২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

কাউন্সিল ছাড়াই নতুন কমিটি করতে যাচ্ছে বিএনপি

শরিফুল ইসলাম ॥ এবার জাতীয় কাউন্সিল ছাড়াই নতুন জাতীয় নির্বাহী কমিটি করতে পারে বিএনপি। দলের চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়া লন্ডন থেকে দেশে ফিরলেই কমিটি গঠনের প্রক্রিয়া শুরু হবে। সবকিছু ঠিকঠাক থাকলে এ বছর ডিসেম্বর অথবা পরবর্তী বছর জানুয়ারির মধ্যেই কমিটি ঘোষণা করা হবে।

সূত্রমতে, খালেদা জিয়া লন্ডন থেকে ফেরার পর জাতীয় কাউন্সিলের প্রস্তুতি শুরু করবে বিএনপি। কিন্তু কোন কারণে কাউন্সিল করা সম্ভব না হলে দলের চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়া তার গঠনতান্ত্রিক ক্ষমতাবলে জাতীয় নির্বাহী কমিটি গঠন করে দেবেন। এ বিষয়ে ইতোমধ্যেই তিনি লন্ডনপ্রবাসী ছেলে ও বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের সঙ্গে কথা বলেছেন। আরপিও (গণপ্রতিনিধিত্ব আদেশ) অনুসারে তিন বছর পর পর জাতীয় কাউন্সিল করার বাধ্যবাধকতা রয়েছে। কিন্তু সর্বশেষ জাতীয় কাউন্সিল করার পর পৌনে ৬ বছর অতিক্রম হলেও জাতীয় কাউন্সিল করতে পারেনি বিএনপি। তবে খালেদা জিয়া দেশে ফেরার পর এ বছর ডিসেম্বরে আবারও জাতীয় কাউন্সিল করার চেষ্টা করবে দলটি। কোন কারণে কাউন্সিল করা সম্ভব না হলে সরাসরি নতুন কমিটি গঠন করে দলকে গতিশীল করার চেষ্টা চালাবেন খালেদা জিয়া।

অবশ্য জাতীয় কাউন্সিলের প্রস্তুতির অংশ হিসেবেই ৮ আগস্ট কেন্দ্র থেকে চিঠি দিয়ে ৩০ সেপ্টেম্বরের মধ্যে ৭৫ সাংগঠনিক জেলা ও জেলার আওতাধীন ওয়ার্ড, ইউনিয়ন, পৌরসভা, থানা ও উপজেলা কমিটি পুনর্গঠন করতে বলা হয়েছে। কিন্তু মাত্র দেড় মাস সময়ের মধ্যে কিছু তৃণমূল পর্যায়ের কমিটি গঠন করা সম্ভব হলেও ৭৫ সাংগঠনিক জেলার মধ্যে একটিরও নতুন কমিটি করা সম্ভব হয়নি। তাই এই জেলা কমিটিগুলো পুনর্গঠন করে জাতীয় কাউন্সিল করতে গেলে আরও অনেক সময় প্রয়োজন।

বিএনপি সূত্র জানায়, মামলাজনিত কারণে দলের অনেক নেতাকর্মী নিজ নিজ এলাকায় দলীয় কর্মকা-ে অংশ নিতে না পারায় তারা কাউন্সিলের প্রস্তুতি কাজে অংশ নিতে পারছে না। এ পরিস্থিতিতে জাতীয় কাউন্সিল করতে গেলে তা সফল করতে দলীয় হাইকমান্ডকে হিমশিম খেতে হবে। এ ছাড়া জাতীয় কাউন্সিল সফল করতে হলে ঢাকা মহানগর বিএনপিকে সবচেয়ে বেশি সক্রিয় থাকতে হবে। কিন্তু গত কয়েক বছর ধরে ঢাকা মহানগর বিএনপি নিষ্ক্রিয় রয়েছে। ঢাকা মহানগর বিএনপির বর্তমান আহ্বায়ক মির্জা আব্বাস মামলাজনিত কারণে দলীয় কর্মকা-ে শরিক হতে পারছেন না। আর সাবেক আহ্বায়ক সাদেক হোসেন খোকা যুক্তরাষ্ট্রে চিকিৎসাধীন। তাদের অনুসারী নেতাকর্মীরাও এখন দলে নিষ্ক্রিয়। এ পরিস্থিতিতে গণপ্রতিনিধিত্ব আদেশ (আরপিও) অনুসারে বিএনপি জাতীয় কাউন্সিল করতে না পারলেও নতুন জাতীয় নির্বাহী কমিটি গঠন করে নির্বাচন কমিশনে জমা দিতে পারবে বলে অভিজ্ঞ মহল মনে করছে। সে ক্ষেত্রে বিএনপিকে অবশ্যই নির্বাচন কমিশনের কাছে জাতীয় কাউন্সিল করতে না পারার সুনির্দিষ্ট কারণ ব্যাখ্যা করতে হবে।

বিএনপির সর্বশেষ জাতীয় কাউন্সিল হয় ২০০৯ সালের ৮ ডিসেম্বর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে। এর আগে ১৯৯৩ সালের ২ ও ৩ সেপ্টেম্বর রাজধানীর শেরেবাংলা নগরে খোলা জায়গায় তাঁবু টানিয়ে বিএনপির জাতীয় কাউন্সিল করা হয়। সর্বশেষ কাউন্সিলের পর ২০১০ সালের ১ জানুয়ারি খালেদা জিয়াকে চেয়ারপার্সন, তারেক রহমানকে সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান ও খোন্দকার দেলোয়ার হোসেনকে মহাসচিব করে ৩৮৬ সদস্যের জাতীয় নির্বাহী কমিটি গঠন করে বিএনপি। ২০১১ সালের ১৬ মার্চ সিঙ্গাপুরে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান খোন্দকার দেলোয়ার হোসেন। ওই বছর ৬ এপ্রিল দলের স্থায়ী কমিটির বৈঠকে সিদ্ধান্ত নিয়ে সিনিয়র যুগ্মমহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরকে ভারপ্রাপ্ত মহাসচিবের দায়িত্ব দেন খালেদা জিয়া। এরপর থেকে তিনি ভারপ্রাপ্ত মহাসচিবের দায়িত্ব পালন করে আসছেন। তবে এবার নতুন কমিটি গঠন করা হলে তিনি মহাসচিবের দায়িত্ব পেতে পারেন বলে বিভিন্ন সূত্র জানিয়েছে।

তিন বছর সময় অতিক্রম হওয়ায় ২০১২ সালের শেষদিকে জাতীয় কাউন্সিলের প্রস্তুতি নেয় বিএনপি। কাউন্সিল করার জন্য তখন ভেন্যুও ঠিক করা হয়েছিল। কিন্তু কাউন্সিল সামনে রেখে কেন্দ্র থেকে শুরু করে সারাদেশের সকল পর্যায়ে দলের নেতাকর্মীদের মধ্যে দ্বন্দ্ব-কোন্দল বেড়ে যাওয়ায় ওই যাত্রায় আর জাতীয় কাউন্সিল করতে পারেনি বিএনপির হাইকমান্ড। এরপর বেশ কয়েক দফা চেষ্টা চালিয়েও জাতীয় কাউন্সিল করতে পারেনি। একপর্যায়ে দলটি দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচন সামনে রেখে কাউন্সিলের পরিবর্তে সরকারবিরোধী আন্দোলন নিয়ে ব্যস্ত হয়ে পড়ে। ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পর আবারও জাতীয় কাউন্সিল করার প্রস্তুতি নিয়ে ব্যর্থ হয়। এরপর এ বছর ৬ জানুয়ারি থেকে টানা ৯২ দিন অবরোধ কর্মসূচী ব্যর্থ হওয়ার পর নতুন করে জাতীয় কাউন্সিলের প্রস্তুতি শুরু করে। কিন্তু এখন পর্যন্ত জাতীয় কাউন্সিলের প্রস্তুতি জোরদার করতে পারেনি বিএনপি। আর এ কারণেই কাউন্সিল ছাড়াই নতুন কমিটি গঠন করা হতে পারে বলে খোদ বিএনপি নেতাকর্মীরাই বলাবলি করছেন।

জানা যায়, দীর্ঘদিন ধরে জাতীয় কাউন্সিল না হওয়ায় বিএনপির অনেক ত্যাগী নেতা জাতীয় নির্বাহী কমিটিতে অন্তর্ভুক্তির সুযোগ পাচ্ছেন না। এ কারণে সুযোগবঞ্চিত বিএনপি নেতাদের ক্ষোভ বাড়ছে। তাই জাতীয় কাউন্সিল করার জন্য অনুকূল পরিবেশ না পেলে এ বছর ডিসেম্বর অথবা ২০১৬ সালের জানুয়ারির মধ্যে বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়া সরাসরি কমিটি পুনর্গঠন করতে পারেন। এ জন্য ইতোমধ্যেই লন্ডনে অবস্থানরত খালেদা জিয়া তার ছেলে তারেক রহমানের সঙ্গে কথা বলেছেন বলে জানা গেছে। এদিকে নতুন কমিটির বিষয়টি জানতে পেরে দলের অনেক নেতা আগেভাগেই ভাল পদ পেতে লবিং শুরু করেছেন।

সূত্রমতে, নতুন জাতীয় নির্বাহী কমিটি গঠন করা হলে বিএনপির বর্তমান ৩৮৬ সদস্যের নির্বাহী কমিটি থেকে অন্তত ১০০ জন বাদ পড়বেন। যাদের নতুন কমিটিতে রাখা হবে তাদের মধ্য থেকে অনেকেরই পদ-পদবি রদবদল হবে। আর নতুন কমিটিতে খালেদা জিয়া ও তারেক রহমানের বিশ্বস্ত শতাধিক নেতাকে সুবিধাজনক অবস্থানে নেয়া হবে। ৬০ থেকে ৭০ জনকে নেয়া হবে সাবেক ছাত্রদল, যুবদল, স্বেচ্ছাসেবক দল ও মহিলা দলের গুরুত্বপূর্ণ পদে থাকা তরুণ নেতাকে। এর মধ্যে যারা গুরুত্বপূর্ণ পদ পেতে পারেন তাদের মধ্যে রয়েছেনÑ বর্তমানে বিএনপি চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা শামসুজ্জামান দুদু, যুগ্মমহাসচিব আমানউল্লাহ আমান, সালাউদ্দিন আহমেদ, বরকতউল্লাহ বুলু, রুহুল কবির রিজভী, আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক ড. আসাদুজ্জামান রিপন, নাজিমউদ্দিন আলম, এহসানুল হক মিলন, শিক্ষাবিষয়ক সম্পাদক খায়রুল কবির খোকন, যুববিষয়ক সম্পাদক মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, স্বেচ্ছাসেবক বিষয়ক সম্পাদক হাবিব-উন-নবী খান সোহেল, মানবাধিকার বিষয়ক সম্পাদক ব্যারিস্টার নাসিরউদ্দিন অসীম, ছাত্রবিষয়ক সম্পাদক শহীদউদ্দিন চৌধুরী এ্যানী, সমাজকল্যাণ বিষয়ক সম্পাদক আবুল খায়ের, সহ-মহিলা বিষয়ক সম্পাদক শিরিন সুলতানা, সহ-ছাত্রবিষয়ক সম্পাদক সুলতান সালাউদ্দিন টুকু প্রমুখ।

এ ব্যাপারে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য লে. জেনারেল (অব) মাহবুবুর রহমান জনকণ্ঠকে বলেন, জাতীয় কাউন্সিলের মাধ্যমেই দলের নতুন জাতীয় নির্বাহী কমিটি গঠনের কথা রয়েছে। পরিস্থিতি প্রতিকূল হওয়ায় জাতীয় কাউন্সিল করা না গেলেও বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়া তার গঠনতান্ত্রিক ক্ষমতাবলে নতুন কমিটি করে দিতে পারবেন। তবে বিএনপির নতুন জাতীয় নির্বাহী কমিটি কখন ও কিভাবে করা হবে তা এখনও বলা যাচ্ছে না, সময় হলে সবাই তা জানতে পারবেন।

নির্বাচিত সংবাদ