২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

স্মৃতি মনে থাকে ৭ পর্যন্ত

শিশুরা স্মৃতি ধরে রাখতে পারে কত বছর বয়স থেকে-এ নিয়ে অস্পষ্টতা ছিল বরাবরই। সম্প্রতি এক গবেষণা থেকে জানা গেছে, মোটামুটি সাত বছর বয়স থেকে স্মৃতি তৈরি হতে থাকে শিশুদের। পাঁচ থেকে সাত বছর বয়সের মধ্যে শিশুরা ৬৩ থেকে ৭২ শতাংশ স্মৃতি মনে রাখতে পারে। গবেষক দলের প্রধান এবং যুক্তরাষ্ট্রের এমোরি কলেজ অব আর্টস এ্যান্ড সায়েন্সের মনোবিজ্ঞানী ও সহযোগী ডিন অধ্যাপক প্যাট্রিসিয়া বাওয়ের বলেন, ‘শৈশবে স্মৃতি ভুলে যাওয়ার ঘটনা খুব দ্রুত ঘটে। বয়সের সঙ্গে সঙ্গে স্মৃতি ধরে রাখার সক্ষমতাও বাড়ে। এভাবে ভুলতে ভুলতেই শৈশবের যেসব স্মৃতি থেকে যায় সেগুলো পরবর্তী জীবনে মনে থাকে।’

গবেষণায় দেখা যায়, তিন বছর বয়সী শিশুরা এক বছর আগের ঘটনাও মনে রাখতে পারে। পাঁচ-ছয় বছর বয়স পর্যন্ত তাদের এ স্মৃতি থাকে। তবে এরপর আর তারা ওই সময়ের কথা মনে রাখতে পারে না। আট থেকে ৯ বছর বয়সী শিশুরা তাদের তিন বছরের সময়কার ঘটনা মনে রাখতে পারে ৩৫ শতাংশ। গবেষকরা জানান, সাত বছর বয়সের আগে শিশুরা অনেকটাই অপরিণত থাকে। এ সময় তাদের স্মৃতিতে সময় বা স্থান তেমন গুরুত্ব পায় না। একটু বড় হলে ঘটনাগুলো বেশ গোছালো রূপ পেতে থাকে। তবে স্বাভাবিক নিয়মেই শিশুরা যে কোন ঘটনাই বড়দের চেয়ে অনেক দ্রুত ভুলে যায়। এক সময় যে ঘটনা শিশুদের মনে গভীর দাগ কাটে, সে ওই বিশেষ ঘটনাটির বিস্তারিত বলতে পারে; কয়েক বছরের ব্যবধানে দেখা যায়, বিষয়টি সে একেবারেই ভুলে গেছে।

টানা কয়েক বছর ধরে ৮৩টি শিশুকে নিয়ে কাজ করে গবেষক দল। সম্প্রতি এই গবেষণার ফলাফল বিজ্ঞানবিষয়ক সাময়িকী মেমরিতে ছাপা হয়েছে। শিশুরা প্রথমে তিন বছর বয়সে একবার গবেষণাগারে যায়। তখন তাদের জীবনের ছয়টি মজাদার ঘটনার বিবরণ দিতে বলা হয়। পাঁচ এবং ৯ বছর বয়সে আবারও একই ঘটনার পুনরাবৃত্তি করা হয়। এতে দেখা যায়, তিন বছরের স্মৃতি তাদের কাছে অনেকটাই ধূসর হয়ে গেছে। Ñইন্টারনেট