২২ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

পারিবারিক কলহের জের ধরে মা ও শিশুসন্তান হত্যা

জনকণ্ঠ ডেস্ক ॥ পারিবারিক কলহের জেরে সুনামগঞ্জে নিজের মা ও আড়াই বছরের পুত্রসন্তানকে হত্যা করেছে একরাম আলী নামে এক ব্যক্তি। অন্যদিকে বরিশালে দুই বছর বয়সী এক শিশুকে হত্যার অভিযোগে আটক করা হয়েছে তার ফুফুকে। এছাড়া, চাঁদপুরে ৮ বছরের শিশু ও তার মাকে পিটিয়েছে বিল্লাল হোসেন। খবর নিজস্ব সংবাদদাতা ও স্টাফ রিপোর্টারেরÑ

সুনামগঞ্জ ॥ পারিবারিক কলহের জের ধরে স্ত্রীর সঙ্গে ঝগড়া করে জেলার দিরাইয়ে বল্লম দিয়ে আঘাত করে মা ও নিজের আড়াই বছর বয়সের পুত্রসন্তানকে নির্মমভাবে হত্যা করেছে এক পাষ-। পুলিশ ঘাতককে ঘটনাস্থল থেকে আটক করেছে। বৃহস্পতিবার রাত ৮টায় উপজেলার সরমঙ্গল ইউনিয়নের কারারপাড় গ্রামের একরাম আলী এ ঘটনা ঘটিয়েছে।

পুলিশ ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, স্ত্রী পারভিন আক্তারের সঙ্গে ঝগড়া হয় ঘাতক একরামের। এরই এক পর্যায়ে তার মা আমেনা বেগম (৫৫) ও তার আড়াই বছরের শিশুপুত্র অনিককে ধারালো অস্ত্র দিয়ে আঘাত করে হত্যা করে। পারভিনের কোলে থাকা মাহমুদা (৪) বছর বয়সের সন্তানকে হত্যা করতে উদ্যত হয়। আহত মাহমুদা দিরাই উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন রয়েছে।

সরমঙ্গল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান এহসান চৌধুরী জানান, একরাম খারাপ প্রকৃতির লোক। সে বেশ কয়েকবার জেল খেটেছে।

বরিশাল ॥ জেলার হিজলা উপজেলার মেমানিয়া ইউনিয়নের ইন্দুরিয়া গ্রামের ডোবা থেকে শুক্রবার দুপুরে আব্দুল্লাহ (২) নামের এক শিশুর মৃতদেহ উদ্ধার করছে পুলিশ। তাকে হত্যার দায়ে ফুপু মাজেদা বেগমকে আটক করা হয়েছে। আবদুল্লা ওই গ্রামের কামাল হোসেনের পুত্র।

হিজলা থানার এসআই মোঃ শাহ আলম জানান, ঈদের ছুটিতে ঢাকা থেকে পরিবারের সঙ্গে গ্রামের বাড়িতে বেড়াতে এসেছিল। শুক্রবার সকাল আটটার পর থেকে আব্দুল্লাহ নিখোঁজ হয়। বিভিন্নস্থানে খোঁজাখুঁজির পর বাড়ি থেকে আধা কিলোমিটার দূরে পাশের একটি ডোবায় আব্দুল্লার মৃতদেহ দেখে স্বজনেরা থানায় খবর দেয়। ধারণা করা হচ্ছে, পারিবারিক বিরোধের জেরধরে শিশুটিকে হত্যা করা হয়েছে। এ ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকার সন্দেহে নিহতের ফুপু মাজেদা বেগমকে আটক করা হয়।

চাঁদপুর ॥ চাঁদপুর শহরের পালপাড়ায় বন্ধুদের সঙ্গে ঝগড়া করার জন্য কারণে পিতা বিল্লাল হোসেনের নির্যাতনের শিকার হয়েছে শিশুপুত্র জিহাদ মজুমদার (৮)। শুক্রবার দুপুরে শহরের পালপাড়া সিএসডি গোডাউন সংলগ্ন একটি বাড়িতে এ ঘটনা ঘটে।

জিহাদ স্থানীয় লেডিদেহলভী সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ২য় শ্রেণীর ছাত্র। সকালে তার শ্রেণীর ফরহাদ ও বাপ্পনের সঙ্গে বাড়ির সামনে ঝগড়া হয়। ঘরে এসে তার পিতা বিল্লাল জানতে পেরে নারিকেলের শলার ঝাড়ু দিয়ে শিশুটিকে পিটিয়ে পুরো শরীর রক্তাক্ত জখম করে। শিশুটির মা কহিনুর বেগম এগিয়ে এলে তাকে গলায় পাড়া দিয়ে আহত করে। শিশুটির মা শিশুটিকে নিয়ে স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিদের জানাতে এলে শিশুটির জখমের দৃশ্য দেখে শত শত মানুষ জমা হয়। পরে পুলিশকে খবর দিলে পুলিশ শিশু জিহাদ ও তার পিতা-মাতাকে থানায় নিয়ে যায়।