২০ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

শিল্পে উৎপাদনশীলতা বাড়ানোর বিকল্প নেই ॥ রাষ্ট্রপতি

রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ বলেছেন, প্রতিযোগিতামূলক বিশ্বে টিকে থাকতে দেশের সকল খাত বিশেষ করে শিল্প খাতে উৎপাদনশীলতা সর্বোচ্চ পর্যায়ে বাড়ানোর বিকল্প নেই।

রাষ্ট্রপতি জাতীয় উৎপাদনশীলতা দিবস উপলক্ষে বৃহস্পতিবার এক বাণীতে এ কথা বলেন। খবর বাসস’র

ন্যাশনাল প্রোডাকটিভিটি অর্গানাইজেশনের (এনপিও) উদ্যোগে ২ অক্টোবর দেশব্যাপী ‘জাতীয় উৎপাদনশীলতা দিবস’ পালিত হচ্ছে জেনে রাষ্ট্রপতি সন্তোষ প্রকাশ করেন। এ উপলক্ষে তিনি শিল্প-কলকারখানা ও সেবা খাতসহ উৎপাদনের সঙ্গে জড়িত মালিক-শ্রমিক-ব্যবস্থাপকসহ সংশ্লিষ্ট সকলকে আন্তরিক শুভেচ্ছা জানান।

রাষ্ট্রপতি বলেন, জাতীয় অর্থনীতিতে উৎপাদনশীলতা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। উৎপাদনশীলতা দেশের সামগ্রিক অথনৈতিক উন্নয়নের গতিধারাকে ত্বরান্বিত করে। ন্যাশনাল প্রোডাকটিভিটি অর্গানাইজেশন দেশের কলকারখানা ও শিল্প প্রতিষ্ঠানসমূহের উৎপাদনশীলতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে প্রশিক্ষণ ও গবেষণার পাশাপাশি ‘ন্যাশনাল প্রোডাকটিভিটি এ্যান্ড কোয়ালিটি এক্সিলেন্স এ্যাওয়ার্ড’ প্রদানসহ নানা কর্মসূচী বাস্তবায়ন করছে।

তিনি বলেন, বর্তমান প্রতিযোগিতামূলক বিশ্বে টিকে থাকার জন্য যথাযথ পরিকল্পনার মাধ্যমে উৎপাদন উপকরণসমূহের সর্বোচ্চ ব্যবহার নিশ্চিত করে দেশের সকল খাত বিশেষ করে শিল্প খাতে উৎপাদনশীলতা সর্বোচ্চ পর্যায়ে বাড়ানোর বিকল্প নেই। সরকার ২০২১ সালের মধ্যে বাংলাদেশকে একটি মধ্যম আয়ের দেশে পরিণত করতে বদ্ধপরিকর। এ লক্ষ্য অর্জনে এবারের প্রতিপাদ্য নির্ধারণ করা হয়েছে ‘রূপকল্প ২০২১ বাস্তবায়নে প্রয়োজন বর্ধিত উৎপাদনশীলতা’। এ প্রেক্ষাপটে ‘জাতীয় উৎপাদনশীলতা দিবস’ এর গুরুত্ব অত্যধিক।

আবদুল হামিদ বলেন, শিল্প ও সেবাখাতসহ উৎপাদনের সকল স্তরে উৎপাদনশীলতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে মালিক-শ্রমিক-কর্মচারীদের উদ্বুদ্ধ ও উৎসাহিত করতে জাতীয় উৎপাদনশীলতা দিবসের বিভিন্ন কর্মসূচী সহায়ক ভূমিকা পালন করবে বলে আমার দৃঢ় বিশ্বাস।

তিনি জাতীয় উৎপাদনশীলতা দিবস উপলক্ষে নেয়া সকল কর্মসূচীর সার্বিক সাফল্য কামনা করেন।

নির্বাচিত সংবাদ