২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

বাংলাদেশ প্রতিনিধি দলের যোগদান

  • সীমান্ত সম্মেলন

স্টাফ রিপোর্টার, পঞ্চগড় ॥ ভারত-বাংলাদেশের যৌথ জয়েন্ট বাউন্ডারি ওয়ার্কিং গ্রুপের তিন দিনব্যাপী সীমান্ত সম্মেলন ভারতে পশ্চিমবঙ্গের দার্জিলিং জেলা সদরে শুরু হয়েছে। মঙ্গলবার থেকে শুরু এ সম্মেলনে বাংলাদেশের ১৬ সদস্যের প্রতিনিধি দল অংশ নিয়েছেন। সোমবার সকাল সাড়ে ১১টায় লালমনিরহাটের বুড়িমারী স্থলবন্দর দিয়ে বাংলাদেশী প্রতিনিধি দলটি ভারতের চ্যাংরাবান্ধায় প্রবেশ করেন। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব (রাজনৈতিক) আবু হেনা মোহাম্মদ রহমাতুল মুনিম প্রতিনিধি দলটির নেতৃত্ব দিচ্ছেন। অন্য সদস্যরা হলেন পঞ্চগড়, নীলফামারী, লালমনিরহাট, কুড়িগ্রাম জেলা প্রশাসক, বিজিবি কর্মকর্তা ছাড়াও পররাষ্ট্র-স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব, যুগ্ম সচিব, রংপুর বিভাগীয় কমিশনার দিলোয়ার বখত, বিজিবির পরিচালক (অপারেশন) কর্নেল তৌহিদ।

চট্টগ্রামে ভোজ্যতেল বাজারজাত ॥ দুই প্রতিষ্ঠানে সিল

স্টাফ রিপোর্টার, চট্টগ্রাম অফিস ॥ লাইসেন্স ছাড়া ভোজ্যতেল বাজারজাত করায় দুটি প্রতিষ্ঠান সিলগালা করা হয়েছে। সোমবার জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট তামিম আল ইয়ামিনের পরিচালিত ভ্রাম্যমাণ আদালত এই দুই প্রতিষ্ঠান সিলগালা করে। একই আদালত অপরিচ্ছন্ন ও নোংরা পরিবেশে সরিষার তেল উৎপাদন করায় আরেকটি প্রতিষ্ঠানকে ৭০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। জেলা প্রশাসন সূত্রে জানা যায়, লাইসেন্স ছাড়া সয়াবিন তেল বাজারজাত করায় যে দুই প্রতিষ্ঠানকে সিলগালা করা হয়েছে সেগুলো হচ্ছে চট্টগ্রাম নগরীর চাক্তাইয়ের মদিনা এজেন্সি এবং জালালাবাদ নূর সয়াবিন (ভাই ভাই কনজ্যুমার্স ফুড প্রোডাক্টস)। এর মধ্যে মদিনা এজেন্সিকে ৫০ হাজার টাকা জরিমানাও করা হয়। এ ছাড়া অপরিচ্ছন্ন ও নোংরা পরিবেশে সরিষার তেল উৎপাদন করায় ৭০ হাজার টাকা অর্থদ-ে দ-িত প্রতিষ্ঠানটির নাম শাহ মোহছেন আউলিয়া মিল।

মৌ-চাষী হয়রানির প্রতিবাদ

নিজস্ব সংবাদদাতা, নড়াইল, ৫ অক্টোবর ॥ পোকা দমনের নামে কীটনাশক স্প্রে করে মৌমাছি নিধন এবং মৌমাছি পরিবহনের ক্ষেত্রে পুলিশী হয়রানি ও চাঁদাবাজিসহ নানা ধরনের ভোগান্তির শিকার হচ্ছেন মৌচাষীরা। নানামুখী প্রতিকূলতার কারণে মৌচাষে আগ্রহ হারিয়ে ফেলছেন চাষীরা। অনেকে মৌচাষ ছেড়ে অন্য পেশা বেছে নিচ্ছেন। এভাবে চলতে থাকলে দেশে মধু উৎপাদন অনেকাংশে কমে আসবে বলে মন্তব্য করেছেন নড়াইলের মৌচাষীরা।

পাগলা কুকুরের উৎপাত

নিজস্ব সংবাদদাতা, কিশোরগঞ্জ, ৫ অক্টোবর ॥ পাগলা কুকুরের উৎপাতে অতিষ্ঠ হয়ে উঠেছেন কিশোরগঞ্জ পৌরবাসী। পৌরসভার বিভিন্ন মোড়ে মোড়ে দল বেঁধে কুকুরের অবাধ চলা-ফেরায় সাধারণ মানুষের ভোগান্তির যেন শেষ নেই। পৌর কর্তৃপক্ষের কয়েক বছর ধরে কুকুর নিধন কার্যক্রম নেই বললেই চলে। এ কারণে দিন দিন বেওয়ারিশ কুকুরের সংখ্যা বৃদ্ধিসহ উপদ্রব বেড়েই চলেছে। শহরের অধিকাংশ এলাকায় ময়লার ভাগাড়গুলোতে কুকুরের জটলা স্থায়ী রূপ নিয়েছে।