২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

খালেক ম-লের বিরুদ্ধে অগ্রগতি প্রতিবেদন দাখিল ৯ ডিসেম্বর

  • যুদ্ধাপরাধী বিচার

স্টাফ রিপোর্টার ॥ একাত্তরে মুক্তিযুদ্ধের সময় মানবতাবিরোধী অপরাধের অভিযোগে সাতক্ষীরা জেলা জামায়াতের আমির ও সাবেক সংসদ সদস্য মাওলানা আব্দুল খালেক ম-লের বিরুদ্ধে ৯ ডিসেম্বর তদন্তের অগ্রগতি প্রতিবেদন দাখিলের দিন ধার্য করা হয়েছে। কিশোরগঞ্জের নিকলির রাজাকার কমান্ডার সৈয়দ মোঃ হুসাইন ও মোহাম্মদ মোসলেম প্রধানের বিরুদ্ধে আগামী ১৯ নবেম্বর আনুষ্ঠানিক অভিযোগ দাখিলের দিন নির্ধারণ করা হয়েছে। নেত্রকোনা জেলার মুসলিম লীগ নেতা আতাউর রহমান ননী ও নেজামে ইসলামের ওবায়দুল হক তাহেরের বিরুদ্ধে প্রসিকিউশনের ২১তম সাক্ষী হোসেন আলী জবানবন্দী প্রদান করেছেন। জবানবন্দী শেষে আসামিপক্ষের আইনজীবী তাকে জেরা করেছেন। পরবর্তী সাক্ষ্যের জন্য ২০ অক্টোবর দিন ধার্য করা হয়েছে। চেয়ারম্যান বিচারপতি আনোয়ারুল হকের নেতৃত্বে তিন সদস্যের আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-১ বৃহস্পতিবার এসব আদেশ প্রদান করেছেন।

অন্যদিকে কক্সবাজারের সালামত উল্লাহ খানসহ ১৯ জনের বিরুদ্ধে তদন্তের চূড়ান্ত প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে তদন্ত সংস্থা। তাদের বিরুদ্ধে একাত্তরে মুক্তিযুদ্ধে হত্যা, ধর্ষণ, লুটপাট, অগ্নিসংযোগ, নির্যাতন, ধর্মান্তর ও দেশান্তকরণের তেরোটি মানবতাবিরোধী অপরাধের অভিযোগ আনা হয়েছে।

সাতক্ষীরা জেলা জামায়াতের আমির আব্দুল খালেক ম-লের বিরুদ্ধে ৯ ডিসেম্বর তদন্তের অগ্রগতি প্রতিবেদন দাখিলের দিন ধার্য করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার তদন্তের অগ্রগতি প্রতিবেদন দাখিলের জন্য তিন মাস সময়ের আবেদন জানান প্রসিকিউটর রেজিয়া সুলতানা চমন। শুনানি শেষে ৯ ডিসেম্বর তা দাখিলের দিন ধার্য করেন চেয়ারম্যান বিচারপতি মোহাম্মদ আনোয়ার উল হকের নেতৃত্বে তিন সদস্যের ট্রাইব্যুনাল-১।

এর আগে সাতক্ষীরা সদর উপজেলার খলিলনগর মহিলা মাদ্রাসায় নাশকতার উদ্দেশ্যে কয়েক সহযোগীকে নিয়ে গোপন বৈঠকের অভিযোগে নিজ বাড়ি থেকে গত ১৬ জুন ভোরে তাকে গ্রেফতার করে পুলিশ। পরে আব্দুল খালেক ম-লের বিরুদ্ধে একাত্তরে মোস্তফা গাজী নামে একজনকে হত্যার অভিযোগে ট্রাইব্যুনালের মামলায় গ্রেফতার দেখানো হয়। একাত্তরে শিমুলবাড়িয়া গ্রামের রুস্তম আলীসহ পাঁচজনকে হত্যার দায়ে ২০০৯ সালের ২ জুলাই তার বিরুদ্ধে মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলা করেন রুস্তম আলীর ছেলে নজরুল ইসলাম গাজী। উল্লেখ্য, মুক্তিযুদ্ধের সময় রাজাকার বাহিনীর নেতৃত্ব দিয়ে কয়েকটি হত্যা, ধর্ষণসহ হিন্দু পরিবারের জমি ও বাড়ি দখলের অভিযোগ রয়েছে তার বিরুদ্ধে।

মহেশখালীর ১৯ রাজাকার ॥ একাত্তরে মুক্তিযুদ্ধের সময় মানবতাবিরোধী অপরাধের অভিযোগে কক্সবাজার জেলার মহেশখালীর সালামত উল্লাহ খানসহ ১৯ জনের বিরুদ্ধে তদন্তের চূড়ান্ত প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে তদন্ত সংস্থা। তাদের বিরুদ্ধে একাত্তরে মুক্তিযুদ্ধে হত্যা, ধর্ষণ, লুটপাট, অগ্নিসংযোগ, নির্যাতন, ধর্মান্তর ও দেশান্তরকরণের তেরোটি মানবতাবিরোধী অপরাধের অভিযোগ আনা হয়েছে।

কিশোরগঞ্জের দুই রাজাকার ॥ মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলায় পলাতক কিশোরগঞ্জের নিকলির রাজাকার কমান্ডার সৈয়দ মোঃ হুসাইন ও মোহাম্মদ মোসলেম প্রধানের বিরুদ্ধে ১৯ নবেম্বর আনুষ্ঠানিক অভিযোগ (ফরামাল চার্জ) দাখিলের দিন ঠিক করেছে ট্রাইব্যুনাল। বৃহস্পতিবার প্রসিকিউশনের আবেদনের প্রেক্ষিতে চেয়ারম্যান বিচারপতি আনোয়ার উল হকের নেতৃত্বে তিন সদস্যের ট্রাইব্যুনাল এ দিন ধার্য করেন।

আসামিদের বিরুদ্ধে আনুষ্ঠানিক অভিযোগ দাখিলের জন্য ৬ সপ্তাহের সময়ের আবেদন জানিয়ে শুনানি করেন প্রসিকিউটর ব্যারিস্টার তুরিন আফরোজ। তিনি জানান, তদন্ত সংস্থার কাছ থেকে তদন্তের চূড়ান্ত প্রতিবেদন পাওয়া গেছে। এর ভিত্তিতে আনুষ্ঠানিক অভিযোগ তৈরি করে দাখিল করতে সময়ের প্রয়োজন। বুধবার তদন্তের চূড়ান্ত প্রতিবেদন প্রকাশ ও পরে প্রসিকিউশনের কাছে হস্তান্তর করে তদন্ত সংস্থা।

ননী-তাহের ॥ একাত্তরে মুক্তিযুদ্ধের সময় নেত্রকোনা জেলার মুসলীম লীগ নেতা আতাউর রহমান ননী ও নেজামে ইসলামের ওবায়দুল হক তাহেরের বিরুদ্ধে প্রসিকিউশনের ২১তম সাক্ষী মোঃ হোসেন আলী জবানবন্দী প্রদান করেছেন। জবানবন্দী শেষে আসামিপক্ষের আইনজীবী তাকে জেরা করেছেন। পরবর্তী সাক্ষীর জন্য ২০ অক্টোবর দিন নির্ধারণ করা হয়েছে। চেয়ারম্যান বিচারপতি আনোয়ার উল হকের নেতৃত্বে তিন সদস্য বিশিষ্ট আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-১ বৃহস্পতিবার এ আদেশ প্রদান করেছেন।