২০ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

‘ডোলা রে ডোলা’ ছাপিয়ে সচিন-সচিন

‘ডোলা রে ডোলা’ ছাপিয়ে সচিন-সচিন

অনলাইন ডেস্ক॥ ইন্ডিয়ান সুপার লিগ— দেশের মেগা পেশাদার ফুটবল লিগের উদ্বোধন! নাকি বলিউড অ্যাওয়ার্ডসের রেড কার্পেট? জওহরলাল নেহরু স্টেডিয়ামের ভিআইপি গেটে তখন সত্যি সত্যিই রেড কার্পেট পেতে দেওয়া হয়েছে!

যার উপর দিয়ে হেঁটে একের পর এক ঢুকছেন ওঁরা।

অমিতাভ বচ্চন। দু’আঙুলে ‘ভি’ চিহ্ন দেখাতে দেখাতে অভিষেক বচ্চন। দক্ষিণী শাড়িতে ঐশ্বর্যা রাই। কোলে ছোট্ট আরাধ্যা। জয়া বচ্চন— বলিউডের ‘ফার্স্ট ফ্যামিলি’ বচ্চন পরিবার গোটা! ‘টু স্টেটস’-এর ভোলাভালা ক্রিশ—অর্জুন কপূর। আর ক্রিশ যেখানে তখন তো অবশ্যই থাকবেন আলিয়া ‘অনন্যা’ ভট্ট।

পরক্ষণেই কাট টু ফুটবল! আসলে আজ যে ফুটবল আর বলিউড— দুই বিনোদনের হাত ধরাধরি করে চলার দিন চেন্নাই স্টেশনের গায়ে দাঁড়িয়ে থাকা স্টেডিয়ামে! আলিয়াকে আইএসএল-টু-র উদ্বোধনী মঞ্চে ডাকতে গিয়ে অর্জুন বলে দিলেন, ‘‘যার কথা বলছি সে আর্সেনাল ফ্যান। আর আমি চেলসির। আমাদের মধ্যে ঝগড়া হতেই থাকে।’’

তবে এ সব কিছু যেন পিছনে পড়ে থাকল, যখন স্টেডিয়ামে রজনীকান্ত ঢুকলেন। গ্যালারি ঠাসা দর্শকদের যেন ঈশ্বর দর্শন হওয়ার মতো ব্যাপার ঘটল! কিংবদন্তি দক্ষিণী অভিনেতা ভিআইপি বক্সে গিয়ে বসলেন অমিতাভ আর মুকেশ অম্বানীর পাশে।

ও দিকে তখন ‘কার্ট’-এ চেপে মাঠ প্রদক্ষিণ করতে করতে আবহ জমিয়ে তুলেছেন ‘হ্যাপি নিউ ইয়ার’-এর নন্দু ভিডে—অভিষেক বচ্চন। সেলিব্রিটি স্ত্রীর ঐতিহাসিক স্টেজ শো-র আগে লুঙ্গি পরা অভিষেক তাঁর টিম চেন্নাইয়ানের সমর্থকদের ঘরের মাঠে ‘পাম্প আপ’-এর চেষ্টায় মরিয়া। নিজস্ব স্টাইলে দু’হাত মুঠো করে আকাশে ঝাঁকিয়ে!

আধ ঘণ্টাখানেকের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানকে জনপ্রিয় বলিউডি সিনেমার নাচগানের দৃশ্যের মতো অনেকটা দেখাচ্ছিল। শুরুটা হল অবশ্য ‘স্পিরিট অব সাউথ’ দিয়ে। কুচিপুড়ি, ভারতনাট্যমের মতো দক্ষিনী নাচ দিয়ে তৈরি এক কোলাজ। গোপুরাম, হাতির মুখ— দক্ষিণ ভারতের প্রায় সব পবিত্র প্রতীক ব্যবহৃত হল ‘প্রপ’ হিসেবে। এর পরে আলিয়া তাঁর জনপ্রিয় ট্র্যাক— স্যাটারডে, রাধা, ডিস্কো দিওয়ানে, শানদার-এর সুরের সঙ্গে নাচলেন।

টুর্নামেন্টের আট ফ্র্যাঞ্চাইজি টিমের পরিচয়পর্বের পরে মঞ্চে উঠে শপথ নিলেন উদ্বোধনী ম্যাচের দুই প্রতিপক্ষ এটিকে আর চেন্নাইয়ানের কর্তা-ফুটবলার। অভিষেক বচ্চন, ইলানো উত্সব পারেখ ও হেলডার পস্টিগা। অভিষেক বলে দিলেন, ‘‘শপথ নিলাম ভারতকে আন্তর্জাতিক ফুটবলে আরও ভাল করে তোলার।’’

এর পরে সেই ক্লাইম্যাক্স-মুহূর্ত! যার অপেক্ষায় স্টেডিয়াম থেকে টিভির অগুনতি দর্শক। মা হওয়ার পর ঐশ্বর্যার প্রথম লাইভ শো!

মঞ্চে প্রত্যাবর্তনে প্রথমে তামিল গানের মেডলি। পরক্ষণে ‘ক্লাসিক্যাল অবতারে’ই নাচলেন ‘ধুম’-এর গানে। তার পরেই হয়ে গেলেন ‘দেবদাস’-এর পারো! ‘ডোলা রে ডোলা’-র সঙ্গে নাচলেন। বৌমার নাচ দেখে অমিতাভ-জয়াও হাততালি দিচ্ছেন তখন।

কিছুক্ষণের মধ্যেই ‘ডোলা রে ডোলা’ বদলে গিয়ে গোটা মাঠ জুড়ে ‘স-চি-ন, স-চি-ন’ শব্দব্রহ্ম!

গত বারের রানার আপ কেরল ব্লাস্টার্সের অন্যতম মালিক সচিন তেন্ডুলকর তখন মঞ্চে। হাতে ফুটবল। টুর্নামেন্টের প্রধান আয়োজক নীতা অম্বানির হাতে সেই বল তুলে দিলেন রজনীকান্ত। নীতা অম্বানি এ বার মাইকে বলে উঠলেন ‘লেটস ফুটবল’। আর সঙ্গে সঙ্গে সরকারি ভাবে শুরু হয়ে গেল এ দেশে ফুটবলের ভূরিভোজ।

ফুটবলাররা যখন নামলেন উদ্বোধনী ধামাকার অবশ্য তখনও বাকি। অস্কারজয়ী বলিউডি সুরকার এ আর রহমান সব শেষে মঞ্চে এলেন তাঁর ট্রুপ সমেত। এবং নিজস্ব কায়দায় ‘জনগণমন’ গেয়ে সমাপ্তি টানলেন শনি-সন্ধের গালা শো-র!

সূত্র : আনন্দবাজার পত্রিকা