২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

‘তৃণমূল পর্যায় থেকে ফুটবলার খুঁজে বের করতে হবে’

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ ‘যখনই আমাদের যুব ফুটবল ধীরে ধীরে উপরের দিকে ওঠার চেষ্টা করছে, ঠিক তখনই ভুটানের মতো দলের সঙ্গে এমন হতাশাজনক ড্রয়ে আমি বিস্মিত। ম্যাচটি আমি দেখেছি। মনে হয়েছে আমাদের ছেলেদের এ্যাটাকিং সমস্যা রয়েছে। আগের ম্যাচে শ্রীলঙ্কার বিরুদ্ধে যে ধরনের পরিণত ফুটবল খেলেছিল, ভুটানের সঙ্গে তার ছিটেফোঁটাও দেখা যায়নি’- কথাগুলো বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের (বাফুফে) সহসভাপতি এবং বাফুফে ডেভেলপমেন্ট কমিটির চেয়ারম্যান বাদল রায়ের। বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে চলছে ‘এএফসি অনুর্ধ-১৯ চ্যাম্পিয়নশিপ বাছাইপর্ব’-এর ‘এ’ গ্রুপের খেলা। রবিবার অনুষ্ঠিত ম্যাচে ফেভারিট স্বাগতিক বাংলাদেশ দুর্বল প্রতিপক্ষ ভুটানের কাছে হারতে হারতে কোনমতে বেঁচে যায়। ম্যাচটি ড্র হয় ১-১ গোলে। এমন ফলে দেশের ফুটবলপ্রেমীরা স্বভাবতই বিস্মিত ও ক্ষুব্ধ। বাদল রায়কেও তা ছুঁয়ে গেছে। তিনি বলেন, ‘কোচের (সাইফুল বারী টিটু) উচিত ছিল স্ট্র্যাটেজি পরিবর্তন করে দলকে খেলানো। আসলে কোচকেও সেভাবে দোষ দিয়ে লাভ নেই। খেলোয়াড়রা যদি তাদের নিজ নিজ দায়িত্ব পালনে ব্যর্থ হয়, তাহলে কোচের কি-ই বা করার আছে?’

অনুর্ধ-১৯ দলের খেলোয়াড়রা যে ধরনের অ-ধারাবাহিক ও দায়িত্বহীনতার খেলা খেলেছে, তাতে হতাশ হওয়ার যথেষ্ট কারণ রয়েছে বলে মনে করেন বাদল। তিনি বলেন, ‘কেননা এরাই তো আগামীতে সিনিয়র দলে খেলবে। তখন তারা কিভাবে ও কী খেলবে এমন স্কিল নিয়ে?’

বাদল আরও যোগ করেন- শ্রীলঙ্কাকে ২-০ গোলে হারালেও বাংলাদেশ দলের খেলা দেখে মন ভরেনি। কেননা তারা যেভাবে খেলেছিল, তাতে তাদের জেতা উচিত ছিল ৭-০ গোলে!

রবিবারের ড্র ম্যাচ প্রসঙ্গে বাদলের ভাষ্য- ‘ভুটান যখন আগে গোল করে রক্ষণাত্মক খেলা শুরু করল, তখন তাদের এই স্টাইলের বিপরীতে আমাদের ছেলেরা কোন্ স্টাইলে খেলবে, সেটা বুঝতে পারেনি। ফলে কোনমতে ড্র করে জিততে ব্যর্থ হয়েছে। তবে এটাও ঠিক, ভুটান চমৎকার খেলেছে। তাদের খেলায় উন্নতির ছাপ আছে।’

বাংলাদেশ দলের উন্নতির জন্য তাহলে কী করণীয়? বাদলের পরামর্শ- ‘ধারাবাহিক উন্নতির জন্য কোচের আরও চেষ্টা করা উচিত। মানসম্পন্ন খেলোয়াড় পেতে হলে আমাদের তৃণমূল পর্যায় থেকে আরও বেশি পরিমাণে খেলোয়াড় খুঁজে বের করতে হবে।’

বেয়ার্নের বিশাল জয়

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ রবার্ট লেভানডোস্কির জাদু চলছেই। গোলের পর গোল করে চলেছেন পোলিশ এই তারকা। রবিবার রাতেও জার্মান বুন্দেসলিগায় জোড়া গোল করেছেন তিনি। দুই গোল করেছেন টমাস মুলারও। আর তাতেই মিউনিখের এ্যালিয়েঞ্জ এ্যারানায় বেয়ার্ন ৫-১ গোলে উড়িয়ে দেয় বরুসিয়া ডর্টমুন্ডকে।

বেয়ার্নের অপর গোলটি করেন ব্রাজিল বিশ্বকাপের ফাইনালে একমাত্র গোলদাতা মারিও গোয়েটজে। বুন্দেসলিগায় চলমান মৌসুমে শতভাগ জয়ের ধারাবাহিকতা ধরে রেখেছে বর্তমান চ্যাম্পিয়নরা। নিজেদের মাঠে ২৬ মিনিটে জেরোম বোয়াটেংয়ের কাছ থেকে বল পেয়ে অফসাইড ফাঁদ ভেঙ্গে দলকে এগিয়ে নেন মুলার। এর আগ পর্যন্ত একরকম অনুজ্জ্বলই ছিলেন জার্মান মিডফিল্ডার। হেনরিখ মাখিটারিয়ান থিয়াগো আলকান্টারাকে ফাউল করলে পেনাল্টি পায় বেয়ার্ন। ৩৫ মিনিটে পেনাল্টি থেকে গোল করে ব্যবধান ২-০ করেন মুলার। তিন মিনিট পরই ব্যবধান কমায় বরুসিয়া। গনসালো ক্যাস্ট্রোর পাস থেকে গোল করেন উবামইয়োঙ্গে। ফরাসী বংশোদ্ভূত গ্যাবনের এই স্ট্রাইকারের চলতি মৌসুমে বুন্দেসলিগায় এটি দশম গোল।

বিরতির পর শুরুতেই ব্যবধান বাড়ান লেভানডোস্কি। ৪৬ মিনিটে বরুসিয়ার রক্ষণের ভুলের সুযোগে দলের তৃতীয় গোলটি করেন এই পোলিশ স্ট্রাইকার। ৫৮ মিনিটে নিজের দ্বিতীয় ও দলের পাঁচ নম্বর গোল করেন লেভানডোস্কি। লীগে সর্বশেষ চার ম্যাচে এটি তার ১২ নম্বর গোল। ৬৬ মিনিটে দলের পাঁচ নম্বর গোল করেন গোয়েটজে।