২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

এ মাসেই সাগরে দুটি নিম্নচাপ, যে কোনটি ঘূর্ণিঝড়ে রূপ নিতে পারে

স্টাফ রিপোর্টার ॥ বাতাসে জলীয়বাষ্পের পরিমাণ বেশি এবং সূর্যতাপের কারণে সারাদেশে ভ্যাপসা গরম অনুভূত হচ্ছে বলে জানিয়েছেন আবহাওয়াবিদরা। তারা বলছেন, দেড় সপ্তাহ ধরে খরা অবস্থা এবং সর্বোচ্চ ও সর্বনিম্ন তাপমাত্রার পার্থক্য হ্রাসে গরম বেশি অনুভূত হওয়ার পেছনে ভূমিকা রাখছে। অক্টোবর মাসে স্বাভাবিকের চেয়ে কিছুটা কম বৃষ্টিপাত হতে পারে। এ মাসে বঙ্গোপসাগরে এক থেকে দুটি নিম্নচাপ সৃষ্টি হতে পারে, যার মধ্যে একটি ঘূর্ণিঝড়ে রূপ নিতে পারে। ১৫ অক্টোবরের মধ্যে দক্ষিণ-পশ্চিম মৌসুমী বায়ুপ্রবাহ (বর্ষা) বাংলাদেশ থেকে বিদায় নিতে পারে। বর্তমানে মৌসুমী বায়ু দেশের দক্ষিণাংশে মোটামুটি সক্রিয়, অন্যত্র কম সক্রিয় এবং উত্তর বঙ্গোপসাগরে দুর্বল অবস্থায় বিরাজ করছে। আগামী কয়েক দিনের মধ্যে বৃষ্টি বৃদ্ধি পেতে পারে।

আবহাওয়াবিদরা জানান, আবহাওয়ার অন্যতম উপাদান জলীয়বাষ্প ও সূর্যতাপ। বাতাসে জলীয়বাষ্পের অবস্থাকে বলে আর্দ্রতা। বাতাসে যদি জলীয়বাষ্প তথা আর্দ্রতা বাড়ে তাহলে খুব গরম পড়ে। কারণ সূর্যতাপ বেশি হলে বিভিন্ন জলাশয়ে পানি বাষ্প হয়ে বাতাসে জলীয়বাষ্পের পরিমাণ বাড়িয়ে দেয়। তীব্র গরমে বাতাসে বেশি জলীয়বাষ্প থাকার কারণে আমাদের গায়ের ঘাম বায়ু আর শোষণ করে জলীয়বাষ্প তৈরি করতে পারে না। কারণ ইতোমধ্যে বায়ু জলীয়বাষ্প দ্বারা পরিপূর্ণ। যেহেতু একদিকে সূর্যতাপ তীব্র, অন্যদিকে বাতাসে আর্দ্রতা বেশি অর্থাৎ বাতাসের জলীয়বাষ্প গ্রহণের ক্ষমতা থাকে না। তখন আমাদের গরমে ঘাম হচ্ছে। বাতাসে অবস্থিত পর্যাপ্ত পরিমাণ জলীয়বাষ্প ঠা-া হয়ে মেঘ হয় ও বৃষ্টিপাত ঘটায়। সুতরাং বাতাসে জলীয়বাষ্প তথা আর্দ্রতা বেশি থাকার কারণে গায়ের ঘাম শুকায় না, ভ্যাপসা গরম লাগে ও বৃষ্টি হয়। এজন্য জলীয়বাষ্প বা আর্দ্রতাই দায়ী।

আবহাওয়া অধিদফতর জানায়, মৌসুমী বায়ুর বর্ধিতাংশের অক্ষ উত্তর প্রদেশের পূর্বাংশ, বিহার, পশ্চিমবঙ্গ এবং বাংলাদেশের উত্তরাংশ হয়ে উত্তর-পূর্বদিকে অসম পর্যন্ত বিস্তৃত । এর একটির বর্ধিতাংশ উত্তর বঙ্গোপসাগর পর্যন্ত বিস্তৃত।

সূত্রটি আরও জানায়, আগামী নবেম্বরে দেশে স্বাভাবিক বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা আছে। ওই মাসে বঙ্গোপসাগরে এক থেকে তিনটি নিম্নচাপ সৃষ্টি হতে পারে, যার মধ্যে একটি ঘূর্ণিঝড়ে রূপ নিতে পারে। নবেম্বরে রাতের তাপমাত্রা ক্রমান্বয়ে হ্রাস পাবে।