১১ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

হতাশ মালিক তবে...

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ জয়ের খুব কাছাকাছি চলে গিয়েছিল পাকিস্তান। হারারে স্পোর্টস ক্লাবে শনিবার দ্বিতীয় ওয়ানডেতে অভিজ্ঞ শোয়েব মালিক দুর্দান্ত একটি ইনিংস খেলে তখনও ছিলেন অপরাজিত। ১২ বলে ২১ রানের প্রয়োজন ছিল। কিন্তু সে সময় জিম্বাবুইয়ের ফিল্ডাররা আলোক স্বল্পতার অভিযোগ করলে খেলা বন্ধ হয়ে যায়। ক্যারিয়ারের নবম সেঞ্চুরির কাছাকাছি এবং দলকেও একটি অসম্ভব জয় পাইয়ে দেয়ার অবস্থানে গিয়েছিলেন মালিক। কিন্তু শেষ পর্যন্ত আর খেলা হয়নি, ডাকওয়ার্থ-লুইস পদ্ধতিতে ৫ রানে জয় পায় স্বাগতিক জিম্বাবুইয়ে। তবে খেলা পুরো ৫০ ওভার হলে পাকিস্তান জয় পেত বলে মনে করেন মালিক। সে কারণে দারুণ হতাশা ব্যক্ত করেছেন তিনি। সেইসঙ্গে জানিয়েছেন আইসিসির যে নিয়ম আছে সে কারণে এ পরাজয় মেনে নেয়া ছাড়া উপায় নেই।

সাম্প্রতিক সময়ে দারুণ ফর্মে আছেন মালিক। দুই বছর পর ওয়ানডে দলে ফিরে প্রথম ম্যাচেই গত মে মাসে পাকিস্তান সফররত জিম্বাবুইয়ের বিরুদ্ধে ১১২ রানের দুর্দান্ত ইনিংস উপহার দিয়েছিলেন। তারপর থেকে রানের মধ্যেই আছেন তিনি। জিম্বাবুইয়ের বিরুদ্ধে হারারেতে শনিবার দ্বিতীয় ওয়ানডেতে দলের বিপর্যয়ের সময় হাল ধরেছিলেন। দারুণ খেলে ক্রমেই দলকে নিয়ে যাচ্ছিলেন জয়ের দিকে। ১০৬ বলে ৮ চার ও ১ ছক্কায় ৯৬ রানে অপরাজিত ছিলেন মালিক। কিন্তু ৪৮ ওভার শেষ হওয়ার পরই জিম্বাবুইয়ে ফিল্ডারদের অভিযোগের ভিত্তিতে খেলা বন্ধ করে দেন আম্পায়াররা। যদিও মালিক তখনও আম্পায়ারদের বলছিলেন তিনি প্রস্তুত খেলা চালিয়ে যাওয়ার জন্য। কিন্তু সেটা ধোপে টেকেনি। শেষ পর্যন্ত ডাকওয়ার্থ-লুইস পদ্ধতির শরণাপন্ন হয়ে ম্যাচে জিম্বাবুইয়েকে ৫ রানে জয়ী ঘোষণা করা হয়। তবে খেলা শেষ পর্যন্ত হলে পাকরা জিতে যাওয়ার সম্ভাবনা ছিল। এমনটাই মনে করেন মালিক। তিনি বলেন, ‘আমরা তখন যেভাবে ব্যাটিং করছিলাম। আমি মনে করি খেলাটি আমাদের আয়ত্বের মধ্যেই ছিল। অবশ্যই এ বিষয়ে আইসিসির নির্দিষ্ট কিছু নিয়ম আছে এবং আমাদের সেটা মানতে হবে। আমি মনে করি সর্বোপরি এটা দারুণ একটি খেলা। যদিও দিন শেষে আসলে যেভাবে এটার নিষ্পত্তি ঘটলো তা হতাশাজনক। কিন্তু পেশাদার ক্রিকেটার হিসেবে এবং দেশের প্রতিনিধি হিসেবে সবারই নির্দিষ্ট কিছু নিয়ম-নীতি পালন করতে হবে এবং মানতে হবে।’