২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

মেঘনায় বিলীন ঘরবাড়ি বাজার

নিজস¦ সংবাদদাতা, লক্ষ্মীপুর ॥ কমলনগরে মেঘনা নদীর ভাঙন ভয়াবহ রূপ নিয়েছে। মেঘনা গর্ভে চলে যাচ্ছে হাট-বাজার, দোকান। ভাঙন চলছে ফলকন লুধুয়া বাজারে। গত সপ্তাহের ভয়াবহ ভাঙনে প্রায় অর্ধশত দোকান ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠান মেঘনা গর্ভে বিলীন হয়েছে। ভেঙে গেছে বাজারের মসজিদ ও ব্রিজসহ বিভিন্ন অবকাঠামো। সরিয়ে নেয়া হয়েছে, মাছঘাট ও বেশকিছু দোকানপাট। ভাঙন আতঙ্কে রয়েছে স্থানীয় ব্যবসায়ী, দোকান মালিক এবং বসবাসরত এলাকাবাসী। গত কয়েক বছরে ভাঙনে বিলীন হয়েছে, রামগতির চরআব্দুল্যা ইউনিয়ন সব ক’টি গ্রাম, সাহেবের হাট, সেবাগ্রাম, কাটাবুনিয়া, আলেকজান্ডারের দক্ষিণ পশ্চিমাঞ্চল, গাবতলি বাজার, সেবাগ্রাম বাজার ও সেখানকার স্কুল কলেজ, মাদ্রাসহ অসংখ্য বাড়িঘর, ৯টি দ্বিতল ও তিনতলা আশ্রায়ণ কেন্দ্র, কমলনগরের চরবসু, চরজগবন্ধু, নতুন সাহেবেরহাট, মাতাব্বরনগর বাজার, সফিকগঞ্জ বাজার, আজু বেপারিরহাট, সায়েদ মুহুরিরহাট, তালতলির হাট, পাতাবুনিয়া বাজার এবং মতিরহাটের উত্তর ও পশ্চিমাঞ্চল। সেখানে ছিল, হাজার হাজার একর দু/তিন ফসলী উর্বর ফসলী জমি, সবজি, ফলদ ও বনজ বাগান। হুমকির মুখে রয়েছে মতিরহাট, কাদিরপ-িতেরহাট, মাতাব্বরহাট, হাজীগঞ্জ বাজার, নবীগঞ্জ বাজার ও নাছিরগঞ্জ বাজার।

সংসদ সদস্য আবদুল্যা আল মামুন জানান, ভাঙ্গন রোধে ৩৭ কি.মি. বাঁধ নির্মাণ করা হবে। বরদ্দকৃত অর্থে ৫.৫ কি.মি. বাঁধের কাজ শুরু হয়েছে। যার প্রায় শতকরা ৬০ভাগ কাজ সফলভাবে শেষ হয়েছে।

ভোলায় ভাঙ্গন রোধের দাবিতে অবরোধ

নিজস্ব সংবাদদাতা ভোলা থেকে জানান, ভোলাকে মেঘনার ভাঙ্গন থেকে দ্রুত রক্ষায় একনেকে জমাকৃত প্রকল্প অনুমোদন ও সেনাবাহিনীর মাধ্যমে সিসিব্লক ফেলে তীর সংরক্ষণের দাবিতে বুধবার দুপুরে ভোলা শহরের সদর রোডে বিশাল মানববন্ধন, বিক্ষোভ মিছিলসহ পানি উন্নয়ন বোর্ড ঘেরাও করেছে। এ সময় ভোলা-চরফ্যাসন আঞ্চলিক মহাসড়ক অবরোধ করা হয়।

ইলিশা ফেরিঘাট ও ভোলা বাঁচাও সংগ্রাম কমিটির আয়োজনে বুধবার বেলা সাড়ে ১১টায় ইলিশা ও রাজাপুর ইউনিয়ন থেকে কয়েক হাজার নারী-পুরুষ শহরের বাংলা স্কুল থেকে কে জাহান মার্কেট সড়ক, বরিশাল দালান সড়কে বিশাল মানববন্ধন করে।

এ সময় মানববন্ধনে একাত্মতা ঘোষণা করে বক্তব্য রাখেন ভোলা পৌরসভার মেয়র মোহাম্মদ মনিরুজ্জামান, ভোলা সদর উপজেলার ভাইস চেয়ারম্যান মোঃ ইউনুস, উত্তর আহ্বায়ক সাঈদ আলী, প্রতিনিধি হাসিব রহমান ও আফজাল হোসেন।

নির্বাচিত সংবাদ