সঙ্গে ঈদ পরবর্তী শুভেচ্ছা বিনিময়কালে তিনি এ আহ্বান জানিয়ে বলেছেন, শিক্ষকদের সকল সমস্যার সমাধানের উদ্দেশ্যে এ কমিটি গঠন করা হয়েছে। আমার বিশ্বাস, এ কমিটি সকল উদ্ভূত সমস্যার সমাধান করবে। আলাপ-আলোচনার মাধ্যমে সব সমস্যার সমাধান হবে। এর আগে গত ৭ সেপ্টেম্বর সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের নতুন জাতীয় বেতন স্কেলের প্রস্তাবে অনুমোদন দেয় মন্ত্রিসভা।

স্কেল প্রস্তাবের পর থেকেই পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকরা বেতন ও পদমর্যাদা নিশ্চিতকরণের জন্য এবং পৃথক বেতন কাঠামোর দাবি জানিয়ে আন্দোলন করছেন। ১৬ সেপ্টেম্বর ‘বেতন বৈষম্য দূরীকরণ-সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটি’ গঠন করে সরকার। এ কমিটির প্রধান করা হয় অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতকে। অন্য সদস্যরা হলেন শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু, বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ, জনপ্রশাসন মন্ত্রী সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম, শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ, আইনমন্ত্রী আনিসুল হক এবং অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নান।