২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

আশাবাদী পল ফারব্রেস

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ আরব আমিরাতে ২০১২ সালে পাকিস্তানের বিপক্ষে সর্বশেষ টেস্ট সিরিজ খেলেছিল ইংল্যান্ড। চার ম্যাচের সেই সিরিজটি অবশ্য ইংলিশদের কাছে দুঃস্বপ্নই হয়ে রয়েছে। সিরিজের সব ম্যাচে হেরে ‘হোয়াইটওয়াশের’ লজ্জা পেতে হয়েছিল। গতবারের দুঃস্বপ্ন ভুলতে এবার ইংল্যান্ড ক্রিকেট দলের প্রস্ততিটা বেশ ভালই। সম্প্রতি অস্ট্রেলিয়াকে ৩-২এ হারিয়ে ঐতিহাসিক এ্যাশেজ ট্রফি পুনরুদ্ধার করেছে এ্যালিস্কার কুকের দল। ব্যাটিং শক্তি বাড়াতে পরামর্শক হিসেবে নিয়োগ দেয়া হয়েছে সাবেক শ্রীলঙ্কান অধিনায়ক মহেলা জয়াবর্ধনেকে। সব মিলিয়ে তারুণ নির্ভর দল নিয়ে এবার ভিন্ন ইতিহাস রচনা করতে চান তারা। সহকারী কোচ পল ফারব্রেস থেকে শুরু করে অধিনায়ক কুক, এমনকি তরুণ সদস্য জেমস টেইলরও আশাবাদী। ইংল্যান্ড সে সময় অফ স্পিনার সাঈদ আজমল ও বাঁহাতি আব্দুর রেহমানের কাছেই পুরোপুরি পরাস্ত হয়েছিল। কিন্তু এবার পাকিস্তান দলে এদের একজনও নেই। অবৈধ বোলিং এ্যাকশনের কারণে গত বছর নিষিদ্ধ হন আজমল। তবে এ্যাকশন শুধরানোর পর এ বছর ফেব্রুয়ারিতে আবারও বোলিং করার অনুমতি পান তিনি। তবে শুধরানো এ্যাকশনে আগের কার্যকারিতা হারিয়ে ফেলেন। আজমলের পরিবর্তে লেগ স্পিনার ইয়াসির শাহকে দলে পেয়েছে পাকিস্তান। যিনি নিঃসন্দেহে এই মুহূর্তে বিশ্ব সেরা স্পিনারদের একজন। ইয়াসিরের সঙ্গে থাকতে পারে বাঁহাতি আরেক স্পিনার জুলফিকার বাবর। পাকিস্তান সিরিজকে অনেক বড় একটি চ্যালেঞ্জ হিসেবে দেখছেন সহকারী কোচ ফারব্রেস। তিনি বলেন ‘আমাদের দলে কিছু অনভিজ্ঞ তরুণ খেলোয়াড় রয়েছে। কিন্তু তারা এমন ধরনের খেলোয়াড় যাদের অনেক সক্ষমতা ও দক্ষতা আছে। তাদের মধ্যে আমি কিছু দরকারী শক্তিমত্তা দেখছি এবং তারা কিছু দক্ষতা নিয়েই জন্মগ্রহণ করেছে। তাই তাদের ভাল ক্রিকেট না খেলার কোন কারণ আমি দেখছি না এবং আমরা ভাল ক্রিকেট খেলতে পারলে আমাদের হারানোটা কঠিন হবে।’ কুক বাহিনীকে কেবলমাত্র পাকিস্তানের মানসম্মত স্পিন বোলিং এবং শক্তিশালী ব্যাটিং লাইন আপকেই মোকাবেলা করতে হবে না, তাদের সংযুক্ত আরব আমিরাতে প্রচ- গরম এবং বৈরী কন্ডিশনের সঙ্গেও খাপ খাওয়াতে হবে। কুক বলেন, ‘আমরা একটা তরুণ এবং উত্তেজনাপূর্ণ দল পেয়েছি এবং যে কোন চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় আমাদের কতটা কঠোর পরিশ্রম করতে হবে সে সম্পর্কে আমাদের পরিষ্কার ধারণা রয়েছে।’ তিনি আরও বলেন ‘সেটা হচ্ছে প্রচ- গরম, যার সঙ্গে আমাদের মানিয়ে নিতে হবে অতএব প্রথম দুটি অনুশীলন সেশন কঠোর পরিশ্রম করতে হবে। কন্ডিশনের এ অংশটা আমাদের মোকাবেলা করতে হবে। সম্ভবত আমাদের চেয়ে এ কন্ডিশনটা পাকিস্তনের জন্য কিছুটা পরিচিত। কিন্তু আমরা ভালভাবেই মানিয়ে নিতে পারব। পাওয়া সুযোগগুলো কাজে লাগানোটাই হবে সাফল্যের চাবিকাঠি। এখানে সর্বশেষ ২০১২ সালে পাকিনস্তানের কাছে ৩-০ তে হোয়াইটওয়াশ হওয়া সম্পর্কে কুক বলেন, ‘শেষ সিরিজটা সম্ভবত আমাদের জেতা উচিত ছিল। সে সময় সিরিজ জয়ের সুযোগ আমাদের ছিল। কিন্তু পাকিস্তান সেটা হতে দেয়নি এবং সত্যিই তারা গুরুত্বপূর্ণ মুহূর্তগুলো জিতে নিয়েছিল।

নির্বাচিত সংবাদ