২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

প্রেসক্লাবে বাংলাদেশ জাতীয় মানবাধিকার পরিষদের সভা

অনলাইন রিপোর্টার॥ আজ শুক্রবার সকালে রাজধানীর জাতীয় প্রেসক্লাবের ভিআইপি লাউঞ্জে ‘ভাবমূর্তি সংকটে বাংলাদেশ উত্তরনের উপায়’ শীর্ষক মতবিনিময় সভার আয়োজন করে বাংলাদেশ জাতীয় মানবাধিকার পরিষদ। সভায় ‘বাংলাদেশে বিদেশি নাগরিকরা আসতে ভয় পাচ্ছে বলে মন্তব্য করেছেন বাংলাদেশ সুপ্রীমকোর্ট আইনজীবী সমিতির সভাপতি অ্যাডভোকেট খন্দকার মাহবুব হোসেন।

তিনি আরও বলেন, ‘সম্প্রতি বাংলাদেশে একজন ইতালীয়ান নাগরিককে নির্মমভাবে হত্যা করা হলো। এ ঘটনার পর থেকে বিদেশি নাগরিকরা বাংলাদেশে আসতে অনীহা প্রকাশ করছেন। আসতে ভয় পাচ্ছেন, এটা নতুন প্রেক্ষাপটও বটে।’

‘দেশে সাধারণ মানুষও সরকারের সন্ত্রাসে আতঙ্কিত। সরকার ক্ষমতাকে চিরস্থায়ী করার জন্য মামালাসহ তরুণ বন্ধুদের হত্যা করছে।’ বলেও তিনি মন্তব্য করেন।

দেশের ভাবমূর্তি সংকটে পড়েছে উল্লেখ করে খন্দকার মাহবুব বলেন, দেশের ভাবমূর্তি ৫ জানুয়ারির একতরফা নির্বাচনের মাধ্যমেই নষ্ট হয়ে গেছে। সরকার যত বাহ‍ানাই করুক না কেন এটাকে আড়াল করতে পারবেনা। যতোদিন মানুষ ভোটের অধিকার ফিরে না পাবে ততোদিন পর্যন্ত দেশের ভাবমূর্তি সংকটে থাকবে।

সভায় যুবদল সভাপতি অ্যাডভোকেট মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল বলেন, স্বাধীনতার চেতনা মৃতপ্রায়। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনুর নেতৃত্বে শেখ মুজিবুর রহমানকে হামলার পরিকল্পনা করা হয়েছিলো। তখন থেকেই আমাদের দেশে ভাবমূর্তির সংকট শুরু হয়েছে।’

তিনি বলেন, ‘দেশে ভাবমূর্তির সংকটের মূলে বর্তমান সরকার। সারাদেশে ইলিয়াস আলীসহ বিএনপির নেতাকর্মীকে হত্যা করা হচ্ছে এতেও বিএনপি জঙ্গিবাদের শিকার। হাসানুল হক ইনুর লোকেরা কুষ্টিয়াতে ৩০ জন আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীকে হামলা করেছে। আওয়ামী লীগ সমর্থিত লোকের ঘর বাড়ির ধান ও পুকুরের মাছ লুট করছে ইনুর লোকেরা। এতেও আমাদের ভাবমূর্তির নষ্ট হচ্ছে।’

আলাল বলেন, ‘ইনুরা জঙ্গিবাদ ও নিখিল বোমার আবিষ্কারক। এরাই দেশে ভাবমূর্তির সংকট সৃষ্টি করেছে। ভাবমূর্তি উত্তরণে তাদেরকে আপনার (শেখ হাসিনা) সঙ্গ থেকে বিতাড়িত করতে হবে।’

সংগঠনের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান প্রফেসর ড. রফিকুল ইসলামের সভাপতিত্বে মতবিনিময় সভায় বক্তব্য রাখেন- সংগঠনের মহাসচিব অধ্যাপক আ স ম মোস্তফা কামাল, স্বাধীনত‍া ফোরামের সভাপতি আবু নাসের মো. রহমতুল্লাহ, এলডিপি’র যুগ্ম-মহাসচিব সাহাদাত হোসেন সেলিম প্রমুখ।