১৪ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

জাতীয় ক্রিকেট লীগে ঢাকা বিভাগ রাজশাহীর জয়

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ ওয়ালটন ১৭তম জাতীয় ক্রিকেট লীগের (এনসিএল) প্রথম রাউন্ডে বৃষ্টিতে কোন দলই জয় পায়নি। প্রতিটি ম্যাচ হয়েছে ড্র। দ্বিতীয় রাউন্ডে গিয়ে ঢাকা ও রাজশাহী বিভাগ জয় তুলে নিয়েছে। রংপুরকে ৮ উইকেটে হারিয়েছে ঢাকা। জুনায়েদ সিদ্দিকীর ১২৯ বলে ১২ চার ও ১ ছক্কায় করা ১০২ রানে চট্টগ্রামকে ৭ উইকেটে হারিয়ে দিয়েছে রাজশাহী। মার্শাল আইয়ুবের টানা দুই ইনিংসে সেঞ্চুরিতে খুলনার বিপক্ষে ফলোঅনে পড়েও ম্যাচ ড্র করেছে ঢাকা মেট্রো। বরিশাল-সিলেট ম্যাচটি ড্র হয়েছে।

প্রথম স্তর

মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামে খুলনা-ঢাকা মেট্রো ম্যাচটি ড্র হয়েছে। জয়ের আশায় ছিল খুলনা। কিন্তু সেই আশা আর পূরণ হলো না। মার্শাল আইয়ুব তা পূরণ হতে দিলেন না। প্রথম ইনিংসে ৪৫৫ রান করে খুলনা। এ বিশাল রানের সামনে প্রথম ইনিংসে ২৭১ রানেই গুটিয়ে যায় ঢাকা মেট্রো। মার্শাল ১০৭ ও শরিফুল্লাহ ৬৬ রান না করতে পারলে আরও দ্রুতই অলআউট হতো ঢাকা মেট্রো। এর পরও ফলোঅন এড়াতে পারেনি দলটি। ফলোঅনে পড়ে দ্বিতীয় ইনিংসে খেলতে নামে ঢাকা মেট্রো। প্রথম ইনিংস শেষে খুলনা থেকে ১৮৪ রানে পিছিয়ে থাকে। মনে করা হয়েছিল, ম্যাচটি হারতে চলেছে ঢাকা মেট্রো। কিন্তু মার্শাল আইয়ুব আবার দলের হাল ধরলেন। চতুর্থ দিন শেষ হওয়ার আগ পর্যন্ত উইকেট আঁকড়ে থাকলেন। ২১৬ বল খেলে অপরাজিত ১১৫ রান করলেন। তার এ দুর্দান্ত ব্যাটিংয়ের সঙ্গে আসিফ আহমেদের ৭০ রান যুক্ত হলে দিন শেষ হওয়ার আগে ৫ উইকেটে ২৪৮ রান করে ঢাকা মেট্রো। ম্যাচও হয় ড্র। ম্যাচ সেরা হন মার্শারল।

বগুড়ার শহীদ চান্দু স্টেডিয়ামে হেরেই গেল রংপুর। মোশাররফ হোসেন রুবেলের (৬/৮২) দুর্দান্ত বোলিংয়ে ফলোঅনে পড়ে রংপুর। দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাট করতে নেমেও ভরাডুবি হয়। প্রথম ইনিংসে ২৪৮ রান করার পর দ্বিতীয় ইনিংসে ২৫৫ রান করতেই দম ফুরায়। দ্বিতীয় ইনিংসে মাহবুবুল আলমের (৪/৫১) সঙ্গে শুভগত হোমের (৩/৩৬) বোলিং তোপে পড়ে রংপুর। প্রথম ইনিংসে ঢাকা যে ৪৪৯ রান করে, এ রান অতিক্রম করতেই কষ্ট হয় রংপুরের। শেষ পর্যন্ত দুই ইনিংস মিলিয়ে ঢাকা থেকে ৫৪ রানে এগিয়ে যায় রংপুর। এ রান ২ উইকেট হারিয়ে ৪.২ ওভারেই তুলে ফেলে ঢাকা। টি২০ স্টাইলে ব্যাটিং করেন শুভগত হোম। ১৬ বলে ১ চার ও ৪ ছক্কায় দ্রুত অপরাজিত ৪০ রান করেন। ৫৫ রান করে বড় ব্যবধানেই জয় মিলে যায় ঢাকার।

দ্বিতীয় স্তর

রাজশাহীর শহীদ কামরুজ্জামান স্টেডিয়ামে রাজশাহী-চট্টগ্রামের মধ্যে তীব্র লড়াই হয়েছে। কিন্তু শেষ পর্যন্ত জিতেছে রাজশাহীই। চট্টগ্রাম প্রথম ইনিংসে ৩৮৩ রানের বিশাল স্কোরই গড়ে। রাজশাহীও পাল্টা ৩০৮ রান করে। দ্বিতীয় ইনিংসেই দৃশ্যপট পাল্টে যায়। ৩ উইকেট করে নেয়া সানজামুল ও তাইজুলের দুর্দান্ত বোলিংয়ে ১৮১ রানেই গুটিয়ে যায় চট্টগ্রাম। রাজশাহীর সামনে জিততে ২৫৭ রানের টার্গেট দাঁড় হয়। জুনায়েদ সিদ্দিকীর শতকের সঙ্গে নাজমুল হোসেন শান্তর ৯২ ও সাব্বির রহমান রুম্মনের অপরাজিত ৪৯ রানে ২৬০ রান করে জিতে যায় রাজশাহী।

খুলনার শেখ আবু নাসের স্টেডিয়ামে বরিশাল বিশাল রান করল। মোসাদ্দেক হোসেন সৈকতের অপরাজিত ২০০ রানে ৯ উইকেটে ৫২৭ রান করে ইনিংস ঘোষণা করল। এর পর প্রথম ইনিংসে ইমতিয়াজের ১২৭ রানের সঙ্গে রাজিন সালেহের অপরাজিত ৮৯ রানে যে সিলেট ৪০০ রান করেছে, সেখানেই মূলত খেলা ড্রয়ের দিকে এগিয়ে গেছে। এর পর বরিশাল আবার দ্বিতীয় ইনিংসে খেলতে নেমে ৭ উইকেটে ১৪৬ রান করে। সেই সঙ্গে চতুর্থদিনও শেষ হয়ে যায়। ম্যাচও হয় ড্র।

স্কোর ॥ প্রথম স্তর

খুলনা-ঢাকা মেট্রো ম্যাচ-

খুলনা প্রথম ইনিংস ৪৫৫/১০; মিঠুন ১৮৬; শহীদ ৪/৮৪।

ঢাকা মেট্রো প্রথম ইনিংস ২৭১/১০; মার্শাল ১০৭, শরিফুল্লাহ ৬৬; মেহেদী ৬/৬১ ও দ্বিতীয় ইনিংস ২৪৮/৫; ৮৩ ওভার (মার্শাল ১১৫*, আসিফ ৭০; মেহেদী ২/৭৬)।

ফল ॥ ম্যাচ ড্র। ম্যাচ সেরা ॥ মার্শাল আইয়ুব (ঢাকা মেট্রো)।

ঢাকা-রংপুর ম্যাচ

ঢাকা প্রথম ইনিংস ৪৪৯/১০; নাদিফ ১১১; তানভির ৪/৬২ ও দ্বিতীয় ইনিংস ৫৫/২; ৪.২ ওভার (শুভগত ৪০*)।

রংপুর প্রথম ইনিংস ২৪৮/১০; নাসির ৭৩; মোশাররফ ৬/৮২ ও দ্বিতীয় ইনিংস ২৫৫/১০; ১১১.১ ওভার (সোহরাওয়ার্দী ১২১; মাহবুবুল ৪/৫১, শুভগত ৩/৩৬)।

ফল ॥ ঢাকা ৮ উইকেটে জয়ী। ম্যাচ সেরা ॥ মোশাররফ হোসেন রুবেল (ঢাকা বিভাগ)।

দ্বিতীয় স্তর

রাজশাহী-চট্টগ্রাম ম্যাচ

চট্টগ্রাম প্রথম ইনিংস ৩৮৩/১০; ইরফান ১০২; শাফাক ৩/৫৩ ও দ্বিতীয় ইনিংস ১৮১/১০; ৬৭.২ ওভার (ইয়াসির ৬১, ইরফান ৫৫; সানজামুল ৩/৩৯, তাইজুল ৩/৭২)।

রাজশাহী প্রথম ইনিংস ৩০৮/১০; জুনায়েদ ৮১; জুবায়ের ৪/১০৪ ও দ্বিতীয় ইনিংস ২৬০/৩; ৫৫.৫ ওভার (জুনায়েদ ১০২, নাজমুল ৯২, সাব্বির ৪৯*; জুবায়ের ৩/৯২)।

ফল ॥ রাজশাহী ৭ উইকেটে জয়ী। ম্যাচ সেরা ॥ জুনায়েদ সিদ্দিকী (রাজশাহী বিভাগ)।

বরিশাল-সিলেট ম্যাচ

বরিশাল প্রথম ইনিংস ৫২৭/৯ (ইনিংস ঘোষণা); মোসাদ্দেক ২০০*, ফজলে ১০৩; আবুল ৩/৪৫ ও দ্বিতীয় ইনিংস ১৪৬/৭; ৫৬ ওভার (মোসাদ্দেক ৬১, ফজলে ৪৭; জায়েদ ২/১৪)।

সিলেট প্রথম ইনিংস ৪০০/১০; ইমতিয়াজ ১২৭, রাজিন ৮৯*, জাকির ৮৯; সোহাগ ৪/৮৭।

ফল ॥ ম্যাচ ড্র। ম্যাচ সেরা ॥ মোসাদ্দেক হোসেন (বরিশাল বিভাগ)।