১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

হতাশ অসি অধিনায়ক স্টিভেন স্মিথ

হতাশ অসি অধিনায়ক স্টিভেন স্মিথ
  • অধিনায়ক হিসেবে প্রথম পরীক্ষার সুযোগ হাতছাড়া, বাংলাদেশ সফর স্থগিত হওয়া দুঃখজনক বললেন ওয়াটসনও

আমাদের জন্য এটা দারুণ সুযোগ ছিল। আমি মনে করি সেই সুযোগটা আমার জন্য এবং নবাগত ক্রিকেটারদের জন্য হাতছাড়া হলো

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ বাংলাদেশ সফরে আসার জন্য মুখিয়েই ছিল অস্ট্রেলিয়া জাতীয় দলের ক্রিকেটাররা। কিন্তু নিরাপত্তা শঙ্কা আছে এমন অজুহাতে ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া (সিএ) শেষ পর্যন্ত সিরিজ স্থগিত ঘোষণা করেছে। এ কারণে বাংলাদেশ জুড়েই হতাশা। ১৬ কোটি মানুষের দেশে প্রায় সবাই ক্রিকেট অন্তঃপ্রাণ। এবার সিরিজ দিয়েই পূর্ণাঙ্গ মেয়াদের অধিনায়ক হিসেবে নিজের মিশন শুরু করতেন অস্ট্রেলিয়ার নেতৃত্বে আসা স্টিভেন স্মিথ। তিনি নিজেও মুখিয়ে ছিলেন নতুন করে গড়া অসি দলকে নিয়ে বাংলাদেশী চ্যালেঞ্জ মোকাবেলার জন্য।

তেমনটাই জানিয়েছিলেন সাবেক হয়ে যাওয়া অধিনায়ক মাইকেল ক্লার্ক ও অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেট দলের প্রধান কোচ ড্যালেন লেহম্যান। কিন্তু শেষ পর্যন্ত সফর স্থগিত হওয়ায় অধিনায়ক স্মিথসহ এরা সবাই হতাশা ব্যক্ত করেছেন। স্মিথ মনে করছেন অধিনায়ক হিসেবে ভালভাবে শুরুর একটি সুযোগ হাতছাড়া হলো তার। টেস্ট থেকে অবসর নেয়া নির্ভরযোগ্য অলরাউন্ডার শেন ওয়াটসনও সিরিজ স্থগিত হওয়াটা দুঃখজনক মনে করেন।

বাংলাদেশ সফরে আসার কথা ছিল অস্ট্রেলিয়া দলের গত ২৮ সেপ্টেম্বর। কিন্তু অস্ট্রেলিয়ার একটি গোয়েন্দা সংস্থা সেদেশের সরকারকে জানায় বাংলাদেশ সফরে অসি ক্রিকেটাররা জঙ্গী হামলার শিকার হতে পারেন এমন শঙ্কা আছে। শেষ পর্যন্ত নির্দিষ্ট সময়ে আসেনি অসিরা, পরবর্তীতে নিরাপত্তা পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করেও সফর স্থগিত করে সিএ। অথচ বাংলাদেশ সফরের জন্য অস্ট্রেলিয়াও দুই টেস্টের সিরিজের জন্য দল ঘোষণা করেছিল। ক্রিকেটাররা প্রস্তুত হচ্ছিলেন টাইগারদের চ্যালেঞ্জ গ্রহণের জন্য। এ বিষয়ে কোচ লেহম্যান বলেন, ‘তরুণরা বেশ উজ্জীবিত। খুবই ভাল হতো যদি আমরা সেখানে এই তরুণদের নিয়ে যেতে পারতাম এবং খেলতে পারতাম। এতে করে নতুনদের জন্য ভাল একটা অনুশীলন হয়ে যেত, আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের স্বাদ পেত অনেকে। আর সেটা ভবিষ্যতে একটি সামঞ্জস্যপূর্ণ সংঘবদ্ধ দল গঠনে সহায়ক ভূমিকা পালন করত।’ লেহম্যানের কথাতেও হতাশার ছোঁয়াটা পাওয়া গেছে। আর অধিনায়ক স্মিথ তো আরও হতাশ। সেটা লুকিয়েও রাখেননি তিনি। কারণ পূর্ণাঙ্গ মেয়াদের অধিনায়ক সবেমাত্র হয়েছেন ২৬ বছর বয়সী এ তরুণ। ক্লার্কের উত্তরসূরি হিসেবে অসি দলকে নেতৃত্ব দেয়া শুরু করতে মুখিয়ে ছিলেন বাংলাদেশ সফরে আসার জন্য। কিন্তু সিরিজ স্থগিত হওয়ার পর তিনি বলেন, ‘আমাদের জন্য এটা দারুণ সুযোগ ছিল। আমি মনে করি সেই সুযোগটা আমার জন্য এবং নবাগত ক্রিকেটারদের জন্য হাতছাড়া হলো। কারণ এটা একেবারেই নতুন একটি দল, নতুন কিছু খেলোয়াড় এসেছে। আমরা সবাই মুখিয়ে ছিলাম সেখানে (বাংলাদেশে) যাওয়ার জন্য এবং খেলার জন্য।’ তবে স্মিথ নিজেও জানালেন ক্রিকেটারদের নিরাপত্তার বিষয়টি সবসময় অগ্রাধিকারযোগ্য। তিনি বলেন, ‘খেলোয়াড়দের নিরাপত্তা এবং নিরাপদ থাকাটা সবচেয়ে বড় চিন্তার বিষয়। এই মুহূর্তে হয় তো সেখানে আমাদের ভ্রমণ করাটা তেমন নিরাপদ ছিল না।’

বাংলাদেশ সফর স্থগিত হওয়ার পর এখন নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে পরবর্তী সিরিজের দিকে মনোযোগ দেবে অসিরা। এ বিষয়ে স্মিথ বলেন, ‘এই মুহূর্তে নিউজিল্যান্ড অনেক ভাল ক্রিকেট খেলছে। তাদের দারুণ একটি দল আছে। তাদের বিপক্ষে লড়তে নামাটা আমাদের জন্য অনেক বড় চ্যালেঞ্জ হতে যাচ্ছে।

আমার মনে হয় আমাদের ক্রিকেটে নতুন প্রজন্ম এসে গেছে। আমরা এখন নিউজিল্যান্ডকে মোকাবেলার জন্য ভালভাবে প্রস্তুতি নেয়ার দিকে মনোযোগী হব।’ কিন্তু নতুন এই প্রজন্মের প্রথম মিশনটাই বরবাদ হয়ে গেল নিরাপত্তা শঙ্কার কারণে। সেজন্য দারুণ হতাশ হয়েছেন সাবেক টেস্ট অলরাউন্ডার ওয়াটসন। তিনি বলেন, ‘এটা বাংলাদেশী ক্রিকেটভক্তদের জন্য দারুণ হতাশার। কিন্তু আমি আশা করব এটা দীর্ঘ সময় স্থগিত থাকবে না। খুব দ্রুতই নিরাপত্তা শঙ্কা কেটে যাবে এবং আমি আশা করব অচিরেই বাংলাদেশ সফরটা হবে। আমার মনে হয় এ সিদ্ধান্ত নেয়াটা কঠিন ছিল সিএর জন্য।’