২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

‘ভেনাস উইলিয়ামসের ৭০০’

‘ভেনাস উইলিয়ামসের ৭০০’

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ বয়সে পয়ত্রিশকেও ছাড়িয়ে গেছেন ভেনাস উইলিয়ামস। দীর্ঘদিন ধরে মিলছে না শিরোপার দেখাও। তার মুখের হাসি যেন হয়ে গিয়েছিল অমাবস্যার চাঁদ! অবশেষে মঙ্গলবার সেই ভেনাস উইলিয়ামসই হাসলেন পূর্ণিমার চাঁদের মতো। কোন গ্র্যান্ডসøাম কিংবা ডব্লিউটিএ শিরোপা জিতেননি; তবে বিরল এক অর্জনের মালিক হলেন আমেরিকান টেনিসের এই তারকা খেলোয়াড়। পেশাদার টেনিস ক্যারিয়ারে এদিন নিজের ৭০০তম জয়ের মাইলফলক স্পর্শ করলেন তিনি। উহান ওপেনে জার্মানির জুলিয়া জর্জেসকে ৬-৪, ৬-৩ গেমে হারিয়ে মাইলফলক ছুঁয়েছেন ভেনাস উইলিয়ামস।

সক্রিয় খেলোয়াড়দের মধ্যে দ্বিতীয় প্রমীলা খেলোয়াড় হিসেবে সাত শ’ কিংবা তার বেশি ম্যাচ জয়ের রেকর্ড এখন ভেনাস উইলিয়ামসের। অন্য জন হলেন তারই ছোট বোন সেরেনা উইলিয়ামস। এই বয়সে অন্যরা যখন র‌্যাকেট তুলে সংসারী জীবন উপভোগ করছেন। তখন মাঠ দাপড়ে বেড়াচ্ছেন ভেনাস। গড়লেন অবিশ্বাস্য এক কীর্তি। ভেনাস কী আর উচ্ছ্বসিত না হয়ে পারেন? তবে তিনি নাকি জানতেনই না তা। জানার পর আনন্দ-উল্লাসের মাত্রায় যোগ হয়েছে নতুন এক অভিজ্ঞতার। এ বিষয়ে আনন্দে-উদ্বেলিত ভেনাস বলেন, ‘বিশ্বাস করুন, কোর্টে নামার আগে এটা আমার জানাই ছিল না। কেউ আমাকে এটা বলেনি। এখন জানতে পেরে দারুণ লাগছে।’

ম্যাচ শেষে এ প্রসঙ্গে ভেনাস বলেন, ‘দারুণ একটা ম্যাচ খেললাম। সে (জুলিয়া জর্জেস) খুবই যোগ্যতাসম্পন্ন খেলোয়াড়। তার বিপক্ষে আগে কখনই খেলিনি আমি। তাই এটাও আমার জন্য নতুন এক অভিজ্ঞতা।’ এর ফাঁকে নতুন লক্ষ্যের কথাও জানিয়ে দিলেন সাত গ্র্যান্ডসøামজয়ী ভেনাস। এ বিষয়ে তার অভিমত হলো, ‘এখন তো আমি নতুন করে ভাবতে শুরু করে দিলাম যে ৮০০ ম্যাচ জিততে কতদিন লাগবে আমার। আর এটাই আমার প্রথম ভাবনা। কিন্তু ৭০০তম ম্যাচ জয়ের পথটাও দুর্দান্ত। এতে আমি খুবই আনন্দিত।’

টেনিস কোর্টে ভেনাসকে নিয়মিতই দেখা যায়। তবে নিজের ছায়া হিসেবে। ২০০২ সালের ফেব্রুয়ারিতে র‌্যাঙ্কিংয়ের শীর্ষস্থানে থাকা এক যুগেরও বেশি সময় পর টেনিস কোর্টে থাকাটাই আসলে অন্যরকম বিষয়। আর ভেনাস আছেন বর্তমান বিশ্ব টেনিস র‌্যাঙ্কিংয়ের ২৪তম খেলোয়াড় হিসেবে। যে সময়ে টেনিস কোর্টে দাপট দেখাচ্ছেন সেরেনা উইলিয়ামস। ভেনাসের আগে সক্রিয় খেলোয়াড় হিসেবে ৭০০তম ম্যাচ জয়ের কীর্তিটাও যে তার দখলে। গত এপ্রিলে এলিটদের এই ক্লাবে জায়গা করে নিয়েছিলেন সেরেনা। মিয়ামি ওপেনে জার্মানির সাবিনে লিসিকির বিপক্ষে কষ্টার্জিত জয়ের মাধ্যমে টুর্নামেন্টের সেমিফাইনাল নিশ্চিত করার পাশাপাশি বিরল এই কীর্তি গড়েছিলেন। ডব্লিউটিএ ইতিহাসে অষ্টম খেলোয়াড় হিসেবে ৭০০তম ম্যাচ জয় করেছিলেন সেরেনা। আর তার বড় বোন ভেনাস উইলিয়ামস নবম খেলোয়াড় হিসেবে এই কীর্তি গড়েন।

১৪৪২ ম্যাচ জিতে এই তালিকায় শীর্ষে রয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক তারকা মার্টিনা নাভ্রাতিলোভা। তার পরই অবস্থান ক্রিস এভার্টের। ১৩০৯ ম্যাচ জিতে দ্বিতীয় স্থানে অবস্থান করছেন তিনি। নাভ্রাতিলোভা এবং ক্রিস এভার্টের পর অবস্থান স্টেফি গ্রাফের। তার জয় ৯০২ ম্যাচে। ২২ গ্র্যান্ডসøাম জয়ী স্টেফি গ্রাফের পর অবস্থান যথাক্রমে ব্রিটেনের ভার্জিনিয়া ওয়েড (৮৩৯), আমেরিকার লিন্ডসে ডেভেনপোর্টের (৭৫০) এবং স্পেনের এ্যারেনক্সা সানচেজ ভিকারিওর (৭৫৬)। এরপরই ভেনাস উইলিয়ামসের ছোট বোন সেরেনার। টেনিস র‌্যাঙ্কিংয়ের শীর্ষ তারকা বর্তমানে ৭৩৭ ম্যাচ জিতেছেন। ৭০০তম জয়ের পর ভেনাসের মতো সেরেনার অভিমতটাও ছিল একইরকম, ‘এই রেকর্ডের বিষয়ে আমি কিছুই জানতাম না। আমি শুধু নিজের সেরা খেলাটা দেয়ার জন্যই কোর্টে নামি, ইতিবাচক খেলার চেষ্টা করি এবং সবসময়ই ম্যাচ জয়ের লক্ষ্য নিয়েই খেলতে থাকি।’ তার জয়ের এই গতি কখন থামবে সেটাই এখন দেখার অপেক্ষা। কেননা গত সপ্তাহেই চৌত্রিশে পা রাখা সেরেনা উইলিয়ামস এখনও যে টেনিস কোর্টে প্রতিপক্ষের জন্য হুমকির এক নাম।

নির্বাচিত সংবাদ