২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

দক্ষিণ কোরিয়ায় স্বাস্থ্য খাতের লোক পাঠানোর উদ্যোগ নেবে সরকার

স্টাফ রিপোর্টার ॥ দক্ষিণ কোরিয়ায় প্রশিক্ষণের জন্য স্বাস্থ্য সেক্টরের লোকজন পাঠানোর উদ্যোগ নেবে বাংলাদেশ সরকার। প্রাথমিক পর্যায়ে পাঠানো হবে বাংলাদেশের চিকিৎসক, নার্স ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মীদের। পাশাপাশি বাংলাদেশের স্বাস্থ্য খাতকে আরও সমৃদ্ধ করতে দক্ষিণ কোরিয়া সহায়তা অব্যাহত রাখবে।

রবিবার সন্ধ্যায় স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিমের সঙ্গে তার বাসভবনে সাক্ষাত করতে এসে দক্ষিণ কোরিয়ার জাতীয় সংসদীয় দলের প্রতিনিধিবৃন্দ এই আশ্বস প্রদান করেন। এ সময়ে তারা বাংলাদেশের স্বাস্থ্য খাতে ইতোমধ্যে বেশ অগ্রগতি অর্জনের জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিমের প্রশংসা করেন।

বৈঠকে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বাংলাদেশের স্বাস্থ্য খাতের উন্নয়নের বিভিন্ন দিক তুলে ধরেন এবং পাবনা, যশোর, নোয়াখালী, কক্সবাজার মেডিক্যাল হাসপাতালকে ৫০০ শয্যায় উন্নীত করতে কোরিয়ার কাছে সহায়তা চান। একই সঙ্গে তিনি জামালপুর মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতাল নিরমানসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে আরও ৫টি মেডিক্যাল কলেজ নির্মাণে সহায়তা চান। কোরিয়ান প্রতিনিধিরা ফিরে গিয়ে সেই দেশের সরকারের উচ্চপর্যায়ের সঙ্গে আলোচনা করে বাংলাদেশের স্বাস্থ্যমন্ত্রীর প্রস্তাব বাস্তবায়নের আশ্বাস প্রদান করেন।

বৈঠকে মোহাম্মদ নাসিম বলেন, কোরিয়ান আন্তর্জাতিক সহযোগিতা সংস্থার সহায়তায় ১৩০ মিলিয়ন ডলার ব্যায়ে বঙ্গবন্ধু মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ে একটি সুপার স্পেশালিটি হাসপাতাল নির্মাণের উদ্যোগ নেয়া হবে। বর্তমানে তাদের সহায়তায় মুগদা হাসপাতাল প্রাঙ্গণে ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব এডভান্সড প্র্যাক্টিসেস নার্সেস স্থাপনের কাজ শেষ পর্যায়ে।

কোরিয়ার জাতীয় সংসদের সদস্য, স্বাস্থ্য ও কল্যাণ কমিটির চেয়ারম্যান কিম চুন জিন প্রতিনিধি দলের নেতৃত্ব দেন। বৈঠকে কোরিয়ান ন্যাশনাল পলিসি কমিটির সদস্য কিম ইয়ং হুয়ান এমপি, কৃষি, খাদ্য, গ্রামীণ বিষয়ক ও মৎস্য কমিটির সদস্য পার্ক মিনসু, স্বাস্থ্য ও কল্যাণ কমিটির সদস্য চোই ডং লি, আইসিএপিপিয়ের মহাসচিব কিম সাং ইয়ন এমপি উপস্থিত ছিলেন। এছাড়াও বাংলাদেশের সংসদ সদস্য হাবিবে মিল্লাত, স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব মোঃ আইয়ুবুর রহমান খান ও বিমান কুমার সাহা এনডিসি, স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডাঃ দীন মোঃ নুরুল হক, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপচার্য অধ্যাপক ডাঃ কামরুল হাসান খানসহ মন্ত্রণালয় ও স্বাস্থ্য অধিদফতরের কর্মকর্তাগণ উপস্থিত ছিলেন।