২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

শরীয়তপুরে কিশোরী গণধর্ষণের শিকার, ভিডিও করে প্রচার

নিজস্ব সংবাদদাতা, শরীয়তপুর, ২৯ সেপ্টেম্বর ॥ মঙ্গলবার দুপুরে সদর উপজেলার চরকাশাভোগ গ্রামের আলতাফ হোসেন ফকিরের কন্যা ফাহিমা আক্তার (১৪) গণধর্ষণের শিকার হয়েছে। ধর্ষণকারীরা মোবাইলে ধর্ষণের ভিডিওচিত্র ধারণ করে এলাকায় ছড়িয়েছে বলে ভিকটিমের পরিবার অভিযোগ করেছে। সংজ্ঞাহীন অবস্থায় ফাহিমা আক্তারকে শরীয়তপুর সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

ভিকটিমের পরিবার সূত্রে জানা গেছে, চরকাশাভোগ গ্রামের আলতাফ হোসেন ফকির একই গ্রামের মনোহরবাজার মোড়ে হালিম হেকিমী দাওয়াখানায় বসে রোগীদের কবিরাজী চিকিৎসা দেন। মঙ্গলবার দুপুর আড়াইটায় আলতাফ হোসেন ফকির তার মেয়ে ফাহিমা আক্তারকে মুঠোফোনে দাওয়াখানায় একটি কবিরাজী বই দিয়ে যেতে বলেন। ফাহিমা আক্তার তার বাবাকে কবিরাজী বই দিতে বাড়ি থেকে রওনা দেয়। এ সময় পথে ওঁৎ পেতে থাকা একই গ্রামের আকবর হোসেন ব্যাপারীর ছেলে জাকির হোসেন, নুরুল ইসলাম রাঢ়ীর ছেলে আসাদুল ও জাকিরের চাচাত ভাই ইমদাদুল মিলে ফাহিমা আক্তারকে মুখ চেপে জোর করে ধরে একই গ্রামের দাদন সরদারের খালি ঘরে নিয়ে যায় এবং একের পর এক ধর্ষণ করে। আলতাফ হোসেন ফকির জানান, মেয়ের দাওয়াখানায় আসতে দেরি হওয়ায় খোঁজাখুঁজি করতে থাকি। এক পর্যায়ে দাদন সরদারের খালি ঘর থেকে রক্তাক্ত ও সঙ্গাহীন অবস্থায় উদ্ধার করে ফাহিমাকে শরীয়তপুর সদর হাসপাতালে ভর্তি করি। তিনি ধর্ষকদের বিচার ও ফাঁসি দাবি করেন। ফাহিমা আক্তারের বড় বোন রহিমা আক্তার জানান, ধর্ষকরা ধর্ষণের ভিডিওচিত্র ধারণ করে এলাকায় মোবাইলে ছড়িয়ে দিয়েেেছ। সন্ধ্যায় এ রিপোর্ট লেখার সময় পালং মডেল থানায় মামলার প্রস্তুতি চলছিল।

নির্বাচিত সংবাদ