২১ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

এমপি লিটনকে গ্রেফতার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি সর্বস্তরের মানুষের

  • দুই আগ্নেয়াস্ত্রের লাইসেন্স বাতিল

নিজস্ব সংবাদদাতা, গাইবান্ধা, ৪ অক্টোবর ॥ এমপি লিটনকে গ্রেফতারের দাবিতে বিক্ষুব্ধ হয়ে উঠেছে সুন্দরগঞ্জের সর্বস্তরের মানুষ। আওয়ামী লীগসহ বিভিন্ন অঙ্গ সংগঠন ও সুশীল সমাজের পক্ষে এমপি লিটনের সংসদ সদস্যপদ, দলীয় পদ বাতিলসহ তাকে গ্রেফতার করে দৃষ্টান্তমূলক ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানানো হয়। এদিকে এমপি লিটনের দু’টি আগ্নেয়াস্ত্রের লাইসেন্স বাতিল করেছে প্রশাসন। শনিবার রাতে এক প্রতিনিধির মাধ্যমে তিন রাউন্ড গুলিসহ একটি পিস্তল এবং ৫০ রাউন্ড গুলিসহ একটি শটগান সুন্দরগঞ্জ থানায় জমা দেন এমপি লিটন।

সুন্দরগঞ্জ পৌর এলাকার বঙ্গবন্ধু ম্যুরাল চত্বরে রবিবার উপজেলা নাগরিক সংগ্রাম পরিষদের উদ্যোগে এমপি লিটনকে অবিলম্বে গ্রেফতার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে মানববন্ধন কর্মসূচী পালিত হয়। মানববন্ধন শেষে সুন্দরগঞ্জ পৌর মেয়র আব্দুল্লাহ আল মামুন, সুন্দরগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি টিআইএম মকবুল হোসেন, সুন্দরগঞ্জ উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার মোঃ এমদাদুল হক বাবু, আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক সাদেকুল ইসলাম, নাগরিক সংগ্রাম পরিষদের সভাপতি বীরেন সরকার মিন্টু, সাধারণ সম্পাদক এটিএম মাসুদুল আলম চঞ্চল, আহসান হাবীব মাসুদসহ নেতৃবৃন্দ লিটনের বিরুদ্ধে জরুরী ভিত্তিতে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানান।

সুন্দরগঞ্জ উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার মোঃ এমদাদুল হক বাবু বলেন, এমপি লিটনের বেআইনী কার্যকলাপের প্রতিবাদ করায় বিনা কারণে তার লোকজন দিয়ে আমার বাড়ি ভাংচুর করা হয়েছে। এ ব্যাপারে প্রতিবাদ সভা এবং থানায় অভিযোগ করেও কোন প্রতিকার পাওয়া যায়নি।

শনিবার রাতে এমপি লিটন এক প্রতিনিধির মাধ্যমে তিন রাউন্ড গুলিসহ পিস্তল এবং ৫০ রাউন্ড গুলিসহ শটগানটি সুন্দরগঞ্জ থানায় জমা দিয়েছেন। বৈধ অস্ত্র অবৈধ কাজে ব্যবহারের অভিযোগে রবিবার পিস্তল ও শটগানের লাইসেন্স বাতিল করেছে জেলা প্রশাসন। জেলা প্রশাসক মোঃ আব্দুস সামাদ রাত ১০টায় লাইসেন্স বাতিলের কথা নিশ্চিত করেন। এদিকে ঘটনার তিন দিন অতিবাহিত হলেও তাকে গ্রেফতার না করায় জনমনে নানা প্রশ্ন উঠেছে। সৌরভের পিতা সাজু মিয়া বাদী হয়ে শনিবার রাত সাড়ে আটটায় সংসদ সদস্য মঞ্জুরুল ইসলাম লিটনের বিরুদ্ধে থানায় মামলা করেন।

লিটনকে গ্রেফতারের বিষয়ে সুন্দরগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ইসরাইল হোসেন বলেন, সংসদ সদস্য লিটনের বিরুদ্ধে দায়েরকৃত মামলা নিয়মকানুন মেনেই গ্রহণ করা হয়েছে। তবে সংসদ সদস্য হওয়ায় প্রয়োজনীয় নিয়মনীতি মেনেই তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। তিনি আরও বলেন, বর্তমানে সংসদ সদস্য ও তার স্ত্রী সুন্দরগঞ্জে নেই। ঘটনার দিন বিকেল থেকে তিনি উধাও হয়েছেন বলে স্থানীয়রা জানান।

এদিকে সরেজমিনে ওই এলাকা পরিদর্শন করে স্থানীয় লোকজনের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, এমপি লিটনের বিরুদ্ধে মিছিল-মিটিং না করার জন্য প্রশাসনের লোকজন নিষেধ করছে। তার ক্যাডাররাও গোপনে স্থানীয় লোকজনকে ভয়ভীতি দেখাচ্ছে বলে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক অনেকেই অভিযোগ করেন।