২২ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

জাজবা দিয়ে ফিরছেন ঐশ্বরিয়া

  • নিবিড় লতিফুল বারী

বলিউডের একজন প্রথম শ্রেণীর অভিনেত্রীর পাঁচ বছরের বিরতি। তাও আবার সাবেক মিস ওয়ার্ল্ড। শুধু তাই নয়, ফিরছেন আরেক বলিউড আইকন, গুণী অভিনেতা ইরফান খানের সঙ্গে। হ্যাঁ, ঐশ্বরিয়া রাইয়ের কথাই হচ্ছে। আসছে ৯ অক্টোবর বলিউডের রূপালী পর্দায় হাজির হচ্ছেন তিনি। ছবির নাম ‘জাজবা’, যেটি পরিচালনা করেছেন সঞ্জয় গুপ্ত।

মজার বিষয় হলো- সঞ্জয় গুপ্তের কাছ থেকে স্ক্রিপ্ট শুনেই ঐশ্বরিয়া মনে মনে কল্পনা করে ফেলেন এই ছবিতে ইয়োহান চরিত্রে অভিনয় করছেন ইরফান খান। যখন পরিচালক নিশ্চিত করলেন ঐশ্বরিয়ার কো-এ্যাক্টর ইরফান তখন পুরোই অবাক হয়ে গিয়েছিলেন তিনি। বাঁধভাঙ্গা আনন্দে ভরে উঠেছিল তার মন। শুধু ঐশ্বরিয়া নয়, এই ছবি নিয়ে অভিষেক বচ্চনও উত্তেজিত। ইতোমধ্যে তিনি শাহরুখ খানকে অনুরোধ করেছেন ছবির প্রথম শো দেখার জন্য। এমনকি মিডিয়ায় এমনও শোনা যাচ্ছে যে, অভিষেক তার ‘হ্যাপি নিউ ইয়ার’-এর কো-স্টারকে অফিসিয়াল ট্রেলার রিলিজ হওয়ার আগেই ট্রেলার দেখিয়েছেন যেন শাহরুখ হলে ছবি দেখতে আসে।

কেন ছবিটি দর্শকদের মনে প্রবল আকাক্সক্ষা তৈরি করেছে? একে তো ঐশ্বরিয়া পাঁচ বছর অভিনয় থেকে সরেছিলেন। তার ওপর এই সময়ে মা হয়েছেন। মিডিয়ায় কানাঘুষা ছিল ওজন বেড়ে গেছে। আর হয়ত ফিরতে পারবেন না তিনি। ঘরকন্না করেই জীবন কাটিয়ে দিতে হবে। কিন্তু সবকিছু মিথ্যা প্রমাণ করে ফিরে এলেন নতুন করে। আর সেই ফেরা কতটা শক্তিশালী তার প্রমাণ পাওয়া যাবে ছবির ‘কাহানিয়া’ গানের দৃশ্যে। এই গানের ভিডিওতে ঐশ্বরিয়াকে কখনও দেখা যায় জগিং করতে, কখনও ইয়োগা করতে, কখনও বাচ্চাকে সময় দিতে আবার কখনও বা সময় করে অফিসে যেতে। আর এই ছবিতে ঐশ্বরিয়ার এক্সপ্রেশনই বলে দেয় মিডিয়ার ধারণা ভুল। সে ফিরে আসছে আগের মতো করেই। অবশ্যই এটি ঐশ্বরিয়ার নারী ভক্তকুলের জন্য একটি উদাহরণ, কিভাবে ফিটনেস ঠিক রাখতে হয় সে বিষয়ে। এছাড়াও যেহেতু ছবিটি ক্রাইম থ্রিলার ছবি, সুতরাং কিছু কঠিন দৃশ্যে অভিনয় করতে হয়েছে ঐশ্বরিয়াকে, এমনকি কিছু ক্ষেত্রে দুঃসাহসিক স্টান্ট। তবে এসবের জন্য কোন চাপ অনুভব করেননি তিনি এমনটাই জানিয়েছেন পিটিআইকে দেয়া এক সাক্ষাতকারে। বরং তিনি সকল চাপ চাপিয়ে দিয়েছেন সঞ্জয় গুপ্তের ওপর। হ্যাঁ, সঞ্জয় গুপ্ত আসলেই চাপে ছিলেন, ছবিটি ঐশ্বরিয়ার কামব্যাক ফিল্ম আর তাছাড়াও নিজের সিনেমার গল্প বলার যে স্টাইল সেটা যেন ঠিক থাকে এসব সামলাতে গিয়ে আসলে চাপেই ছিলেন সঞ্জয়। তার ওপর আগের হিট ছবি ‘শূটআউট ওয়াদালা’র ধারাবাহিকতা ধরে রাখার তাড়না। আর এই ছবির কাস্টিং নিয়েও বেশ সচেতন ছিলেন সঞ্জয়। শুধু ঐশ্বরিয়াকে কাস্ট করেই ক্ষান্ত হননি তিনি। ইরফান খান, শাবানা আজমি, জ্যাকি শ্রফ, চন্দন রায় স্যানাল, অতুল কুলকার্নি প্রমুখকেও অন্তর্ভুক্ত করেছেন ছবির প্রয়োজনে। কোরিয়ান মুভি ‘সেভেন ডেজ’-এর এই ইন্ডিয়ান রিমেকে ঐশ্বরিয়ার কামব্যাক নিয়ে অনেক আলোচনা হলেও ছবিটি কিন্তু মোটেও নারীকেন্দ্রিক নয়। ঐশ্বরিয়ার ভূমিকা একজন আইনজীবীর। ওদিকে ইরফান খান রয়েছেন একজন চাকরিচ্যুত পুলিশ অফিসারের ভূমিকায়।

সঞ্জয় গুপ্তের কাছ থেকে হঠাৎ অফার পেয়ে কী মনে হয়েছিল- টাইমস অব ইন্ডিয়ার এমন প্রশ্নের জবাবে ঐশ্বরিয়া বলছেন, ‘আমি স্ক্রিপ্ট পড়লাম, কাস্টিং দেখলাম এবং আমার মনোভাব ব্যক্ত করলাম। দেখি সঞ্জয় যা ভাবছে আমি সেটাই বলে ফেলেছি। সুতরাং কাজের কো-অপারেশনের জায়গাটা তৈরি হয়ে গেল তখনই। পরিচালক সঞ্জয় সাধারণত একাধিক টেক নিয়ে থাকে শূট করার সময়। কিন্তু ইরফান খান ও আমার বোঝাপড়া এতই শক্ত ছিল যে প্রচুর সিন এক টেকেই ওকে হয়ে গিয়েছিল।’ আর ঐশ্বরিয়া সম্পর্কে ইরফান খান বলছেন, ‘অবশ্যই ঐশ্বরিয়া আমার কো-এ্যাক্ট্রেসদের মধ্যে সবচেয়ে সুন্দরী। আর ওর সঙ্গে আমার প্রথম শূট থেকেই আমি খেয়াল করছি দৃশ্যটি দুই জনের জন্যই সহজ করার জন্য ওর কী প্রাণান্ত চেষ্টা।’

এ ছবির সঙ্গীত পরিচালনার দায়িত্বে ছিলেন শচীন জিগার, আমজাদ নাদিম এবং অর্ক। ইতোমধ্যেই রিলিজ করা গানগুলো ইউটিউবে ঝড় তুলেছে। সঞ্জয় গুপ্তের সঙ্গে যৌথভাবে চিত্রনাট্য লিখেছেন রবিন ভাট। আর ছবিটি প্রযোজনা করেছে হোয়াইট ফিচার ফিল্ম, ভাইকিং মিডিয়া এ্যান্ড এন্টারটেইনমেন্ট। এখন অপেক্ষা ৯ তারিখের জন্য, সমগ্র বলিউডবাসী কিভাবে ঐশ্বরিয়াকে স্বাগত জানায়।