২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

জমজমাট মাদ্রিদ ডার্বি আজ

জমজমাট মাদ্রিদ ডার্বি আজ

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ স্প্যানিশ লা লীগায় বহুল প্রত্যাশিত মাদ্রিদ ডার্বি আজ। লীগের ফেবারিট দল রিয়াল মাদ্রিদকে আতিথ্য দিবে তাদেরই নগরপ্রতিদ্বন্দ্বী এ্যাটলেটিকো মাদ্রিদ। এস্তাদিও ভিসেন্তে ক্যালডেরন স্টেডিয়ামে ম্যাচের প্রথম মিনিট থেকে শেষ পর্যন্তই বিপুলসংখ্যক সমর্থকে সমাগম থাকবে বলে ফুটবলবোদ্ধাদের ধারণা।

চলতি মৌসুমে এখন পর্যন্ত এই দুই দলই ছয়টি করে ম্যাচ খেলেছে। জয়ও সমান চারটি করে। তবে রিয়াল মাদ্রিদ এখনও পরাজয়ের স্বাদ পায়নি। বাকি দুটি ম্যাচে ড্র করেছে তারা। অন্যদিকে ইতোমধ্যেই দুই ম্যাচে পরাজয়ের স্বাদ পেয়ে গেছে এ্যাটলেটিকো। তারপরও পয়েন্ট টেবিলে খুব বেশি পার্থক্য নেই দুই দলের। ১৪ পয়েন্ট নিয়ে চতুর্থ স্থানে অবস্থান করছে রিয়াল আর ২ পয়েন্ট কম নিয়ে পঞ্চম স্থানে অবস্থান এ্যাটলেটিকো মাদ্রিদের। তাই দুই দলের লড়াইটাও যে জম্পেশ হবে সেটা অনুমিতই। যদিওবা পরিসংখ্যান বলছে এই মুহূর্তে রিয়াল মাদ্রিদই এগিয়ে রয়েছে। তবে ম্যাচটি যেহেতু এ্যাটলেটিকোর মাঠে। সেক্ষেত্রে ছেড়ে কথা বলবে না স্বাগতিকরা। নিজেদের মাঠ আর ভক্ত-অনুরাগীদের সামনে এ্যাটলেটিকো মাদ্রিদ সবসময়ই ফেবারিট। রিয়াল মাদ্রিদের বিপক্ষে তাদের সাম্প্রতিক পারফরমেন্স অনেক ভাল।

কেননা ২০১২-১৩ মৌসুমের পর এ্যাটলেটিকো মাদ্রিদের বিপক্ষে জয় দেখেনি রিয়াল। সর্বশেষ চার ম্যাচের তিনটিতেই হেরেছে রামোস-রোনাল্ডোরা। নগরপ্রতিদ্বন্দ্বীদের বিপক্ষে জয় পাওয়াটা যে কঠিন সেটা বেশ ভাল জানা রিয়ালের সেরা তারকা ক্রিশ্চিয়ানো রোনাল্ডোরও। তাই তো ম্যাচের আগেই সতীর্থদের সতর্ক করে দিয়েছেন তিনি। বলেছেন, ‘ডার্বি আসলে সবসময়ই কঠিন ম্যাচ। তাছাড়া এ্যাটলেটিকোর মাঠে জেতাটা তো আরও জটিল।’ কিন্তু এ্যাটলেটিকোর গত সপ্তাহটা মোটেই ভাল কাটেনি। লা লীগায় ভিয়ারিয়ালের বিপক্ষে ১-০ গোলে হারে তারা।

যে ভিয়ারিয়াল এখন বার্সিলোনা-রিয়াল মাদ্রিদের মতো দলকে টপকিয়ে পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষে অবস্থান করছে। শুধু তাই নয়, ভিয়ারিয়ালের কাছে হারের পর উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লীগেও পরাজয়ের স্বাদ পায় তারা। তাও আবার খর্ব শক্তির দল বেনফিকার কাছে। আর তা মানতে পারছেন না রোনাল্ডো, ‘তারা লীগের শীর্ষসারির দলগুলোর একটি। কিন্তু আমরাও প্রস্তুতি নিয়েই খেলতে নামব। বুধবার এ্যাটলেটিকোর পরাজয়টা আমাকে সত্যিই বিস্মিত করেছে।’

২০১১-১২ মৌসুমে শেষবারের মতো লা লীগার শিরোপা নিজেদের শোকেসে তুলেছিল রিয়াল মাদ্রিদ। এরপরের দুটি মৌসুমে রিয়ালের নগরপ্রতিদ্বন্দ্বী এ্যাটলেটিকো মাদ্রিদ এবং চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী বার্সিলোনা ভাগাভাগি করে নিয়েছে। গত মৌসুমে শুধু লা লীগার কেন কোন ট্রফিই জিততে পারেনি লস ব্ল্যাঙ্কোসরা। যদিওবা ব্যক্তিগত পারফরমেন্সে নৈপুণ্য ছড়িয়েছেন সিআর সেভেন। আর তার পারফরমেন্স এখনও উজ্জ্বল। গত সপ্তাহেই তো রিয়ালের সর্বকালের সর্বোচ্চ গোলদাতা রাউল গঞ্জালেজকে ছাড়িয়ে গেছেন তিনি। সেইসঙ্গে ক্লাব এবং জাতীয় দলের জার্সিতে স্পর্শ করেছেন পাঁচশ (৫০১) গোলের মাইলফলক। রিয়ালের জার্সিতে ৩২৪ গোল করা পর্তুগীজ সুপারস্টার একসময় ক্লাবের দুঃখী ফুটবলার থাকলেও বর্তমানে দারুণ সুখী। এ বিষয়ে নিজের মুখেই তিনি বলেছেন, ‘আমি খুবই সুখী এবং আনন্দিত। এই ক্লাবটিতে যখন আমি যোগ দেই তখন সত্যিই এসব কিছু পরিকল্পনাতেও ছিল না আমার। তবে এটা লুকানোর কিছু নেই যে, আমি রেকর্ড ভাঙতে চাই না। আমি আমার বন্ধু রাউল এবং তারও আগে স্টেফানোর রেকর্ডকে ছাড়িয়ে যেতে পেরে খুবই খুশি। তবে এজন্য কোচ এবং সতীর্থদেরও কৃতজ্ঞতা জানাতে চাই।’

চোট কাটিয়ে এই ডার্বি ম্যাচ দিয়েই আজ রাফায়েল বেনিতেজের দলে ফেরার সম্ভাবনা রয়েছে রিয়ালের অধিনায়ক সার্জিও রামোস এবং উইঙ্গার গ্যারেথ বেলের। তবে উরুর চোটের কারণে এদিন মাঠের বাইরে থাকতে হবে কলম্বিয়ান স্ট্রাইকার জেমস রড্রিগুয়েজকে। এদিকে উরুর চোটে ভোগছেন এ্যাটলেটিকোর মিডফিল্ডার কোকিও। তবে ফর্মহীনতায় ভোগতে থাকা জেমস মার্টিনেজকে আজ সাইডলাইনে বসিয়ে রাখতে পারেন ডিয়েগো সিমিওনে। যদিওবা এ্যাটলেটিকোর অধিনায়ক গাবি ঠিকই জ্যাকসনের পাশে দাঁড়িয়েছেন। তার মতে, ‘গোল করার জন্য রীতিমতোই লড়াই করছে জ্যাকসন। তাই ফর্ম এবং গোল পাওয়ার ক্ষেত্রে তাকে আমাদের সকলেরই সহায়তা করা উচিত।’