২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

উত্তপ্ত কটকে অসহায় ভারত

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ ১৭.২ ওভারে ৯২ রানে অলআউট ভারত। ৬ উইকেটের বড় লজ্জার সঙ্গে টানা দুই হারে সিরিজ হাতছাড়া মহেন্দ্র সিং ধোনিদের। ক্রিকেটে এসব হতেই পারে। কিন্তু কটকের বারবাতি স্টেডিয়ামে ‘মোড়ল’ ক্রিকেটের গায়ে কালিমা লেপে দিল দর্শক! হাঙ্গামায় দু-দফা বন্ধ রাখতে হলো ম্যাচ। অথচ এটিকে ‘তেমন কিছু নয়’ বলে উড়িয়ে দিলেন বিশ্বজয়ী সেনাপতি। গ্রেট সুনীল গাভাস্কার আবার চরম ক্ষুব্ধ, বারবাতি স্টেডিয়াম থেকে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট নির্বাসনে দেয়ার দাবি তার। সব মিলিয়ে ভারত-দ. আফ্রিকা সিরিজের দ্বিতীয় টি২০ জুড়ে থাকল আলোচনার অনেক রসদ। দুরন্ত ক্রিকেটের পসরা সাজিয়ে প্রথমবারের মতো ভারতে ছোট্ট ফরমেটে সাফল্য তুলে নিল ফ্যাফ ডুপ্লেসিসের দল। কলকাতার ইডেন গার্ডেনে আনুষ্ঠানিকতার তৃতীয় ম্যাচ বুধবার।

বিশ্বজুড়ে খেলোয়াড়দের নিরাপত্তার বিষয়টি যখন আলোচনার কেন্দ্রে, তখনই ঘটে গেল অনাকাক্সিক্ষত এই ঘটনা। সোমবার দু-দফায় দর্শকদের উচ্ছৃঙ্খল আচরণে ভারত-দ. আফ্রিকা দ্বিতীয় টি২০ বন্ধ থাকল প্রায় ঘণ্টা খানেক। ভারতের ৯২ রানে অলআউট হওয়া মানতে পারেনি স্বাগতিক দর্শকরা। কিন্তু তাই বলে এভাবে হতাশা প্রকাশ করতে হবে? গ্যালারি থেকে বৃষ্টির মতো পানির বোতল ছুড়তে থাকেন। যদিও এই ঘটনায় কেউ আহত হননি। খেলায় হার-জিত মেনে নেয়ার ক্ষেত্রে ভারতীয়দের অসহনশীল আচরণ দেখল ক্রিকেট বিশ্ব। ৯৩ রানের সহজ লক্ষ্যে নেমে শুরুতে ৩ উইকেট হারালেও, এক পর্যায়ে ১৫তম ওভারে ৭৬ রান তুলে নিয়ে জয়ের খুব কাছে পৌঁছে যায় দ. আফ্রিকা। ধৈর্যের বাধ ভাঙে ভারতীয় দর্শকদের। গ্যালারি থেকে শুরু বোতল-বৃষ্টি। প্রথমে ভারতীয় ফিল্ডার, পরে সফরকারী ব্যাটসম্যানদের উদ্দেশ করে। মাইক্রোফোনে কর্তাদের একাধিক অনুরোধেও কর্ণপাত করেনি তারা। চলে ক্রমাগত ক্ষোভ প্রদর্শন। দু-দফায় ৪০ মিনিটের মতো খেলা বন্ধ রাখতে বাধ্য হন আম্পায়াররা। ক্রিকেটাররা মাঠ ছেড়ে ড্রেসিং রুমে ফিরে যান। এরপর যে গ্যালারি বেশি উচ্ছৃঙ্খল ছিল, পুলিশী তৎপরতায় সেটি খালি করে দেয়া হয়। ভারতে ক্রিকেট নাকি ধর্মের মতো। কিন্তু কটকের দর্শকদের আচরণ দেশটিকে অনেক পিছিয়ে দিল। আগামী বছরের শুরুতে টি২০ বিশ্বকাপ হবে বলে এটি আরও নেতিবাচক হয়ে আলোচনায় উঠে এলো। গ্রেট সুনীল গাভাস্কারের চোখে যা ‘বড়’ লজ্জার। সাবেক ভারত অধিনায়ক বলেন, ‘কার নির্দেশে পুলিশ বাউন্ডারির পাশে দাঁড়িয়ে আরামে খেলা দেখছিল? মাঠে যথেষ্ঠ সংখ্যা পুলিশ থাকার পর কোন লাভ হয়নি। এটা আমাদের জন্য লজ্জাজনক। কটকে আগামী কয়েক বছর আন্তর্জাতিক ক্রিকেট ম্যাচ দেয়া উচিত হবে না।’ টি২০ বিশ্বকাপ সামনে রেখে ভারতীয় মিডিয়াও এটিকে নেতিবাচক বলে উল্লেখ করে। তবে অধিনায়ক কথা বলেছেন স্রোতের বিপরীতে, ধোনি বলেন, ‘সত্যি বলতে, নিরাপত্তার দিক থেকে এটি মোটেও হুমকির কিছু ছিল না। দর্শক গ্যালারি থেকে গোটা কয়েক শক্তিশালী মানুষই কেবল মাঠের মধ্যে কিছু ছুড়ে মারতে সক্ষম। আম্পায়াররা মনে করেছেন, কিছুক্ষণের জন্য খেলোয়াড়দের মাঠের বাইরে নেয়াই ভাল, এই যা!’ তিনি আরও যোগ করেন, ‘দর্শকদের প্রতিক্রিয়ার কথা যদি বলেন, আসলে আমরাই তো ভাল খেলিনি। তাই কখনও কখনাও এমনটা হতেই পারে! কেউ একটা বোতল ছুড়লেই হলো, এ নিয়ে এত মাথা ঘামানোর কিছু নেই।

খেলায় ফেরা যাক। ভারতের হয়ে সর্বোচ্চ ২২ রান করে করেন রোহিত শর্মা ও সুরেশ রায়না। বাকি দুই অঙ্ক কেবল রবিচন্দ্রন অশ্বিনের (১১)। প্রোটিয়াদের হয়ে ৪ ওভারে মাত্র ১২ রানের বিনিময়ে ৩ উইকেট নিয়ে ম্যাচসেরা হন দীর্ঘদিন পর ইনজুরি কাটিয়ে ফেরা এ্যালবি মরকেল। ইমরান তাহির ও ক্রিস মরিসের শিকার ২টি করে। জবাবে জেপি ডুমিনি (৩০*), এবি ডি ভিলিয়ার্স (১৯) ও অধিনায়ক ফ্যাফ ডুপ্লেসিসের (১৬) ব্যাটে ভর করে ১৭.১ ওভারে লক্ষ্যে পৌঁছে যায় দ. আফ্রিকা (৯৬/৪)।

নির্বাচিত সংবাদ