২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

আমরা সন্তুষ্ট ॥ বিদেশী হত্যাকাণ্ড নিয়ে কূটনীতিকদের সঙ্গে আলোচনা শেষে কোর প্রধানের মন্তব্য

আমরা সন্তুষ্ট ॥ বিদেশী হত্যাকাণ্ড নিয়ে কূটনীতিকদের সঙ্গে আলোচনা শেষে কোর প্রধানের মন্তব্য
  • কূটনীতিক কোরের ডিন গিবসন বলেন, সংশ্লিষ্টরা নিরাপত্তার আশ্বাস দিয়েছেন;###;যুদ্ধাপরাধীদের দুটি রায় সামনে রেখে অস্থিতিশীলতা সৃষ্টির চেষ্টা বলে জানিয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী

কূটনৈতিক রিপোর্টার ॥ জাপান ও ইতালির দুই নাগরিক হত্যার প্রেক্ষিতে সরকারের নেয়া বিভিন্ন পদক্ষেপে সন্তোষ প্রকাশ করেছেন বিদেশী কূটনীতিকরা। তারা সরকারের কাছে এই ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত ও দোষীদের গ্রেফতার দাবি করেছেন। এ ছাড়া তারা দেশের বিদেশী নাগরিকদের জন্য সারাদেশে নিরাপত্তার দাবি জানিয়েছেন। মঙ্গলবার রাষ্ট্রীয় অতিথি ভবন পদ্মায় ঢাকার বিদেশী কূটনীতিকরা সরকারের কাছে এসব দাবি জানান। আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালতে যুদ্ধাপরাধের দুটি রায় সামনে রেখে একটি পক্ষ দেশকে অস্থিতিশীল করার চেষ্টা করছে বলেও বিদেশী কূটনীতিকদের জানিয়েছে সরকার। এদিকে জঙ্গী ও সন্ত্রাসবাদ দমনে বাংলাদেশ সরকারকে সহযোগিতার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন বিদেশী কূটনীতিকরা।

দুই বিদেশী নাগরিককে হত্যার প্রেক্ষিতে তদন্তের অগ্রগতি ও দেশের নিরাপত্তা পরিস্থিতি নিয়ে ঢাকার কূটনীতিকদের ব্রিফিং করে সরকার। ব্রিফিংকালে পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল, পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম, পররাষ্ট্র সচিব এম শহীদুল হক প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

বিদেশী কূটনীতিকদের সঙ্গে ব্রিফিং শেষে পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী উপস্থিত সাংবাদিকদের বলেন, দুই বিদেশী হত্যাকা-ের ঘটনায় বিদেশী কূটনীতিকদের সামনে পরিস্থিতি তুলে ধরা হয়েছে। বিদেশীদের নিরাপত্তায় সরকারের নেয়া পদক্ষেপে সন্তোষ প্রকাশ করেছেন তারা। তবে তারা সারাদেশে আরও নিরাপত্তা চেয়েছেন।

আবুল হাসান মাহমুদ আলী জানান, আমরা কূটনীতিকদের আশ্বস্ত করেছি। তাদের জানিয়েছি সারাদেশেই বিদেশী নাগরিকদের নিরাপত্তার জন্য বিভিন্ন পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে। এছাড়া দুই বিদেশী নাগরিক হত্যার প্রেক্ষিতে দোষীদের দ্রুত আইনের আওতায় আনার জন্য সরকার চেষ্টা করছে।

দুই বিদেশী নাগরিক হত্যায় তদন্তের অগ্রগতির বিষয়ে জানতে চাইলে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, সরকারের পক্ষ থেকে দুটি ঘটনার দ্রুত তদন্ত চলছে। একটু সময় লাগবে। দোষীদের খুঁজে বের করা সম্ভব হবে বলেও জানান তিনি। আবুল হাসান মাহমুদ আলী বলেন, ব্রিফিংকালে জাতিসংঘের কাছ থেকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দুটি আন্তর্জাতিক পুরস্কার লাভ করায় বিদেশী কূটনীতিকরা প্রধানমন্ত্রীকে অভিনন্দন জানিয়েছেন। এছাড়া দেশের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে সরকারের প্রশংসা করেছেন বলেও তিনি জানান।

দুই বিদেশী হত্যাকা-ে আইএস জড়িত রয়েছে কি-না জানতে চাইলে আবুল হাসান মাহমুদ আলী বলেন, এই হত্যাকা-ে আইএস জড়িত থাকার কোন তথ্য সরকার এখনও পায়নি। বৈঠকে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত মার্শা ব্লুম বার্নিকাট জানিয়েছেন, বাংলাদেশে আইএস রয়েছে কি-না মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র যাচাই করছে।

বাংলাদেশে বিদেশী নাগরিকের ওপর আঘাত হানতে পারে এমন তথ্য সরকারের কাছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র আগেই জানিয়েছিল। এ বিষয়ে মন্তব্য জানতে চাইলে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ঠিকই আছে। আসলে সব ঘটনা একইভাবে ঘটানো হয় না। সশস্ত্র ও জঙ্গী গোষ্ঠী বলে একটা। আর করে আরেকটা। এসব বিষয় আমাদের মনে রাখতে হবে।

এদিকে ব্রিফিং শেষে ঢাকায় নিযুক্ত ব্রিটিশ হাইকমিশনার ও কূটনীতিক কোরের ডিন রবার্ট গিবসন সাংবাদিকদের বলেন, বিদেশী নাগরিক হত্যাকা-ের পর চলমান পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনা হয়েছে। বিদেশী হত্যাকা-ের পর বাংলাদেশ সরকার যেসব পদক্ষেপ নিয়েছে তাতে আমরা সন্তুষ্ট।

রবার্ট গিবসন বলেন, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী, পররাষ্ট্র, পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী ও পুলিশের আইজিসহ সংশ্লিষ্টরা নিরাপত্তার বিষয়ে আমাদের আশ্বাস দিয়েছেন। একই সঙ্গে বিদেশী নাগরিক হত্যার ঘটনা তদন্তের বিষয়ে আমরা আলোচনা করেছি। তিনি বলেন, হত্যাকা- সুষ্ঠুভাবে দ্রুত তদন্ত ও ঘাতকদের গ্রেফতার করে আইনের আওতায় আনার আশ্বাস দিয়েছেন তারা। এ বিষয়ে কোন বাধা থাকবে না বলেও সরকারের পক্ষ থেকে আমাদের জানানো হয়েছে।

তিনি বলেন, দেশের নিরাপত্তা পরিস্থিতি নিয়ে পরিপূর্ণ একটি চিত্র আমাদের সামনে তুলে ধরেছে সরকার। আর নিরাপত্তা ব্যবস্থা শুধু কূটনৈতিক জোনেই নয়, সারাদেশে জোরদার করা হয়েছে বলে সরকারের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে। দেশের চলমান নিরাপত্তা পরিস্থিতি নিয়ে আমাদের কাছে পরামর্শও চেয়েছে সরকার। আমরা এ বিষয়ে পরামর্শও দিয়েছি।

ব্রিফিংয়ের বিষয়ে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে পাঠানো এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, দুই বিদেশী হত্যাকা-ের ঘটনায় পররাষ্ট্র ও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় কূটনীতিকদের সামনে ব্রিফিংয়ের আয়োজন করে। ব্রিফিংকালে উপস্থিত পররাষ্ট্র ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী কূটনীতিকদের জানান, বিদেশী নাগরিকদের নিরাপত্তা নিশ্চিতে সারাদেশে নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে। সারাদেশের আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি সরকারের নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। বিদেশী নাগরিকদের নিরাপত্তা নিশ্চিতে প্রশাসনের স্থানীয় পর্যায়ে থেকেও বিশেষ নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। বিদেশী নাগরিকদের নির্বিঘেœ চলাচলে সরকারের তরফ থেকে নিশ্চয়তা দেয়া হয়েছে।

ব্রিফিংকালে পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী বিদেশী কূটনীতিকদের বলেন, সারা বিশ্বে বাংলাদেশের আর্থ-সামাজিক অগ্রগতি যখন প্রশংসিত হচ্ছে তখনই এ দেশকে অস্থিতিশীল হিসেবে চিহ্নিত করার চেষ্টা চলছে। এটা বাংলাদেশের জন্য অতি অগৌরবের বিষয়।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, বিদেশী নাগরিকের হত্যা পেছনের কারণ ব্যাখ্যা করাটা কঠিন কিছু নয়। গত দুই বছর থেকে বাংলাদেশকে একটি পক্ষ অস্থিতিশীল করার জন্য সচেষ্ট রয়েছে। আর এখন আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালতে দুটি যুদ্ধাপরাধের মামলা সামনে রেখে তারাই দেশকে অস্থিতিশীল করার চেষ্টা করছে বলে তিনি জানান।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী ২০১৫ সালের বৈশ্বিক আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি প্রতিবেদন তুলে ধরে বিদেশী কূটনীতিকদের বলেন, বৈশ্বিক প্রতিবেদন অনুযায়ী প্রতিবেশী অনেক দেশের চেয়ে বাংলাদেশের আইনশৃঙ্খলা ও ব্যক্তি নিরাপত্তা সন্তোষজনক। তবে বাংলাদেশের এই দুই বিদেশী নাগরিক হত্যা অনাকাক্সিক্ষত। এই ঘটনার অবশ্যই দ্রুত বিচার হবে।

ব্রিফিংকালে বিদেশী কূটনীতিকদের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান বলেন, দুই বিদেশী নাগরিক হত্যাকা-ের দ্রুত তদন্ত চলছে। সরকার এই হত্যার মোটিভ উদ্ঘাটন ও দোষীদের বিচারের কাঠগড়ায় আনতে সচেষ্ট। এ ছাড়া বিদেশী নাগরিকদের নিরাপত্তায় বিভিন্ন পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে। বিশেষ করে কূটনৈতিক জোনে নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছে বলে জানান তিনি।

দুই মন্ত্রীই বিদেশী কূটনীতিকদের জানিয়েছেন, জঙ্গী ও সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জিরো টলারেন্সে অবস্থান নিয়েছেন। দুই বিদেশী হত্যাকা-ে আন্তর্জাতিক জঙ্গী সংগঠন যে দায় শিকার করেছে বলে বিবৃতি দিয়েছে, সরকারের গোয়েন্দা ও আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী নিরাপত্তা সংস্থা খতিয়ে দেখছে।

ব্রিফিংকালে ঢাকার জাপানী রাষ্ট্রদূত জানিয়েছেন, বিদেশী নাগরিক হত্যাকা-ের বিষয়ে জাপান সরকারের পক্ষ থেকে সহযোগিতা করা হবে। এ ছাড়া অন্যান্য দেশের কূটনীতিকরাও জঙ্গী ও সন্ত্রাসবাদ দমনে সরকারকে সহযোগিতা দিতে প্রতিশ্রুতি দিয়েছে।

রাষ্ট্রীয় অতিথি ভবন পদ্মায় পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল ও পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম কূটনীতিকদের কাছে সাম্প্রতিক পরিস্থিতির বিভিন্ন বিষয় তুলে ধরেন। এ সময় ঢাকার বিভিন্ন দূতাবাসের রাষ্ট্রদূত, হাইকমিশনার ও মিশন প্রধানরা উপস্থিত ছিলেন। এ ছাড়া ব্রিফিংয়ে ঢাকার জাতিসংঘ মিশনসহ বিভিন্ন দাতা সংস্থার প্রতিনিধিরাও উপস্থিত ছিলেন।

শনিবার রংপুরের কাউনিয়া উপজেলার নাসিনিয়ার বিল কচুআলুটারি এলাকায় দুর্বৃত্তদের গুলিতে নিহত হন জাপানের নাগরিক হোসে কোনিও। ওই এলাকায় তার একটি ঘাসের প্রকল্প রয়েছে। সকালে এই প্রকল্প থেকে ফেরার পথে কচুআলুটারি এলাকায় তাকে গুলি করা হয়। এতে ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়। এদিকে ২৮ সেপ্টেম্বর রাজধানীর গুলশানে সিজার তাভেলাকে গুলি করে হত্যা করা হয়। তিনি আইসিসিও কো-অপারেশন নামে একটি আন্তর্জাতিক সংস্থার প্রুফ (প্রফিটেবল অপরচ্যুনিটিজ ফর ফুড সিকিউরিটি) কর্মসূচীর প্রকল্প ব্যবস্থাপক ছিলেন। আন্তর্জাতিক জঙ্গী সংগঠন ইসলামিক স্টেট (আইএস) এ হামলার দায় স্বীকার করেছে বলে জঙ্গী হুমকি পর্যবেক্ষণকারী ওয়েবসাইট ‘সাইট ইন্টেলিজেন্স গ্রুপ’ জানিয়েছে। তবে আইএসের এই দাবির সত্যতা যাচাই হয়নি বলে সরকারের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে।

দুই বিদেশী নাগরিক হত্যাকা-ের ঘটনায় নিরাপত্তা উদ্বিগ্নতায় ছিলেন কূটনীতিকসহ বিদেশী নাগরিকরা। কয়েকটি দূতাবাস এরই মধ্যে রীতিমতো ভ্রমণ সতর্কতা জারি করেছে। এমন পরিস্থিতিতে তাদের নিয়ে ব্রিফিং করে সরকার।