১২ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

বরগুনায় দু’ শিশুকন্যা ধর্ষণ ॥ বিচারের দাবীতে মানববন্ধন

বরগুনায় দু’ শিশুকন্যা ধর্ষণ ॥ বিচারের দাবীতে মানববন্ধন
  • # তদন্তে আলামত মিলেছে

নিজস্ব সংবাদদাতা, আমতলী, বরগুনা॥ জেলার আমতলী উপজেলায় পৃথক ঘটনায় দু’ শিশু কন্যা ধর্ষণের শিকার হয়। পুলিশ ধর্ষণের আলামত পেয়েছে। এর বিচার ও ধর্ষকদের গ্রেফতারের দাবীতে বুধবার সকালে দক্ষিণ টেপুড়া প্রাথমিক বিদ্যালয় প্রাঙ্গনে শিক্ষক-শিক্ষার্থী, অভিভাবক ও সাধারণ মানুষ ঘন্টাব্যাপী মানববন্ধন করেছে।

জানা গেছে, গত সোমবার উপজেলার দক্ষিণ টেপুড়া গ্রামের প্রথম শ্রেনীর ছাত্রীকে (৭) প্রতিবেশী লোকমান হাওলাদারের ছেলে হাসান (২২) তার ঘরে নিয়ে ধর্ষণ করে। এ ঘটনায় আসামীদের গ্রেফতার ও বিচারের দাবীতে বুধবার সকাল ১০টায় ওই বিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থী, অভিভাবক ও সাধারণ মানুষ ঘন্টাব্যাপী মানববন্ধন করেছে।

এ মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এস আই বশির উদ্দিন জানান, ধর্ষণের ঘটনার সত্যতা পাওয়া গেছে। শিশুটির পরিধানের রক্তমাখা জামা ও প্যান্ট জব্দ করা হয়েছে।

তবে, এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত কোন আসামী গ্রেফতার হয়নি।

অপরদিকে কুকুয়া ইউনিয়নের রায়বালা গ্রামের দিন মজুরের মাদ্রাসা পড়ুয়া দ্বিতীয় শ্রেনীর ছাত্রীকে (১০) ধর্ষন করে একই গ্রামের বখাটে হাসান (২৫), সবুজ (২৬) ও সাদ্দাম (২০)। তারা ওই শিশু কন্যাকে ফুসলিয়ে সবুজের ঘরে নিয়ে যায়। পরে ধর্ষণ করে। এ ঘটনার প্রতিবাদ করতে গেলে ধষির্তার বাবাকে কুপিয়ে জখম করেছে হাসান। এ মামলায় প্রধান আসামী হাসান, সহযোগী সবুজ, হাসানের মা ফাতেমা বেগম ও চাচী নাসিমা বেগমকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এস.আই. রফিকুল ইসলাম পাইক জানান, শিশুটির ডাক্তারী পরীক্ষা সম্পন্ন হয়েছে। রিপোর্ট এখনো পাইনি। তিনি বলেন, গ্রেফতারকৃতদের প্রাথমিক ভাবে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে। তবে, তদন্তের স্বার্থে তা প্রকাশ করা যাচ্ছে না।

আমতলী থানার ভারপ্রাপ্ত পুলিশ কর্মকর্তা পুলক চন্দ্র রায় জানান রায়বালা গ্রামের শিশু ধর্ষণ মামলার প্রধান আসামী হাসান ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেছে। আর দক্ষিণ টেপুড়া গ্রামের শিশু ধর্ষণ ঘটনার আলামত পাওয়া গেছে। আসামী গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে বলে জানান ওসি।