১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

বেয়ার্ন, চেলসির ছন্দ ধরে রাখার লড়াই, ঘুরে দাঁড়াতে চায় আর্সেনাল

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ ছন্দ ধরে রাখার লক্ষ্যে উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লীগ ফুটবলে আজ রাতে মাঠে নামছে বেয়ার্ন মিউনিখ ও চেলসি। আর ঘুরে দাঁড়িয়ে প্রথম জয়ের খোঁজে আর্সেনাল। নিজেদের মাঠ মিউনিখের এ্যালিয়েঞ্জ এ্যারানায় ‘এফ’ গ্রুপের ম্যাচে সাবেক চ্যাম্পিয়ন বেয়ার্ন খেলবে ক্রোয়েশিয়ার ক্লাব ডায়নামো জাগরেবের বিপক্ষে। গ্রুপের আরেক ম্যাচে লন্ডনের বিখ্যাত এমিরেটস স্টেডিয়ামে গ্রীসের ক্লাব অলিম্পিয়াকোসের মুখোমুখি হবে আর্সেনাল। নিজেদের প্রথম ম্যাচে জাগরেবের কাছে ২-১ গোলে হারে গানার্সরা। এ কারণে জয় ছাড়া কিছুই ভাবছে না ইংলিশ ক্লাবটি। প্রিমিয়ার লীগের সর্বশেষ ম্যাচে ৫-২ গোলের বড় জয় পায় আর্সেনাল। ম্যাচটিতে হ্যাটট্রিক করেন চিলিয়ান তারকা এ্যালেক্সিস সানচেজ। এ কারণে চ্যাম্পিয়ন্স লীগেও ভাল করতে আশাবাদী দলটির কোচ আর্সেন ওয়েঙ্গার। বেয়ার্নও অলিম্পিয়াকোসকে ৩-০ গোলে হারিয়ে শুভসূচনা করে। দলটি টানা দ্বিতীয় জয়ের লক্ষ্য নিয়ে মাঠে নামছে। বাভারিয়ান কোচ পেপ গার্ডিওলা জয়ের প্রত্যয় ব্যক্ত করেছেন। ‘জি’ গ্রুপের ম্যাচে চেলসির প্রতিপক্ষ পর্তুগালের এফসি পোর্তো। প্রথম ম্যাচে ইসরাইলের ক্লাব মাক্কাবি তেল আবিবের বিপক্ষে ৪-০ গোলের জয় পায় ব্লুজরা। হতাশায় ভরা নতুন মৌসুম শুরু করা কোচ জোশে মরিনহো সাবেক ক্লাব পোর্তোর মোকাবেলা করতে পর্তুগাল সফরে আছেন। দুই সপ্তাহ আগে স্টামফোর্ড ব্রিজে তেল আবিবের বিপক্ষে বড় জয় পেলেও ঘরোয়া লীগে নিজেদের দুর্বল পারফর্মেন্স অব্যাহত রেখেছে চেলসি। গত শনিবার ব্লুজরা নিউক্যাসল ইউনাইটেডের সঙ্গে ঘাম ঝরানো ড্র করলেও শুরুতে পিছিয়ে পড়েছিল ০-২ গোলে। শেষ পর্যন্ত চ্যাম্পিয়নদের পরাজয়ের হাত থেকে উদ্ধার করেন ব্রাজিলের দুই তারকা রামিরেস ও উইলিয়ান। এরপর মরিনহো বলেন, যখন দলের ক’জন খেলোয়াড়ের ব্যক্তিগত পারফর্মেন্স খারাপ হয় তখন একটি দলের দলগত পারফর্মেন্স গড়ে তোলাটা বলতে গেলে অসম্ভব বিষয় হয়ে ওঠে। তবে সাবেক ক্লাবের বিপক্ষে এই ধরনের ম্যাচ দলকে ঝালিয়ে নিতে সহায়তা করে বলে মনে করেন মরিনহো। ২০০৪ সালে মোনাকোর বিপক্ষে চ্যাম্পিয়ন্স লীগের ফাইনালে ৩-০ গোলে জয় পেয়েছিল পোর্তো। ওই দলের কোচ ছিলেন মরিনহো। এরপর সেখান থেকে চলে আসেন তিনি। পর্তুগীজ দলটিকে নায়ক বানিয়ে চলে আসার পর অবশ্য কয়েকবার সেখানে গিয়েছেন স্পেশাল ওয়ান। একই বছর তিনি চেলসির কোচ হিসেবে পোর্তো সফর করেছিলেন। এ সময় তার দলের অধিনায়ক ছিলেন জন টেরি। অবশ্য গ্রুপ পর্বের ওই ম্যাচে ২-১ গোলের ব্যবধানে হেরে গেলেও দুই দলই নকআউট পর্বে খেলার যোগ্যতা অর্জন করেছিল। ২০০৭ সালে এস্টাডিও ডো ড্রগাওয়ে ১-১ গোলে ড্র করার পরও ৩-২ ব্যবধানে এগিয়ে থেকে শেষ ষোলোতে জায়াগা পেয়েছিল চেলসি। এখন ডায়নামো কিয়েভ সফরের আগে মরিনহো চান আরেকটি ইতিবাচক সাফল্য পেতে। ২০১৩ সালে মরিনহো রিয়াল মাদ্রিদের কোচের দায়িত্বে থাকাকালে শেষ সময়ে সাইডলাইনে বসিয়ে রেখেছিলেন গোলরক্ষক ইকার ক্যাসিয়াসকে। চলতি মৌসুমে সান্টিয়াগো বার্নব্যু ছেড়ে পোর্তোতে যোগ দেয়া ক্যাসিয়াস ওই ঘটনাটি হয়তো কখনও ভুলবেন না। চ্যাম্পিয়ন্স লীগে ডায়নামো কিয়েভের বিপক্ষে ইউক্রেনে অনুষ্ঠিত ম্যাচেও গোলপোস্টের দায়িত্ব পালন করেছেন ক্যাসিয়াস। ম্যাচটি ২-২ গোলে ড্র হয়। আজ চেলসির বিপক্ষেও ক্যাসিয়াসকে দেখা যাবে এটা একপ্রকার নিশ্চিত।