২২ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

২০ বাণিজ্যিক ব্যাংকের সুদহার ৫ শতাংশের বেশি

অর্থনৈতিক রিপোর্টার ॥ আগস্ট মাসে ঋণের ক্ষেত্রে সুদহার কমে দাঁড়িয়েছে ১১ দশমিক ৫১ শতাংশ। আগের মাসেও যা ছিল ১১ দশমিক ৫৭ শতাংশ। সুদহারে এই নিম্নমুখী প্রবণতায় ঋণ আমানত ও সুদহারের ব্যবধান (স্প্রেড) আরও কমেছে। আগস্ট মাস শেষে ঋণ ও আমনতের গড় সুদহার ৪ দশমিক ৭৭ শতাংশ দাড়িয়েছে। এরই ধারাবাহিকতায় বেসরকারী ব্যাংকগুলোর ঋণ-আমানতের সুদহারও ৫ শতাংশের নিচে নেমে এসেছে। তবে এখনও বেশি বিদেশী ব্যাংকগুলোর স্প্রেড অনেক বেশি। যদিও এই হার ৫ শতাংশের নিচে নামিয়ে আনতে বাংলাদেশ ব্যাংকের কঠোর নির্দেশনা রয়েছে। বৃহস্পতিবার প্রকাশিত বাংলাদেশ ব্যাংকের এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানা গেছে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের পরিসংখ্যানে দেখা যায়, আগস্ট মাসে রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংকগুলো ঋণের ক্ষেত্রে ১০ দশমিক ২৯ শতাংশ হারে সুদ আদায় করেছে। আমানতের বিপরীতে দিয়েছে ৬ দশমিক ৬৯ শতাংশ সুদ। স্প্রেড দাঁড়িয়েছে ৩ দশমিক ০৬ শতাংশীয় পয়েন্ট। বিশেষায়িত ব্যাংকের স্প্রেড সবচেয়ে কম মাত্র ২ দশমিক ১৫ শতাংশীয় পয়েন্ট। আমানতের বিপরীতে দিয়েছে ৭ দশমিক ৯৮ শতাংশ সুদ। এই খাতের ব্যাংকগুলোর ঋণের ক্ষেত্রে ভারিত গড় সুদহার ১০ দশমিক ১৩ শতাংশ দাঁড়িয়েছে। বেসরকারি খাতের ব্যাংকগুলোর স্প্রেড ৫ শতাংশীয় পয়েন্টের নিচে নেমে এসেছে। গত আগস্ট মাসে বেসরকারী ব্যাংকগুলো ঋণের ক্ষেত্রে ১১ দশমিক ৯৬ শতাংশ হারে সুদ আদায় করেছে। আমানতের বিপরীতে দিয়েছে ৬ দশমিক ৯৭ শতাংশ সুদ। স্প্রেড দাঁড়িয়েছে ৪ দশমিক ৯৯ শতাংশীয় পয়েন্ট। তবে বিদেশি ব্যাংকগুলোর স্প্রেড এখনো ৫ শতাংশীয় পয়েন্টের উপরে রয়েছে। বিদেশি ব্যাংকগুলো আমানতের বিপরীতে ৩ দশমিক শতাংশ সুদ দিয়ে ঋণের বিপরীত আদায় করছে ১০ দশমিক ৬১ শতাংশ সুদ। এ খাতের ব্যাংকগুলোর স্প্রেড সবচেয়ে বেশি ৭ দশমিক ৬১ শতাংশীয় পয়েন্ট।