১১ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

কঙ্গনা এ বার বেগম আখতার?

কঙ্গনা এ বার বেগম আখতার?

অনলাইন ডেস্ক ॥ ‘কুইন’ থেকে ‘রিভলবার রানি’। এবং কেতন মেহতার শুটিং চলতে থাকা ছবিতে ঝাঁসির রানি তো বটেই। পর পর ছবিতে এতগুলো রানিকাহিনির সঙ্গে এ বার কঙ্গনা রানাউতের নামের পরে যোগ হতে পারে বেগম তকমাও। সব ঠিক থাকলে বেগম আখতারের বায়োপিকে কঙ্গনাই সেলুলয়েডে ফিরিয়ে আনবেন কিংবদন্তী গায়িকাকে। খবরটা দিচ্ছেন আর এক ডাকসাইটে গায়ক অনুপ জলোটা। তাঁর অনুপ জলোটা প্রোডাকশনস্ এবং অ্যায় মহব্বত প্রোডাকশনস্-এর তরফে মঙ্গলবার জানা গেল কথাটা! অবশ্য শুধুই কঙ্গনা নয়, ছবিতে অভিনয় করবেন ইরফান খানও। তবে আখতারি বাই ফৈজাবাদির আইনজীবী স্বামী ইশতিয়াক আহমদ আব্বাসের ভূমিকাতেই ইরফানকে দেখা যাবে কি না— তা নিয়ে এখনই কিছু জানাচ্ছেন না অনুপ জলোটা। এমনটাও কি হতে পারে, যে কবি আখতারির প্রেমে পাগল হয়ে লিখেছিলেন ‘দিওয়ানা বনানা হ্যায় তো দিওয়ানা বনা দে’, সেই বেহজাদ লখনৌভির চরিত্রে দেখা দেবেন ইরফান?

এ সব আখতারি-প্রেমীদের জল্পনা। বেঁচে থাকার সময়ে তো বটেই, তার পরে আজও যেমন বেগমকে নিয়ে লোকের মুখে নানা গল্প ফেরে, ছবি তৈরির খবরটা চাউর হতেই সেটা ফের শুরু হয়েছে। সাধে কি আর বেগমের শিষ্যা রীতা গঙ্গোপাধ্যায় বলছেন, ‘আম্মি’-র জীবন, গায়কি এবং সেই সময়টা নিয়ে রীতিমতো জমাটি এক ছবি বানানো যায়!

সেই জন্যই ছবি প্রযোজনার আগে অনুপ জলোটা ধরেছিলেন রীতা গঙ্গোপাধ্যায়কে। বেগমকে খুব কাছ থেকে দেখেছেন রীতা। তিনি জানেন, কোন সময়ে কেমন ভাবে মেজাজ আর মর্জি পালটে যেত বেগমের। রীতা জানেন, ভারতীয় মার্গসঙ্গীতের কোন গায়ক-গায়িকার সঙ্গে তুমুল ঝগড়া ছিল তাঁর। এবং এই রীতাই তো জানেন, সবার চোখের আড়ালে কতটা ছেলেমানুষি লুকিয়ে ছিল বেগমের মধ্যে। এতটাই যে রাতে ঘুমানোর আগে একটা মিলনান্তক প্রেমের গল্প না শোনালে মাঝরাতে জলভরা চোখে আদরের ‘বেটি’-কে ঘুম থেকে তুলে গল্প শেষ করতে বলতেন তিনি!

তাহলে রীতা গঙ্গোপাধ্যায়ের সাহায্য নিয়ে কি বেগমের জীবনের পুরোটাই উঠে আসবে সেলুলেয়েডে?

প্রশ্নটা ওঠা মাত্র সাবধান করে দিচ্ছেন রীতা। বলছেন, “এটা ঠিক বায়োপিক নয়। বেগম আখতারকে নিয়ে একটা ছবি— ব্যস, এই পর্যন্তই!”

আর অনুপ জলোটা কী বলছেন? “আমরা ছোট থেকে বেগমের গান শুনে বড় হয়েছি। আর কল্পনায় ভেসেছি তাঁর সম্পর্কে রটা গল্পগুলো নিয়ে। সেই জন্যই তাঁকে নিয়ে একটা ছবি বানানোর ইচ্ছে হয়। তবে রীতা গঙ্গোপাধ্যায়ের সাহায্য ছাড়া চিত্রনাট্যটা লেখা যেত না”, অকপট স্বীকারোক্তি গায়কের!

এত কিছু জানার পরেও কয়েকটা প্রশ্ন বাকি থেকে যায়। ছবির নাম কী হতে চলেছে? ছবিতে কি বেগম আখতারের সুর দেওয়া গজলই ব্যবহার করা হবে? না কি কোনও বিখ্যাত সুরকারের হাতে দেওয়া হয়েছে সেই দায়িত্ব?

অনুপ জলোটা জানাচ্ছেন, ছবির নাম তাঁরা ঠিক করেছেন ‘অ্যায় মহব্বত’। বেগমেরই একটা গান থেকে নেওয়া হয়েছে ছবির নাম— ‘অ্যায় মহব্বত, তেরে আনজাম পে রোনা আয়া’! আর খুব সম্ভবত তরুণ প্রজন্মের কথা ভেবেই ধ্রুপদী সঙ্গীতের চৌহদ্দিতে তাঁরা আটকাতে চাইছেন না ছবির সঙ্গীতকে। সেই জন্য ছবিতে সুরারোপের দায়িত্ব গিয়েছে এ আর রহমানের হাতে।

আর পরিচলনার ভার?

সেই দায়িত্ব পেয়েছেন কেতন মেহতা। তবে, এত কিছু ভালর পরেও ছোট্ট একটা কাঁটা থেকেই যাচ্ছে ছবির কাজে। কঙ্গনা যদি রাজি না হন? তিনি তো এখনও পাকা কথা দেননি!

“আমরা চাইছি, কঙ্গনাই বেগমের চরিত্রে অভিনয় করুন। কথাবার্তা চলছে নায়িকার সঙ্গে। দেখা যাক, কী হয়”, বলছেন অনুপ জলোটা!

সূত্র: আনন্দবাজার পত্রিকা