২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

মেডিক্যালে ভর্তি পরীক্ষা বাতিলের দাবিতে আন্দোলন অব্যাহত

স্টাফ রিপোর্টার ॥ মেডিক্যাল ও ডেন্টালের ভর্তি পরীক্ষা বাতিলের দাবিতে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের ওপর লাঠিচার্জ করেছে পুলিশ। বুধবার বিকেল ৩টার দিকে শাহবাগ মোড় থেকে মিছিল নিয়ে কাওরানবাজারের দিকে গেলে পুলিশ শিক্ষার্থীদের ওপরে লাঠিচার্জ করে। এতে শিক্ষার্থীরা ছত্রভঙ্গ হয়ে যান। এ সময় বেশ কয়েকজন শিক্ষার্থী ও পথচারী আহত হন। পরে আন্দোলনরত শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা শহীদ মিনারে গিয়ে অবস্থান নেন।

এদিন দুপুর ১২টার দিকে শাহবাগে দেয়া পুলিশের ব্যারিকেড ভেঙ্গে শিক্ষার্থীরা শাহবাগের মূল সড়কের মাঝখানে অবস্থান নেন। এতে আশপাশের সব রাস্তা বন্ধ হয়ে যায়। সেখানে তিন ঘণ্টা অবস্থানের পর তারা স্বাস্থ্য অধিদফতরের দিকে অগ্রসর হতে গিয়ে পুলিশের বাধা পেয়ে অবস্থান নেন কাওরানবাজারে। এতে দীর্ঘ সময় ধরে বিজয়ী সরণি থেকে ফার্মগেট ও শাহবাগ হয়ে হাইকোর্ট পর্যন্ত সৃষ্টি হয় তীব্র যানজট। এই গুরুত্বপূর্ণ সড়কের আশপাশের সড়ক ও অলিগলিতেও যানজটের প্রভাব পড়ে।

বুধবার দুপুরে শাহবাগ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবু বকর সিদ্দিক সাংবাদিকদের জানান, জনদুর্ভোগের কথা চিন্তা করে আমরা আন্দোলনকারীদের আটকাতে ব্যারিকেড দিয়েছিলাম। কিন্তু তারা ব্যারিকেড ভেঙ্গে শাহবাগে অবস্থান নিয়ে সড়ক বন্ধ করে দেয়। এর ফলে এ এলাকায় তীব্র যানজটের সৃষ্টি হয়। এ সময় হাসপাতালগামী রোগীবাহী যানবাহন পর্যন্ত আন্দোলনকারীদের হাত থেকে ছাড় পায়নি। তীব্র গরমে অতীষ্ঠ হয়ে উঠে যানজটে আটকে পড়া যানবাহনগুলোর ভেতরে থাকা লোকজন।

বিকেলে শাহবাগ থেকে শিক্ষার্থীদের একটি মিছিল মহাখালী স্বাস্থ্য অধিদফতরের দিকে রওনা দেয়। হোটেল রূপসী বাংলার সামনে প্রথমে একটি ব্যারিকেড ভেঙ্গে দিয়ে কারওয়ানবাজারের দিকে এগোয় তারা। কারওয়ানবাজার মোড় অতিক্রম করার সময় পুলিশ আবারও বাধা দেয়। পরে শিক্ষার্থীরা রাস্তায় শুয়ে পড়েন। পরে শিক্ষার্থীদের রাস্তা থেকে সরিয়ে দিতে লাঠিচার্জ করা হয়। এতে বেশ কয়েকজন শিক্ষার্থীসহ পথচারীরা আহত হন।

তবে সাংবাদিকদের কাছে লাঠিচার্জের অভিযোগ অস্বীকার করে তেজগাঁও থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাজহারুল ইসলাম বলেন, আসলে ঘটনা এ রকম নয়। ওরা (আন্দোলনকারীরা) সোনারগাঁও মোড়ে এলে আমরা বুঝিয়ে-শুনিয়ে তাদের ফেরত পাঠিয়েছি।

এদিকে শিক্ষার্থীদের আন্দোলনে একাত্মতা প্রকাশ করেছেন প্রগতিশীল ছাত্র জোট ও সাম্রাজ্যবাদবিরোধী ছাত্র ঐক্যসহ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় (ঢাবি) এবং ঢাকা মেডিক্যাল কলেজসহ বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা। ক্লাস বর্জন এবং আন্দোলনে সংহতি প্রকাশ করে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের সঙ্গে শাহবাগে অবস্থান নেন অনেক সাধারণ শিক্ষার্থী।

ঢাবিতে দুই জোটের ধর্মঘট ॥ লাগাতার প্রশ্ন ফাঁস বন্ধ, ফাঁস হওয়া প্রশ্নে অনুষ্ঠিত মেডিক্যাল ও ডেন্টালের ভর্তি পরীক্ষা বাতিল করে আবার পরীক্ষা নেয়া, প্রশ্ন ফাঁসের সঙ্গে জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি এবং আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের ওপর পুলিশী নির্যাতনের বিচারের দাবিতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে (ঢাবি) ধর্মঘট কর্মসূচী পালন করেছে প্রগতিশীল ছাত্র জোট ও সাম্রাজ্যবাদবিরোধী ছাত্র ঐক্য।

বুধবার সকাল সাড়ে ৬টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের কার্জন হল, কলা ভবন, সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদ ও ব্যবসায় অনুষদের গেটে তালা লাগিয়ে দেন নেতাকর্মীরা। পরে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন তালাগুলো ভেঙ্গে ফেলে। বিশ্ববিদ্যালয়ের কলা ভবনের মূল ফটকে সকাল ৭টা থেকে অবস্থান নেন ধর্মঘট আহ্বানকারীরা। পরে সকাল সাড়ে ৯টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাসে একটি বিক্ষোভ মিছিল বের করেন তারা। মিছিলটি বিশ্ববিদ্যালয়ের কলা ভবনের মূল ফটক থেকে শুরু হয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের গ্রন্থাগার হয়ে আবার কলা ভবনের মূল ফটকের সামনে এসে সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।