১৩ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

বিদেশী হত্যায় বিএনপি জামায়াতের ষড়যন্ত্র থাকতে পারে ॥ স্বরাষ্ট্র ও তথ্যমন্ত্রীর অভিযোগ

বিশেষ প্রতিনিধি ॥ সম্প্রতি দেশে দুই বিদেশী নাগরিক হত্যার ঘটনায় বিএনপি-জামায়াতের দিকে অভিযোগের আঙ্গুল তুললেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল এবং তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু। বৃহস্পতিবার নিজ নিজ মন্ত্রণালয়ে পৃথকভাবে সাংবাদিকদের তারা এ অভিযোগ করেন। দুই বিদেশী হত্যায় বিএনপি-জামায়াত জড়িত প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা ও ছেলে সজীব ওয়াজেদ জয়ের এমন বক্তব্যের সত্যতা আছে উল্লেখ করে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেছেন, দেখতে হবে এ ঘটনায় কারা বেনিফিসিয়ারি। তারাই এই ঘটনা ঘটাতে পারে। তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু দেশে দুই বিদেশী নাগরিক হত্যার পেছনে ‘বিএনপি-জামায়াতের ষড়যন্ত্র’ থাকতে পারে বলে মন্তব্য করেছেন।

সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, তিনি (সজীব ওয়াজেদ জয়) নিশ্চয়ই কোন ক্লু পেয়ে এ কথা বলেছেন। তার বক্তব্যের সঙ্গে আমরা একমত। তার বক্তব্যের সত্যতা আছে। যৌক্তিকভাবে ব্যাখ্যা করলে এমনটাই আসে (বিএনপি-জামায়াতের জড়িত থাকা)। জয়ের এ ক্লু আমরা গুরুত্বের সঙ্গে নিয়েছি, তা খতিয়ে দেখছি।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সাংবাদিকদের প্রশ্ন ছুড়ে বলেন, তা না হলে দুই বিদেশী হত্যাকা-ের মতো এ ধরনের বর্বরতা কেন? কারা এর সুবিধাভোগী? যদি বলতে হয়, আগে অগ্নিসন্ত্রাস করে যারা ব্যর্থ হয়েছেন, হয়ত তাদের এটা নতুন কৌশল হতে পারে। তিনি বলেন, কোন সন্দেহই অমূলক নয়। সব সন্দেহ সামনে রেখে তদন্ত চালিয়ে যাচ্ছি। আশা করি, শীঘ্রই দুই বিদেশী হত্যার রহস্য উদ্ঘাটন করতে পারব।

বিএনপি-জামায়াতের সম্পৃক্ততার যুক্তি তুলে ধরে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আরও বলেন, অতীতের ইতিহাস ও ঘটনা প্রবাহে প্রমাণ করে, এমন হত্যাকা- কারা ঘটাতে পারে। তা আমরা খতিয়ে দেখছি। দুই বিদেশী হত্যাকা-ের সুনির্দিষ্ট তথ্য শীঘ্রই উদ্ঘাটন হবে।

দেশে দুই বিদেশী নাগরিক হত্যার পেছনে ‘বিএনপি-জামায়াতের ষড়যন্ত্র’ থাকতে পারে বলে মন্তব্য করেছেন তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু। বৃহস্পতিবার সচিবালয়ে নিজ কার্যালয়ে সাংবাদিকদের তিনি বলেন, এই মুহূর্তে বিএনপি-জামায়াত ছাড়া এই ধরনের চক্রান্ত অন্য কোন রাজনৈতিক দল করে না। নিকট অতীতে তারা ভয়াবহ সন্ত্রাসের জন্ম দিয়েছিল।

বিএনপি নেতৃত্বাধীন জোটের সরকারবিরোধী আন্দোলনে পুড়িয়ে ‘মানুষ হত্যার’ প্রসঙ্গ টেনে ইনু বলেন, আগুন সন্ত্রাসে ৬শ’র বেশি মানুষ হাতেনাতে ধরা পড়েছে। তাদের মধ্যে ১০-১২ ব্যক্তি ছাড়া বাকি প্রায় সবাই বিএনপি-জামায়াতের কর্মী। সুতরাং এটা এড়ানোর কোন উপায় নেই।

দেশে জঙ্গীবাদ নেই- বিএনপির এমন দাবিকে ‘ডাহা মিথ্যা’ উল্লেখ করে তথ্যমন্ত্রী বলেন, এই কথার মধ্য দিয়ে আসলে তারা জঙ্গীবাদকে আড়াল করার চেষ্টা করছে, খুনীদের রক্ষার চেষ্টা করছে এবং নিজেদের আগুন যুদ্ধের মামলার বিচার ধামাচাপা দেয়ার চেষ্টা করছে।

এমপি লিটন আত্মসমর্থন না করলে গ্রেফতার করা হবে ॥ শিশু সৌরভের দুই পায়ে গুলি করার অভিযোগে অভিযুক্ত গাইবান্ধা-১ (সুন্দরগঞ্জ) আসনের সংসদ সদস্য মঞ্জুরুল ইসলাম লিটন আত্মসমর্পণ না করলে তাকে খুঁজে বের করে গ্রেফতার করা হবে বলে জানিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল। বৃহস্পতিবার সচিবালয়ে নিজ দফতরে মাদক নিয়ন্ত্রণ বোর্ডের ১৪তম সভা শেষে সাংবাদিকদের এ কথা জানান স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী।

উল্লেখ্য, শুক্রবার সকাল পৌনে ৬টার দিকে সুন্দরগঞ্জ উপজেলার দহবন্ধ ইউনিয়নের গোপালচরণ (বৌদ্ধনাথ-ব্র্যাক মোড়) এলাকায় এমপি লিটনের ছোড়া গুলিতে শিশু সৌরভ দুই পায়ে গুলিবিদ্ধ হয়।

এ্যালকোহল-কেমিক্যালযুক্ত এনার্জি ড্রিংস নিষিদ্ধ করছে সরকার ॥ বাজারে প্রচলিত এনার্জি ড্রিঙ্কসের বেশিরভাগেই অতিরিক্ত মাত্রায় এ্যালকোহল (মাদকদ্রব্য) ও অন্যান্য ক্ষতিকর কেমিক্যাল রয়েছে। এসব ড্রিঙ্কস ল্যাবরেটরিতে পরীক্ষা করে নিষিদ্ধ ঘোষণা করবে সরকার। পাশাপাশি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থাও নেয়া হবে। বৃহস্পতিবার দুপুরে সচিবালয়ে নিজ দফতরে সাংবাদিকদের এ কথা জানান স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল। মাদক নিয়ন্ত্রণ বোর্ডের ১৪তম সভায় এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। বেলা ১২টা থেকে ৩টা পর্যন্ত তিন ঘণ্টাব্যাপী চলে এ সভা। এ ছাড়া রাজধানীর গুলশান, বানানী, মহাখালী, ধানম-িসহ বিভিন্ন এলাকার সিসাবারগুলোও বন্ধ করে দেয়ার সিদ্ধান্ত হয়েছে। প্রয়োজনে কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থাও নেয়া হবে বলে জানান আসাদুজ্জামান খান কামাল।

শিশু সাইবার অপরাধ ঠেকাতে গ্রামীণফোন নেটওয়ার্কিং ॥ শিশু সাইবার অপরাধ ঠেকাতে গ্রামীণফোন নেটওয়ার্কিংয়ে ফিল্টার স্থাপন করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু। বৃহস্পতিবার সচিবালয়ে নিজ দফতরে সাংবাদিকদের এ তথ্য দেন তিনি। এর আগে গ্রামীণফোনের একটি প্রতিনিধি দলের সঙ্গে বৈঠক করেন তথ্যমন্ত্রী। এ সময় তথ্যমন্ত্রী বলেন, গ্রামীণফোন সাইবার অপরাধ দমনে তাদের নেটওয়ার্কে ফিল্টার বসিয়েছে। শিশুরা যাতে ইন্টারনেট ব্রাউজিংয়ের মাধ্যমে কোন অনভিপ্রেত কিছু দেখতে না পারে এবং ডাউনলোড না করতে পারে সে লক্ষ্যে এ ফিল্টার বসানো হয়। এছাড়া ক্ষতিকারক বিকিরণ ঠেকাতে সারাদেশে গ্রামীণফোনের টাওয়ারে শীঘ্রই নতুন একটি ডিভাইস স্থাপন করবে তারা।