২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

এবার ঢাকায় বিশ্বকাপ বাছাই ফুটবল খেলতে অস্ট্রেলিয়ার টালবাহানা!

  • সূচী অনুযায়ী না খেললে অবধারিত সাসপেন্ড ;###;নিরাপত্তা নিয়ে অসি মিডিয়ার উদ্বেগকে উড়িয়ে দিল বাফুফে ;###;বাংলাদেশ দলের ইতালিয়ান তিন কোচের নিরাপত্তা জোরদার

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ ক’দিন আগে নিরাপত্তার বাংলাদেশ সফর স্থগিত করেছে অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেট টিম। হঠাৎ করেই গুঞ্জন উঠেছে, একই কারণে আগামী ১৭ নবেম্বর ঢাকায় ফিফা বিশ্বকাপ বাছাইপর্বের এ্যাওয়ে ম্যাচ খেলতে না আসতে পারে অস্ট্রেলিয়া ফুটবল দলও। বাংলাদেশে জঙ্গী সমস্যা, নিরাপত্তার অভাব, অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেট দলের বাংলাদেশ সফর স্থগিত ... এসব নিয়ে অস্ট্রেলিয়ান সংবাদ মাধ্যমে গার্ডিয়ান ও ফক্স স্পোর্টস প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। কথায় আছে, ‘যার বিয়ে, তার খবর নাই, পাড়া-পড়শীর ঘুম নাই!’ তেমনই অবস্থা হয়েছে এই দুটি অসি সংবাদ মাধ্যমের। যেখানে অস্ট্রেলিয়া ফুটবল ফেডারেশনই এ বিষয়ে কিছু জানায়নি বা নিশ্চুপ, সেখানে গার্ডিয়ান-ফক্স স্পোটর্সের উদ্বিগ্ন হওয়াটা দৃষ্টিকটুই বটে।

বাংলাদেশের নিরাপত্তা পরিস্থিতি অস্ট্রেলিয়া ফুটবল ফেডারেশন পর্যবেক্ষণ করলেও বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশন (বাফুফে) জানিয়েছে তারা এ নিয়ে মোটওে চিন্তিত নয়। তবে জানা গেছে, বাংলাদেশের পরিস্থিতিতে নজর রাখছে অস্ট্রেলিয়া ফুটবল ফেডারেশন (এফএফএ)। এফএফএর এক মুখপাত্রের কথা উল্লেখ করে ফক্স স্পোর্টস উল্লেখ করে ‘আগামী নবেম্বরে বিশ্বকাপের বাছাইপর্বের ম্যাচ সামনে রেখে বাংলাদেশের বর্তমান পরিস্থিতি এফএফএ নিবিড়ভাবে পর্যবেক্ষণ করছে।’ প্রতিবেদনে মুখপাত্রের উদ্ধৃতি দিয়ে আরও জানানো হয়, বাংলাদেশের পরিস্থিতি স্পষ্টভাবে জানতে ডিএফএ (ডিপার্টমেন্ট অব ফরেন এ্যাফেয়ার্স এ্যান্ড ট্রেড) ও সংশ্লিষ্ট সরকারী সংস্থা ও নিরাপত্তা বিশেষজ্ঞ এবং এএফসির (এশিয়ান ফুটবল ফেডারেশন) সঙ্গে আলোচনা করছে এফএফএ। যদি সকারুসরা সত্যিই বাংলাদেশ বিশ্বকাপ বাছাইপর্বের ম্যাচ খেলতে না আসে এবং ওয়াকওভার দেয়, তাহলে ফিফার নিয়ম অনুযায়ী বাংলাদেশ দল অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে হোম এ্যান্ড এ্যাওয়ে দুটি ম্যাচেরই পূর্ণ ৬ পয়েন্ট পাবে। শুধু তাই নয়, অস্ট্রেলিয়াকে ফিফা বহিষ্কারও করবে। চারবার বিশ্বকাপের মূলপর্বে খেলেছে অস্ট্রেলিয়া। এখন তারা কি জেনে-শুনে সাসপেন্ড হয়ে নিজেদের পায়ে নিজেরাই কুড়াল মারতে চাইবে? এ নিয়ে অনেক সচেতন ক্রীড়াপ্রেমী মন্তব্য করেছেন, ‘ফিফার অধীনে ফ্টুবল খেলে বিশ্বের ২০৯ দেশ, আর আইসিসির অধীনে ক্রিকেট খেলে মাত্র ১০ দেশ। ক্রিকেটের সঙ্গে ফুটবলকে মেশালে তো চলবে না। ক্রিকেট দলের মতো ফুটবল দলের সফর বাতিল করলে ফিফা তো সাসপেন্ডই করে দেবে অস্ট্রেলিয়াকে। কাজেই তারা নিশ্চয়ই না খেলার ঝুঁকি নেবে না!

২০১৮ সালের রাশিয়া বিশ্বকাপের এশিয়া অঞ্চলের বাছাইয়ের ম্যাচ আগামী ১৭ নবেম্বর খেলবে বাংলাদেশ-অস্ট্রেলিয়া। এফএফএ নিরাপত্তা পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করলেও অস্ট্রেলিয়ার বাংলাদেশ সফর নিয়ে চিন্তিত নয় বাফুফে। বাফুফের সাধারণ সম্পাদক আবু নাঈম সোহাগ ‘ক্রিকেট ও ফুটবল আলাদা বিষয়’ জানিয়ে বলেন, ‘এটা নিয়ে আমরা মোটেও চিন্তিত নই। যদি কিছু হয়, তাহলে আমাদের ফিফা জানাবে। বাংলাদেশে আসা নিয়ে যেসব কথা শোনা যাচ্ছে বাফুফের পক্ষ থেকে বলতে চাই সেটি সম্পূর্ণ ভিত্তিহীন একটি তথ্য। বাফুফের কাছে এমন কোন তথ্য নেই। এএফসি বা ফিফার পক্ষ থেকে এমন কিছু আমাদের জানানো হয়নি। তাই এই মুহূর্তে এটি সম্পূর্ণ ভিত্তিহীন একটি ইস্যু।’ সোহাগ আরও যোগ করেন, ‘আগামী ১৭ নবেম্বর বাংলাদেশ-অস্ট্রেলিয়া জাতীয় দলের মধ্যে যে ম্যাচটি রয়েছে সে ম্যাচ আয়োজন উপলক্ষে আমাদের সব প্রস্তুতি ঠিকঠাক রয়েছে। আমাদের যে সিডিউল ম্যাচ রয়েছে, ১৩ অক্টোবর কিরগিজস্তানে গিয়ে কিরগিজস্তান জাতীয় ফুটবল দলের সঙ্গে ম্যাচ খেলা। তাজিকিস্তান জাতীয় ফুটবল দলের সঙ্গে ১২ নবেম্বর খেলেই ১৭ নবেম্বর বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে অস্ট্রেলিয়ার সঙ্গে ফুটবল ম্যাচে অংশ নেবে বাংলাদেশ জাতীয় দল।’ এর আগেরও কোন বিভিন্ন আন্তর্জাতিক ম্যাচ সুষ্ঠু নিরাপত্তা দিয়ে আয়োজন করেছে বাফুফে। তার ধারাবাহিকতায় অস্ট্রেলিয়ার ম্যাচটিও ঢাকায় আয়োজন করবে বাফুফে। এটা সত্যি যে, সোমবার গুলশানে দুবৃত্তদের গুলিতে এক ইতালিয় নাগরিকের মৃত্যু ঘটেছে। এটা একটা বিচ্ছিন্ন ঘটনা। এই কারণে বাংলাদেশ জাতীয় দলের তিন ইতালিয়ান কোচ (হেড কোচ ফ্যাবিও লোপেজ, সহকারী কোচ কস্তানতিনো জুকারিনি এবং ফিটনেস কোচ এ্যাঞ্জেলো পাভিয়া) মোটেও উদ্বিগ্ন নন। বাফুফে তাদের বলেছে, ব্যক্তিগত কাজে ক্যাম্পের বাইরে কোথাও গেলে তারা যেন অবশ্যই বাফুফেকে অবহিত করে যান।