২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

আলোচনা-কবিতা পাঠের মধ্য দিয়ে কবি নূরুল হুদার জন্মদিন পালন

  • সংস্কৃতি সংবাদ

স্টাফ রিপোর্টার ॥ ‘একজন কবির জন্মদিন হলো জৈবিক, প্রকৃত জন্মদিন হয় তাঁর লেখা প্রতিটি কবিতায়। কবি মুহম্মদ নূরুল হুদার কবিতার আমি একজন অনুরক্ত পাঠক। আজ তাঁর জন্মদিনের শুভেচ্ছা জানাতে এত কবি-সুধীজনের সমাবেশ ঘটেছে। দিনটিতো তাঁকে উদ্দেশ করে উদ্বোধন হয়েই আছে। কবির জন্ম শুধু মাতৃগর্ভেই নয়, মাটিও তাঁকে জন্ম দেয়। কবির বয়স বাড়ে কিন্তু কবিতার বয়স বাড়ে না। কবিতা হলো চির সবুজ, চির নবীন। কবি নূরুল হুদার কলম আরও তীক্ষè হবে এ প্রত্যাশা রাখি’ জাতিসত্তার কবি মুহম্মদ নূরুল হুদার ৬৬তম জন্মদিনের অনুষ্ঠান উদ্বোধনের সময় এ কথাগুলো বলেন কবি সব্যসাচী সৈয়দ শামসুল হক। জাতীয় জাদুঘরের কবি সুফিয়া কামাল মিলনায়তনে বুধবার বিকেলে এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করে বাংলাদেশ রাইটার্স ক্লাব। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন কবির জন্মবার্ষিকী উদ্যাপন পর্ষদের আহ্বায়ক কবি মতিন বৈরাগী। এতে সম্মানিত অতিথি ছিলেন প্রফেসর মনিরুজ্জামান, কবি কাজী রোজী, মোহাম্মদ সাদিক, ড. রণজিৎ কুমার বিশ্বাস প্রমুখ।

কবি সৈয়দ শামসুল হকের উদ্বোধনী বক্তব্যের মধ্য দিয়ে শুরু হয় অনুষ্ঠান। স্বাগত বক্তব্য রাখেন কবি শাহাদাৎ হোসেন নিপু। কবিতা আবৃত্তি করেন ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক কথাশিল্পী নিশাত খান। এরপর কবি মুহম্মদ নূরুল হুদার জীবনী নিয়ে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন কবি কামরুল ইসলাম।

অনুষ্ঠানে কবিকে শুভেচ্ছা জানিয়ে বক্তব্য রাখেন জাতীয় জাদুঘরের মহাপরিচালক ফয়জুল লতিফ চৌধুরী, কবি রবিন আহসান, প্রফেসর নূরু করিম নাছিম, কবি মাণিক মোহাম্মদ রাজ্জাক, আলম তালুকদার, শেখ রবিউল হক, আসান মান্নান, বিমল গুহ, মোহাম্মদ সামাদসহ আরও অনেকে।

বক্তারা বলেন, নজরুল গবেষক কবি মুহম্মদ নূরুল হুদা বাংলা কাব্য জগতে তাঁর লাগাতার ধারাবাহিক সৃজনশীল কর্মদ্বারা সুপ্রতিষ্ঠিত এবং নিরন্তর মনোযোগবিষ্ট নতুন কিছু আমাদেরকে দেয়ার জন্য। তিনি চেতন মনোনির্মাণের কবি, চেতনার কবি। তাঁর গ্রন্থ সংখ্যা শতাধিক। প্রবন্ধ, নিবদ্ধ, কথাসাহিত্য, সাহিত্য আন্দোলন কপিরাইট বিষয়ক গদ্য গবেষণার ক্ষেত্রে তাঁর অবদান অসামান্য। তিনি আমাদের কাব্য জগতে অত্যন্ত জনপ্রিয় এবং মেধাবী কবি। কবিতা কাঠামোর ভাঙচুর, নতুন পথ নির্মাণের নিরীক্ষা, কবিতার ইতিহাসে নানা তত্ত্বের সরল প্রয়োগসহ আরও নানাবিধ ব্যঞ্জনা রয়েছে তাঁর কবিতায়। কেবল নতুন এবং নতুনের দিকে যাত্রার প্রতি রয়েছে ব্যাকুল আগ্রহ। তাঁর রচিত বহু পঙ্তি ইতোমধ্যে জনপ্রিয়তা পেয়েছে এবং অনেক কাব্যপ্রেমীদের আগ্রহের বিষয় হয়েছে।

অনেক বক্তা বলেন, এই কবি কেবল কবি, আপদ-মস্তক তিনি শুধু কবি, মৌলিকভাবে কবি, জীব-যাপনে কবি। তিনি আমাদের প্রিয় বন্ধু, প্রিয় সুহৃদ। সারাক্ষণ যাঁর কবিতার মধ্যে বসবাস এই কবির প্রতি এবং কবির পরিবারের প্রতি আমাদের গভীরে শ্রদ্ধা ও শুভকামনা। আলোচনার পর শুরু হয় কবিতা পাঠের আসর। সবশেষে ছিল সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান।

আমরা সবাই ফাউন্ডেশনের প্রথম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী অনুষ্ঠিত ॥ আলোচনা, গুণীজন সংবর্ধনা ও মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে পালিত হয় আমরা সবাই ফাউন্ডেশনের প্রথম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী। গণগ্রন্থাগারের শওকত ওসমান স্মৃতি মিলনায়তনে বুধবার বিকেলে সুবিধাবঞ্চিত শিশুসংগঠন আয়োজিত এ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন একুশে পদকপ্রাপ্ত নৃত্যগুরুমাতা বেগম রাজিয়া খানম ঝুনু। বিশেষ অতিথি ছিলেন ফাউন্ডেশনের প্রধান উপদেষ্টা সমাজকর্মী হেলেনা জাহাঙ্গীর (সিস্টার হেলেন)। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন ফাউন্ডেশনের সভাপতি মনজুর আহমেদ। আলোচনার ফাঁকে ফাঁকে পরিবেশিত হয় দেশের বরেণ্য শিল্পীদের কণ্ঠে গান এবং সংগঠনটির সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের বিভিন্ন পরিবেশনা।