২১ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

সিলেট ও হবিগঞ্জে শিশু নির্যাতন

স্টাফ রিপোর্টার, সিলেট অফিস ॥ নগরীতে কাজের মেয়েকে নির্যাতনের অভিযোগে সোমবার এক দম্পতিকে আটক করা হয়েছে। তারা হচ্ছে- নগরীর দরগা মহল্লা পায়রা ১০৮ নম্বর বাসার ফয়েজ আহমদ ও তার স্ত্রী তোফা বেগম। পুলিশ জানায়, দরগা মহল্লার ওই বাসায় ৯ বছর বয়সী এক শিশু গৃহপরিচারিকার কাজ করত। স্বামী-স্ত্রী প্রায়শ শিশুটিকে নির্যাতন করত। গত রবিবার রাতে শিশুটির উপর অমানবিক নির্যাতন চালায় এই দম্পতি। খবর পেয়ে পুলিশ নির্যাতনের শিকার মেয়েটিকে উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে। পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে গৃহকর্ত্রীসহ তার স্বামী পালিয়ে যায়। এ ঘটনায় সোমবার সকালে কতোয়ালি মডেল থানায় শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা দায়ের করা হয়। এরপর নগরীর মদীনা মার্কেট এলাকায় এক বাসায় হানা দিয়ে এই দম্পতিকে আটক করে পুলিশ।

নিজস্ব সংবাদদাতা, হবিগঞ্জ থেকে জানান, আবারও একই বিষয়, একই রকম নির্যাতন। চুরির অভিযোগ এনে হাত-পা বেঁধে হবিগঞ্জের উপজেলা মাধবপুর সদরে জামাল উদ্দিন (১০) নামে শিশুকে বেদম পিটিয়ে গুরুতর আহত করেছে এক ব্যবসায়ী। শুধু তাই নয়, শিশুটির মাথার চুল কেটেই এই ব্যবসায়ী ক্ষান্ত হননি বরং তার একটি দাঁতও ভেঙ্গে দেয়া হয়েছে। ঈদ-উল-আযহার আগের দিন বৃহস্পতিবার রাতে এই জঘন্যতম ঘটনাটি ঘটলে বিষয়টি ধামাচাপা দেয়ার চেষ্টা চালানো হয়। তবে তা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়ায় নড়েচড়ে বসে পুলিশ। পুলিশ ও স্থানীয় লোকজন জানায়, প্রায় ২৬ দিন আগে ওই উপজেলা সদরের স্টেডিয়াম পাড়ায় অবস্থিত জনৈক লিচু মিয়ার মালিকানাধীন বশির স্টোরে চাকরি নেয় জালাল উদ্দিনের ছেলে জামাল। এরই মধ্যে ঈদের আগের দিন বৃহস্পতিবার ছেলেকে বাড়ি নিতে তার বাবা আসলে ছুটি দেননি লিচু মিয়া। বরং ওইদিন রাতেই মাত্র ৫শ’ টাকা চুরির অপবাদ দিয়ে একটি বাথরুমে নিয়ে হাত-পা বেঁধে জামালের ওপর অমানুষিক নির্যাতন চালায় লিচু।

ভৈরবে ছিনতাইকারীর ছুরিকাঘাতে জখম আট

নিজস্ব সংবাদদাতা, ভৈরব, ২৮ সেপ্টেম্বর ॥ সোমবার দুপুরে ভৈরব মেঘনা নদীর সড়ক ও রেল সেতুর নিচে ছিনতাইকারীদের ছুরিকাঘাতে ঈদে ঘুরতে আসা ৮ দর্শনার্থী আহত হয়েছে। এ সময় ছিনতাইকারীরা দর্শনার্থীদের মোবাইল ফোন ও টাকা-পয়সা নিয়ে যায়। আহতদের স্থানীয় চ-িবের সরকারী হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হয়। এদের মধ্যে দুইজনকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় ঢাকা পাঠানো হয়েছে। আহতদের মধ্যে দুইজন ভৈরবের, তিন জন নরসিংদীর, ৩ জনের বাড়ি ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবা এলাকায়। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে যায়।