২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

ব্রাজিল আর্জেন্টিনা উরুগুয়ের মিশন শুরু

ব্রাজিল আর্জেন্টিনা উরুগুয়ের মিশন শুরু

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ অবশেষে দোয়ারে উপস্থিত কাক্সিক্ষত সেই ক্ষণ। আজ রাত থেকে শুরু হয়ে যাচ্ছে ২০১৮ রাশিয়া বিশ্বকাপের দক্ষিণ আমেরিকা অঞ্চলের বাছাইপর্ব। ফুটবল বিশ্বের সব কোনায় কোনায় জনপ্রিয় হলেও লাতিন অঞ্চলের কদর অনেকটাই। সেই নান্দনিক ফুটবলশৈলী দেখার অপেক্ষায় এখন ফুটবলবিশ্ব।

উরুগুয়ে-বলিভিয়ার ম্যাচ দিয়ে শুরু হচ্ছে দক্ষিণ আমেরিকা অঞ্চলের বাছাইপর্ব। বাংলাদেশ সময় আজ রাত ২টায় শুরু হবে ম্যাচটি। কলম্বিয়া-পেরু ম্যাচটি মাঠে গড়াবে রাত ২টা ৩০ মিনিটে। রাত ৩টায় লড়বে ভেনিজুয়েলা-প্যারাগুয়ে। এই তিন ম্যাচের পরপরই মাঠে গড়াবে সবচেয়ে আকাক্সিক্ষত ম্যাচ দুটি। অর্থাৎ আর্জেন্টিনা ও ব্রাজিলের খেলা। সময়ের তারতম্যের কারণে ম্যাচ দুটি বাংলাদেশ সময় শুক্রবার ভোরে অনুষ্ঠিত হবে। নিজেদের প্রথম ম্যাচে ব্রাজিলের প্রতিপক্ষ স্বাগতিক চিলি। ম্যাচটি শুরু হবে ভোর ৫টা ৩০ মিনিটে। আর সকাল ৬টায় বিশ্বকাপ ও কোপা আমেরিকার রানার্সআপ আর্জেন্টিনার প্রতিপক্ষ ইকুয়েডর।

তবে ফুটবলপ্রেমীদের আপসোস, প্রথম দিকে তারা বঞ্চিত হচ্ছেন দুই চির প্রতিদ্বন্দ্বী আর্জেন্টিনা ও ব্রাজিলের দুই সুপারস্টার লিওনেল মেসি ও নেইমারের খেলা দেখা থেকে। ইনজুরির কারণে মেসি ও নিষেধাজ্ঞার কারণে নেইমার খেলতে পারছেন না। রাশিয়া বিশ্বকাপে খেলার যোগ্যতা অর্জনের দীর্ঘ পথে বর্তমান বিশ্ব ফুটবলের অন্যতম দুই সেরা তারকা ছাড়াও খেলতে পারছেন না উরুগুয়ে লুইস সুয়ারেজ ও এডিনসন কাভানি এবং কলম্বিয়ার জেমস রড্রিগুয়েজের মতো তারকারা।

বিশ্ব ফুটবলের দুই পরাশক্তি ব্রাজিল ও আর্জেন্টিনা নিজেদের অঞ্চলের সবচেয়ে বড় টুর্নামেন্ট কোপা আমেরিকার দুঃসহ স্মৃতি ভুলে নতুন করে বিশ্বকাপ বাছাইপর্ব মিশন শুরু করার অপেক্ষায়। ব্রাজিল, আর্জেন্টিনা, উরুগুয়েকে পেছনে ফেলে চলতি বছর হওয়া কোপা আমেরিকা শিরোপা জয় করে স্বাগতিক চিলি। প্যারাগুয়ের কাছে হেরে কোয়ার্টার ফাইনালেই সেলেসাওদের কোপা আমেরিকা মিশন শেষ হয়ে যায়। গত বছর ঘরের মাঠে বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে জার্মানদের কাছে বিধ্বস্ত হওয়ার দুঃসহ স্মৃতি থেকে এখনও বেরিয়ে আসতে পারেনি কার্লোস দুঙ্গার দল। কোপা আমেরিকায় সেই স্মৃতি ভোলার একটি সুযোগ আসলেও তা কাজে লাগাতে পারেনি সেলেসাওরা। অন্যদিকে ফাইনালে চিলির কাছে টাইব্রেকারে হেরে আর্জেন্টিনাকে রানার্সআপ হয়েই সন্তুষ্ট থাকতে হয়। বিশ্বকাপের ফাইনালেও জার্মানদের কাছে অতিরিক্ত সময়ের একমাত্র গোলে হেরে হতাশ হয়েছিল মেসির দল। ১৯৯৩ সালের পরে বড় কোন টুর্নামেন্টে শিরোপাবিহীন আর্জেন্টাইনরা কোনভাবেই নিজেদের প্রমাণ করতে পারছে না।

এসব ব্যর্থতা ও গ্লানি ভুলে নতুনভাবে বিশ্বকাপে মিশন শুরু করতে বদ্ধপরিকর দু’দলই। এই লক্ষ্যে ব্রাজিল স্বাগতিক চিলির বিপক্ষে খেলতে দেশটির রাজধানী সান্টিয়াগোতে অবস্থান করছে। আর আর্জেন্টিনা নিজেদের মাঠ বুয়েনস ইয়ার্সে ইকুয়েডরের বিপক্ষে খেলার অপেক্ষায়। কোপা আমেরিকার সাফল্যে চিলি ফেবারিট হলেও ইতিহাস অবশ্য ব্রাজিলের পক্ষেই কথা বলছে। বিশ্বকাপের বাছাইপর্বে মাত্র একবারই চিলির কাছে হেরেছে পেলের দেশ। ২০০২ সালের ওই ম্যাচে সেলেসাওরা ৩-০ গোলে হেরেছিল। ওই পরাজয়ের পর ১৪ ম্যাচে ব্রাজিল ১২ জয়ী হয়েছে ও পরাজিত হয়েছে একটিতে। শুধু তাই নয়, গত মার্চে লন্ডনে প্রীতি ম্যাচে চিলিয়ানদের বিপক্ষে ১-০ গোলে জয় পায় ব্রাজিল।

ইনজুরি আক্রান্ত লিভারপুল তারকা ফিলিপ কাউটিনহোর পরিবর্তে দীর্ঘদিন পর জাতীয় দলে ফেরা অভিজ্ঞ কাকার সামনে ইতিহাস গড়ার হাতছানি। ম্যাচটি সামনে রেখে তিনি বলেন, প্রতি ম্যাচেই নিজস্ব কিছু ইতিহাস থাকে। সময়ের সঙ্গে অনেক কিছুই পাল্টে যায়। মূল কথা হচ্ছে আমরা যেখানেই চিলিকে মোকাবেলা করেছি সবসময়ই ভাগ্য আমাদের সহায় ছিল। আর মাত্র দুই গোল করলেই স্বদেশী কিংবদন্তি রোমারিও ও জিকোকে ছাড়িয়ে যাবেন কাকা। তার সামনে ব্রাজিলের হয়ে বিশ্বকাপ বাছাইপর্বে সর্বোচ্চ গোলদাতা হওয়ারও হাতছানি। এ প্রসঙ্গে কাকা বলেন, ব্রাজিলের হয়ে বিশ্বকাপ বাছাইপর্বে সর্বকালের সর্বোচ্চ গোলদাতা হতে পারাটা বিশেষ কিছু। লক্ষ্য পূরণে আর দুটি গোল করতে হবে। আমাদের ফুটবল ইতিহাসে অনেক কিংবদন্তি আছেন। সবাইকে ছাড়িয়ে যেতে পারাটা আমার ক্যারিয়ারে বিশেষ উপলক্ষ হয়ে থাকবে। ২০০২ বিশ্বকাপ জয়ী এই মিডফিল্ডার আরও বলেন, ২০১০ বিশ্বকাপ বাছাইপর্ব থেকেই এ রেকর্ডে চোখ রাখছি। আমি জানি, আর মাত্র দুই গোল দরকার। কিন্তু পরবর্তীতে নেইমার ঠিকই সবাইকে ছাড়িয়ে যাবে। তার সামনে এখনও লম্বা ক্যারিয়ার পড়ে আছে। তাকে দিয়েই এটি সম্ভব।

চিলির বিপক্ষে ম্যাচ নিয়ে ব্রাজিলিয়ান ডিফেন্ডার ডেভিড লুইজ বলেন, চিলির বিপক্ষে যেকোন ম্যাচই বেশ কঠিন। তবে আমরা জেতার বিষয়ে বদ্ধপরিকর।