২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

পদত্যাগের সম্ভাবনা নাকচ করে দিলেন মরিনহো

পদত্যাগের সম্ভাবনা নাকচ করে দিলেন মরিনহো

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ এবার ইংলিশ প্রিমিয়ার লীগের শুরুটা খুব বাজে হয়েছে চেলসির। গতবারের শিরোপাধারীরা এবার কোনভাবেই পেরে উঠছে না। চ্যাম্পিয়ন হিসেবে নিজেদের অবস্থান অনুসারে খেলতে ব্যর্থ হয়েছে স্ট্যামফোর্ড ব্রিজের ক্লাবটি। আর সে কারণে চাপের মধ্যে আছেন দলের কোচ জোশে মরিনহো। বিশেষ করে ঘরের মাঠে শনিবার সাউদাম্পটনের কাছে ৩-১ গোলে বিধ্বস্ত হওয়ার পর পর্তুগীজ এ কোচ তোপের মুখে পড়েছেন। সবমিলিয়ে ৮ ম্যাচের চারটিতেই হার এবং মাত্র দুটি জয় পেয়েছে চেলসি। তবে যেকোন পরিস্থিতির জন্য প্রস্তুত আছেন মরিনহো। তিনি জানিয়েছেন চেলসি চাইলে বরখাস্ত করতে পারে তাকে।

৮ ম্যাচে মাত্র ৮ পয়েন্ট। প্রতিপক্ষের কাছে ১৭ গোল হজম করার পরিবর্তে তারা দিতে পেরেছে ১২ গোল। লীগ টেবিলের শীর্ষে থাকা ম্যানচেস্টার সিটির পয়েন্ট ১৮। ১০ পয়েন্টের বড় ব্যবধান। সবমিলিয়েই দারুণ চাপের মধ্যে আছে স্ট্যামফোর্ড ব্রিজের দলটি। ব্যর্থতার দায়টা নিশ্চিতভাবেই মরিনহোর কাঁধে! তবে সেজন্য যেকোন পরিস্থিতির জন্য প্রস্তুত আছেন তিনি মানসিকভাবে। এ বিষয়ে মরিনহো বলেন, ‘ক্লাব যদি চায় আমাকে বরখাস্ত করবে, তাহলে তাদের সেটা করা উচিত। কারণ আমি পালিয়ে যাব না। ক্লাবের ইতিহাসে এটা সঙ্কটাপন্ন একটি অবস্থা। যদি এখন তারা আমাকে বরখাস্ত করে তবে ইতিহাসে ক্লাবের সেরা ম্যানেজারকে হারাবে তারা। কিন্তু সবচেয়ে বড় কথা হচ্ছে এখন ফলাফলটা খারাপ এবং ম্যানেজারই দোষী। এখনই উপযুক্ত মুহূর্ত লোকজনের দায়িত্ব সম্পর্কে জানা এবং পরস্পরের সঙ্গে যুক্ত থাকা। আমি আমার দায়িত্ব বুঝতে পারছি। খেলোয়াড়দেরও সেটা বুঝতে হবে।’

১৯৭৮ সালের পর এই প্রথম আবার এত বাজেভাবে লীগ শুরু করলো চেলসি। সে বছর ঐতিহ্যবাহী এ ক্লাবটি রেলিগেশনের খাড়ায় পড়ে নেমে গিয়েছিল প্রথম বিভাগে। তবে এরপর থেকে ইংলিশ লীগের সেরা ক্লাবগুলোর একটিতে পরিণত হয়েছে তারা। মরিনহো বলেন, ‘ক্যারিয়ারে কিছু কিছু বাজে ফলাফল ও খারাপ সময়গুলো বাদ দিলে আমি নিজেকে সেরা মনে করি। আমার মধ্যে অনেক বেশি আত্মাভিমান কাজ করে। আর একজন পেশাদার মানুষ হিসেবে এ বিষয়টা আমাকেও অনেক ব্যথিত করে। আর চেলসি ভাল করতে পারছে না এটা আমার জন্য অনেক কষ্টের। এমন কষ্ট আমি দু’বার পেয়েছি। আমি এই ক্লাবটিতে অনেক অনেক পছন্দ করি। এ কারণে আমি অবশ্যই সন্দেহাতীতভাবে এগিয়েই যেতে চাই।’ গত সপ্তাহের মাঝামাঝি চ্যাম্পিয়ন্স লীগে পোর্তোর কাছে ২-১ গোলে পরাজিত হওয়ার পর আবার নিজেদের ঘরে লীগ আসরে তৃতীয়বারের মতো পরাজিত হয়েছে চেলসি। এমনটা চেলসির জন্য দ্বিতীয়বার ঘটলো।

সাউদাম্পটনের বিরুদ্ধে একটি পেনাল্টি পাওনা ছিল বলে মনে করেন মরিনহো। সেটা পেলে ফলাফল অন্যরকমও হতে পারতো। পেনাল্টি না পেয়ে মরিনহো যে আচরণ করেছেন সেজন্য শাস্তির মুখে পড়তে হতে পারে তাকে। এ বিষয়ে তিনি বলেন, ‘রেফারিরা চেলসির পক্ষে সঠিক সিদ্ধান্ত দেয়ার ক্ষেত্রে ভীত ছিল। যখন ১-১ ছিল সে সময় আমাদের জন্য ওই পেনাল্টি অনেক বড় ব্যাপার ছিল। কিন্তু সেটা আমরা পেলাম না। এখন যদি এফএ আমাকে শাস্তি দিতে চায়, দিতে পারে। তারা কখনও অন্য কোন কোচকে শাস্তি দেয় না। আমি মনে করি পেনাল্টিটা আমার খেলোয়াড়দের এবং ক্লাবের ভক্তদের প্রাপ্য ছিল। সেটা না পেয়ে দলের সবাই হতাশ হয়েছে এবং এটাই পরাজয়ের কারণ।’