২২ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

ছন্দহারা ইভানোভিচ

  • মাহমুদা সুবর্ণা

গত এক দশক ধরেই টেনিস বিশ্বের আলোচিত নাম আনা ইভানোভিচ। কিন্তু সে অনুযায়ী নিজেকে তেমনভাবে মেলে ধরতে পারেননি তিনি। সুদীর্ঘ ক্যারিয়ারে তার বড় সাফল্য কেবল একটি গ্র্যান্ডসøাম জয়। তারপরও টেনিস কোর্টে নিয়মিতই লড়াই করে যাচ্ছেন তিনি। চোট-শঙ্কা আর ফর্মহীনতার মধ্য দিয়েও স্বরূপে ফেরার লক্ষ্যে অটুট এই সার্বিয়ান।

২০০৭ সালে প্রথমবারের মতো টেনিসের পাদপ্রদীপের আলোয় উঠে আসেন ইভানোভিচ। সেবারই প্রথমবারের মতো উইম্বলডনের সেমিফাইনালে ওঠেন তিনি। কিন্তু উইম্বলডনের সেই সেমিতে আমেরিকান তারকা ভেনাস উইলিয়ামসের কাছে হেরে টুর্নামেন্ট থেকে ছিটকে পড়েন ইভানোভিচ। সেই লড়াইয়ে হারলেও বড় মঞ্চ থেকে দারুণ কিছু শিক্ষা পান তিনি। যা পরের বছরেই কাজে লাগাতে সক্ষম হন এই সার্বিয়ান। ২০০৮ সালেই মৌসুমের প্রথম গ্র্যান্ডসøাম টুর্নামেন্ট অস্ট্রেলিয়ান ওপেনের ফাইনালে ওঠেন তিনি। কিন্তু এবারও দুর্ভাগ্য তার। শিরোপা জয়ের লড়াইয়ে রাশিয়ান টেনিসের গ্ল্যামারগার্ল মারিয়া শারাপোভার কাছে হেরে স্বপ্নভঙ্গ হয় তার। সে বছরের প্রথম মেজর টুর্নামেন্টের ফাইনাল জিততে না পারলেও দ্বিতীয়টিতে আর ভুল করেননি তিনি। ফ্রেঞ্চ ওপেনে জিতে নেন ক্যারিয়ারের প্রথম গ্র্যান্ডসøাম। এখন পর্যন্ত সেটাই তার ক্যারিয়ারের প্রথম মেজর শিরোপা।

এরপর গত অর্ধযুগেরও বেশি সময় কোন গ্র্যান্ডসøাম জিততে পারেননি ইভানোভিচ। গত মাসে ইউএস ওপেনের তৃতীয় পর্ব থেকে ছিটকে পড়েন ২৭ বছর বয়সী এই টেনিস তারকা। চলমান চায়না ওপেনে ফেবারিট হিসেবেই কোর্টে নামেন তিনি। জয় দিয়েই টুর্নামেন্টের যাত্রা শুরু করেন টেনিস র‌্যাঙ্কিংয়ের সাবেক নাম্বার ওয়ান এই তারকা। এ মাসের শেষ দিকেই সিঙ্গাপুরে অনুষ্ঠিত হবে মৌসুমের শেষ টুর্নামেন্ট ডব্লিউটিএ ফাইনালস। আর এই ইভেন্টে খেলবেন বিশ্ব টেনিস র‌্যাঙ্কিংয়ের শীর্ষ ৮ তারকা খেলোয়াড়। আর ইভানোভিচের বর্তমান অবস্থান ১৫তম। তাহলে কী ছিটকে পড়তে যাচ্ছেন এই সার্বিয়ান? ভক্ত-অনুরাগীদের সেটাই এখন দেখার অপেক্ষা। তবে সাবেক নাম্বার ওয়ান এই তারকার ডব্লিউটিএ ফাইনালসে খেলার আশা রয়েছে। কেননা বর্তমানে তার পয়েন্ট ৮০০। বেজিংয়ে চলমান চায়না ওপেনে জিততে পারলে তা বেড়ে উন্নীত হবে ১০০০ এ। যা টেনিসের সেরা এই টুর্নামেন্টে খেলার সুযোগ করে দিতে পারে তাকে। আর আনা ইভানোভিচও চান চায়না ওপেনে নিজের সেরাটা ঢেলে দিয়ে ডব্লিউটিএ ফাইনালসের টিকিট নিশ্চিত করতে।

চায়না ওপেনের প্রথম দিনেই কোর্টে নামেন তিনি। শুরুটাও করেন দারুণ জয়ে। টুর্নামেন্টের প্রথম পর্বে তিনি কেসি ডেল্লাকুয়াকে পরাজিত করেন। শনিবার প্রথম পর্বে আনা ইভানোভিচ ৬-৪ এবং ৬-০ গেমে পরাজিত করেন ডেল্লাকুয়াকে। ম্যাচ শেষে নিজের পারফরমেন্সে সন্তুষ্ট প্রকাশ করেছেন সার্বিয়ান তারকা, ‘এই মুহূর্তে আমি ভালই খেলছি। তবে প্রকৃতপক্ষে আপনার লক্ষ্যটাকে ঠিক রেখে এগিয়ে যেতে হবে। সেইসঙ্গে কঠোর অনুশীলন করতে হবে। এই ইভেন্টে আরও কঠিন প্রতিপক্ষ অপেক্ষা করছে। তাই আপনাকে সেই লক্ষ্য নিয়েই খেলতে হবে।’ ইভানোভিচের আসল পরীক্ষাটা চায়না ওপেনের দ্বিতীয় পর্বেই। কেননা সেখানেই যে তার প্রতিপক্ষ ভেনাস উইলিয়ামস। আমেরিকান টেনিসের সাবেক নাম্বার ওয়ান তারকার বর্তমান সময়টা দারুণ কাটছে। গত সপ্তাহেই জিতেছেন উহান ওপেনের শিরোপা। যার তার ক্যারিয়ারের গত পাঁচ বছরের মধ্যে সবচেয়ে সেরা সাফল্য। শুধু তাই নয়, উহান ওপেনেই সাতশ ম্যাচ জয়ের মাইলফলকও স্পর্শ করেন ভেনাস।

তাই ভেনাস উইলিয়ামসের বিপক্ষে তার লড়াইটা যে কঠিন হবে সেটা অনুমিতই। ইভানোভিচ নিজেও স্বীকার করেছেন তা, ‘আমি মনে করি এটা কঠিন এক ম্যাচই হবে। কেননা এই মুহূর্তে সে তার সেরাটা খেলছে। তবে আমার জন্য চ্যালেঞ্জটাও দারুণ হবে। আশা করছি তার বিপক্ষেও আমার সেরাটা ঢেলে দিতে পারব। টেনিস কোর্টে সে বড় হিটার এবং বড় সার্ভারও।’ ইভানোভিচের বিপক্ষে কোর্টের লড়াইয়ে অনেক এগিয়ে ভেনাস। ১১ ম্যাচ খেলে তার ৯ ম্যাচেই জয় পেয়েছেন আমেরিকান তারকা। বাকি দুটিতে জয়ের দেখা পেয়েছেন ইভানোভিচ। তবে চীনে এটাই তাদের প্রথম লড়াই।’ চায়না ওপেনের শিরোপা জিতে ডব্লিউটিএ ফাইনালসে খেলার যোগ্যতা অর্জন করতে পারবেন কিনা তার বড় পরীক্ষাটা ভেনাসের বিপক্ষে ম্যাচের শেষেই অনেকটা সুস্পষ্ট হয়ে যাবে। তবে তারপরও সিঙ্গাপুরে খেলার সুযোগ থাকছে ইভানোভিচের। আর সেটা হতে পারে ইনজুরির সৌজন্যেই। কেননা চোটের মধ্যে ভুগছেন সময়ের সেরা তারকা মারিয়া শারাপোভা। রাশিয়ান এই গ্লামারগার্ল ছাড়াও আরও কয়েকজন খেলোয়াড় চোটের কারণে কোর্টের বাইরে অবস্থান করছেন। আর বিশ্ব টেনিস র‌্যাঙ্কিংয়ের শীর্ষ তারকা সেরেনা উইলিয়ামস তো ইতোমধ্যেই মৌসুমের বাকি সময়টাতে আর না খেলার ঘোষণা দিয়ে দিয়েছেন। এছাড়া দুই দিন আগে নতুন করে ইনজুরিতে পড়েছেন রোমানিয়ার সিমোনা হ্যালেপ। আর চেকপ্রজাতন্ত্রের পেত্রা কেভিতোভা আগে থেকেই ক্লান্ত-অবসন্নতায় ভোগছেন। যা ইভানোভিচের জন্য বয়ে আনতে পারে ডব্লিউটিএ ফাইনালসে খেলার সৌভাগ্য।

এদিকে সুসময়ে ফিরেছেন এ্যাগ্নিয়েস্কা রাদওয়ানস্কা। গত বছরেরর আগস্টে রজার্স কাপে শেষবারের মতো শিরোপা জিতেছিলেন পোল্যান্ডের এই টেনিস তারকা। এরপর দীর্ঘ এক বছরেরও বেশি সময় নিষ্প্রভ ছিলেন পোল্যান্ডের এই টেনিস তারকা। অবশেষে শিরোপা-খরা ঘুচালেন তিনি। সম্প্রতি প্যানপ্যাসিপিক ওপেনের ফাইনাল জিতে ক্যারিয়ারের ১৫তম ডব্লিউটিএ শিরোপা নিজের শোকেসে তুলার মাইলফলক স্পর্শ করলেন তিনি। ফাইনালে দুর্দান্ত ফর্মে থাকা বেলিন্ডা বেনচিচকে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন হওয়ার গৌরব অর্জন করেন রাদওয়ানস্কা। এর আগে ২০১১ সালেও এই টুর্নামেন্টের শিরোপা নিজের শোকেসে তুলেছিলেন তিনি। যে কারণে অসামান্য এই কীর্তি গড়ে দারুণ উচ্ছ্বসিত পোলিশ এই টেনিস তারকা। সেইসঙ্গে র‌্যাঙ্কিংয়েও উন্নতি ঘটেছে তার। দীর্ঘদিন পর বিশ্ব টেনিস র‌্যাঙ্কিংয়ের শীর্ষ দশে উঠে এলেন ২৬ বছর বয়সী এই পোলিশ টেনিস তারকা। তার লক্ষ্য এখন পারফরমেন্সের ধারাবাহিকতা ধরে রাখা। এক বছরেরও বেশি সময় পর চ্যাম্পিন হওয়া পোলিশ তার নিজের উচ্ছ্বাস প্রকাশ করতে গিয়ে বলেন, ‘এটাই প্রথম কোন টুর্নামেন্ট যা আমি দুইবার জিতেছি। তাই আমার কাছে এটা বিশেষ এক অর্জন।’