২২ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

মৃত্যুদণ্ডের রায়ের রিভিউ আবেদন করবেন সাকা চৌধুরী

স্টাফ রিপোর্টার ॥ একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধের সময় মানবতাবিরোধী অপরাধের অভিযোগে মৃত্যুদণ্ডের চূড়ান্ত রায় পুনর্বিবেচনায় (রিভিউ) আবেদন করতে যুদ্ধাপরাধী সালাউদ্দিন কাদের (সাকা) চৌধুরী নির্দেশনা দিয়েছেন বলে তার আইনজীবী জানিয়েছেন। সুপ্রিমকোর্টের আপীলের পূর্ণাঙ্গ অনুলিপি প্রকাশের পাঁচ দিন পর মঙ্গলবার গাজীপুরের কাশিমপুর কারাগারে গিয়ে এই বিএনপি নেতার সঙ্গে দেখা করেন তার আইনজীবী মোঃ হুজ্জাতুল ইসলাম খান আল ফেসানী। অন্যদিকে ৩ অক্টোবর রিভিউ আবেদন করতে নিজের আইনজীবীদের বলেছেন মৃত্যুদণ্ডে দণ্ডিত জামায়াতে ইসলামীর সেক্রেটারি জেনারেল আলী আহসান মোহাম্মদ মুজাহিদ। গত শনিবার ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে তার সঙ্গে দেখা করে এসে আইনজীবী শিশির মনির সাংবাদিকদের একথা জানিয়েছেন। এর আগে বৃহস্পতিবার সাকা ও মুজাহিদের আইনজীবীগণ রিভিউ করা হবে মর্মে চফ প্রসিকিউটর গোলাম আরিফ টিপু বরাবর নোটিস ডাকযোগে পাঠিয়েছিলেন। অর্থাৎ সাকা-মুজাহিদ দুইজনই রিভিউ করছেন।

মঙ্গলবার প্রায় আধাঘণ্টা কথা বলে বেরিয়ে এই আইনজীবী সাংবাদিকদের বলেন, শুধু রিভিউ নিয়েই সালাউদ্দিন কাদেরের সঙ্গে তার কথা হয়েছে। তিনি রিভিউ পিটিশনের ব্যাপারে বিভিন্ন দিকনির্দেশনা দেন। সেখানে তার সঙ্গে অন্য কোন বিষয়ে কথা হয়নি। যুদ্ধাপরাধের মামলায় পূর্ণাঙ্গ রায় শোনার পর রিভিউ আবেদনের জন্য ১৫ দিন সময় পান আসামি।

কবে রিভিউ আবেদন করা হবে জানতে চাইলে হুজ্জাতুল বলেন, নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যেই রিভিউ আবেদন করা হবে। আমরা পিটিশনে যে যুক্তি উত্থাপন করব তাতে আদালত সন্তুষ্ট হয়ে আমার ক্লায়েন্টকে বেকসুর খালাস দেবেন। কাশিমপুরে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগার-১-এর সিনিয়র জেল সুপার সুব্রত কুমার বালা সাংবাদিকদের বলেন, কারাগারে জেলারের কক্ষের পাশের ডিভিশনপ্রাপ্ত বন্দীদের সাক্ষাৎকার কক্ষে সালাউদ্দিন কাদের তার আইনজীবীর সঙ্গে একান্তে কথা বলেন। তবে কারা কর্মকর্তারা নজরে রেখেছিল তাদের বৈঠক।

চট্টগ্রামের সাবেক সংসদ সদস্য সালাউদ্দিন কাদের (সাকা) চৌধুরী আগেরদিন তার পরিবারের সদস্যদের সঙ্গেও রিভিউ আবেদন নিয়ে কথা বলেন। গত ১ অক্টোবর মানবতাবিরোধী অপরাধে সালাউদ্দিন কাদেরের (সাকা) চৌধুরী ও জামায়াতের সেক্রেটারি জোরেল আলী আহসান মোহাম্মদ মুজাহিদের ফাঁসির রায় বহাল রেখে দেওয়া রায়ের পূর্ণাঙ্গ অনুলিপি প্রকাশ করে সুপ্রিমকোর্টের আপীল বিভাগ। পরদিন আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল মৃত্যু পরোয়ানা জারি করে কারা কর্তৃপক্ষের কাছে পাঠালে সালাউদ্দিন কাদেরকে তা পড়ে শোনানো হয়। একইভাবে মুজাহিদকে মৃত্যু পরোয়ানা পড়ে শোনানো হয়েছে।

৬৬ বছর বয়সী সালাউদ্দিন কাদের ২০১২ সালের ২৩ ডিসেম্বর থেকে কাশিমপুর কারাগারে রয়েছেন। মানবতাবিরোধী চারটি অভিযোগে মৃত্যুদ-ের রায় হয়েছে সাবেক এই মন্ত্রীর বিরুদ্ধে। রিভিউ আবেদন খারিজ হয়ে গেলে সেই রায়ের অনুলিপি কারাগারে পাঠানো হবে এবং কারা কর্তৃপক্ষ সরকারের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী আসামির ফাঁসি কার্যকর করবে। মৃত্যুদণ্ড কার্যকরের আগে শেষ সুযোগ হিসেবে রাষ্ট্রপতির কাছে প্রাণভিক্ষা চাইতে পারবেন সালাউদ্দিন কাদের।এর আগে মৃত্যুদণ্ড কার্যকর হওয়ার সময় দুই যুদ্ধাপরাধী আব্দুল কাদের মোল্লা ও মোঃ কামারুজ্জামানের কেউ সেই আবেদন করেননি বলে সরকারের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছিল।

মুসলিম লীগ নেতা ফজলুল কাদের চৌধুরীর ছেলে সালাউদ্দিন কাদের সামরিক শাসক এরশাদ আমলে মন্ত্রী ছিলেন। বিএনপি আমলে মন্ত্রীর মর্যাদায় প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়ার উপদেষ্টা ছিলেন চট্টগ্রামের সাবেক এই সংসদ সদস্য। ২০১৩ সালের ১ অক্টোবর আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল সালাউদ্দিন কাদেরের ফাঁসির রায় দিয়েছিল। আপীল শুনানি শেষে গত ২৯ জুলাই দেওয়া রায়ে আপীল বিভাগ ওই মৃত্যুদ- বহাল রাখে।